Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৯ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৭ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

রোনালদোদের বাঁচা-মরার লড়াই

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

ইউরোপ সেরা হওয়ার লক্ষ্যে রিয়াল মাদ্রিদ থেকে চড়া দামে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে দলে টানে জুভেন্টাস। এ খবর সবারই জানা। কিন্তু সেরি আ জায়ান্টদের সেই লক্ষ্য হোঁচট খেয়েছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর প্রথম লেগে, অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের ডেরায়। আসরে টিকে থাকতে ঘরের মাঠে দারুণ কিছু করে দেখাতে হবে মাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রির দলকে। সেই লক্ষ্যে সতীর্থদের উদ্দেশ্যে নতুনভাগে জেগে ওঠার ডাক দিয়েছেন রোনালদো।
তুরিনের সেই ম্যাচে আজ মুখোমুখি হবে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ ও জুভেন্টাস। প্রথম লেগে ২-০ গোলে পিছিয়ে থাকায় ইতালিয়ান জায়ান্টদের ঘুরে দাঁড়াতে রোনালদোর জ্বলে ওঠার কোন বিকল্প নেই। আলিয়াঁজ অ্যরেনাতে অনুষ্ঠিতব্য ম্যাচকে সামনে রেখে জুভেন্টাস টেলিভিশনকে রোনালদো বলেন, ‘প্রথম লেগে ২-০ গোলে পরাজয় আমরা কোনভাবেই আশা করিনি। কিন্তু ফুটবলে সবকিছুই সম্ভব। নিজেদের মাঠ ও সমর্থকদের সামনে আমরা কিছু করে দেখাতে চাই। এটা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের রাত, এখানেই নিজেদের প্রমানের সবচেয়ে বড় সুযোগ এখন আমাদের হাতে। দলের পাশাপাশি ব্যক্তিগতভাবে আমি নিজেও দারুণ আশাবাদী।’ ভক্তদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘চলো ইতিবাচক চিন্তা করি, বিশ্বাস রাখি। হ্যাঁ, এটা সম্ভব। তবে তোমাদের সাহায্য আমাদের দরকার।’
টানা সাতবারের ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়ন জুভেস্টাস গত বছর গ্রীষ্মে রিয়াল মাদ্রিদ থেকে ১০০ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে রোনালদোকে উড়িয়ে আনে শুধুমাত্র চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ২৩ বছরের শিরোপা খরা ঘোঁচানোর লক্ষ্যে। গত এপ্রিলে তুরিনের কোয়ার্টার ফাইনালে রিয়ালের হয়ে ৩৪ বছর বয়সী এই পর্তুগীজ তারকার ওভারহেড কিক জুভেন্টাসকে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে দিয়েছিল। ২০১৬ সালের এপ্রিলে জার্মান দল উল্ফসবার্গের বিপক্ষে প্রথম লেগে ২-০ গোলে পরাজিত হওয়ার পরেও রোনালদোর হ্যাটট্রিকে রিয়াল পরের রাউন্ডে উন্নীত হয়। এবার জুভেন্টাসের হয়ে পাঁচবারের বর্ষসেরা তেমন কিছুই করে দেখাবেন বলে আশা জুভ সমর্থকদের।
ইতিহাসও জুভেন্টাসের পক্ষে আছে। ইউরোপের সর্বোচ্চ প্রতিযোগিতায় আটবার পিছিয়ে থেকেও লড়াইয়ে ফেরার রেকর্ড আছে তুরিনের বুড়িদের। ইতালিয়ান স্পোর্টস দৈনিক কোরিয়ার ডেলো স্পোর্ট লিখেছে, ‘সিআর সেভেন এখানে এসেছে সেই লক্ষ্য পূরণ করতে। এই টুর্নামেন্টে ক্রিশ্চিয়ানো কখনই ভুল করেনি। লা লিগা শিরোপা কিংবা ক্লাবের বাণিজ্যিক কারণ পূরণ করতে রোনালদো জুভেন্টাসের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করেনি। দীর্ঘদিনের হতাশার প্রহর কাটিয়ে ওঠার অপেক্ষায় আছে জুভ।’
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে রোনালদো সর্বমোট পাঁচটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা জিতেছেন। গোল করেছেন রেকর্ড ১২১টি, যার মধ্যে তার দেয়া ৫৭টি গোলে ম্যাচের ফলাফল নির্ধারিত হয়েছে। যদিও এবারের আসরে নিজেকে সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি রোনালদো। গোল করেছেন মাত্র একটি। অ্যাটলেটিকো ম্যাচের পর থেকে লিগেও কোন গোল পাননি। এ পর্যন্ত সিরি-এ তার গোল ১৯টি। তার থেকে এক গোল বেশি করে সাম্পদোরিয়ার ফ্যাবিও কুয়াগলিয়ারেলা এখন পর্যন্ত লিগের শীর্ষ গোলদাতা।
ইউরোপিয়ান টুর্নামেন্টে টিকে থাকতে এদিন অন্তত দুই গোল করতে হবে রোনালদোদের। বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী রক্ষণভাগের বিপক্ষে কাজটা সহজ নয়। ডিয়েগো সিমিওনের অ্যাটলেটিকো বর্তমানে লা লিগায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। এ পর্যন্ত লিগে ২৭ ম্যাচে তারা খেয়েছে মাত্র পাঁচ গোল। দলটির বিপক্ষে ২২ গোল করা রোনালদোও এ ব্যাপারে অবগত, ‘সবাই জানে তারা অত্যন্ত শক্তিশালী দল। তারা নিজেদের দারুনভাবে রক্ষা করতে পারে। ম্যাচে তারা অনেক বেশী ঝুঁকি নেয় ও কাউন্টার অ্যাটাকে খেলতে পছন্দ করে। কিন্তু আমরাও প্রস্তুত। তাদের হারানোর জন্য সম্ভাব্য সবকিছুই আমরা করবো। ম্যাচ জিতে কোয়ার্টার ফাইনালে যাওয়াই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য।’ ২০১৪ সালের পর থেকে জুভেন্টাসের কোচ হিসেবে ১০টি শিরোপা জয় করা মাসিমিলিয়ানো আলেগ্রির ভাগ্যও অনেকটা এই ম্যাচের উপর নির্ভর করছে। ৫১ বছর বয়সী নিজেও সেটা জানেন, ‘আমি জানি আমাদেরকে নিয়ে ভক্তদের প্রত্যাশা অনেক বেশি। আমি আসার পর থেকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগই ক্লাবের মূল লক্ষ্য ছিল। তবে জুভেন্টাস বিদায় নিলে সবাই যদি একে ব্যর্থতা মনে করে তবে সেটাও ঠিক হবে না।’
মহাগুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে নিষেধাজ্ঞার কারণে খেলতে পারবেন না জুভেন্টাসের ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার অ্যালেক্স সান্দ্রো। অ্যাটলেটিকো শিবিরে নিষেধাজ্ঞার ঘড়গ স্ট্রাইকার ডিয়াগো কস্তা ও মিডফিল্ডার থমাস পার্টির উপর। লুকাস ও ফিলিপ লুইস ইনজুরিতে।
শেষে একটা তথ্য জানিয়ে রাখি, এ পর্যন্ত তিনবার মুখোমুখি হয়েও কিন্তু অ্যাটলেটিকার জাল আবিষ্কার করতে পারেনি জুভেন্টাস। সেরি আ’র দলের বিপক্ষে শেষ দশ ম্যাচে হারের কোন রেকর্ড নেই লা লিগার দলটির, আট ম্যাচেই জয়। চলতি মৌসুমে অবশ্য ঘুরে দাঁড়ানোর মহোৎসব চলছে। রিয়াল মাদ্রিদ আর পিএসজির জ্বলজ্বলে স্বপ্ন মিলিয়ে গেছে তো আয়াক্স আর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের দুর্দান্ত প্রত্যবর্তনেই।
একই সময়ে বুন্দেসলিগার দল শালকেকে আতিথ্য দেবে প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটি। দশজনের দল নিয়েও শালকের মাঠ থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ৩-২ গোলের জয় নিয়ে ফেরে পেপ গার্দিওলার দল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ
আরও পড়ুন