Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

পরাজয়ের দ্বারপ্রান্তে আইএস, তিন হাজার যোদ্ধার অস্ত্র সমর্পণ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ মার্চ, ২০১৯, ৬:৪৫ পিএম

বিগত প্রায় চার বছর যাবত ইরাক ও সিরিয়ার মধ্যবর্তী তিন ভাগের এক ভাগ অঞ্চল দখল করে রেখেছিল ইসলামিক স্টেট তথা আইএস। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে সন্ত্রাসী সংগঠনটি পরাজয়ের মুখোমুখি এসে পৌঁছেছে। সিরিয়ার বাঘোজ শহরের আশপাশের কিছু এলাকা তারা আঁকড়ে ধরে রেখেছে।

মার্কিন সমর্থিত সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেস (এসডিএফ) বলছে, আইএসের পরাজয় এখন সময়ের ব্যাপার। তবে আইএস নিয়ন্ত্রিত এলাকায় শত শত নারী ও শিশু তথা বেসামরিক লোকের কারণে তারা চূড়ান্ত অভিযানে যেতে পারছে না। অসহায় এসব লোককে নিরাপদ স্থানে আসার সুযোগ দিতেই অভিযানে সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে।
এদিকে, আইএসের পরাজয়ের মুখে হাজার হাজার লোক অস্ত্র সমর্পণ করছে বলে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো খবর দিয়েছে। আলজাজিরা বলছে, ইতোমধ্যে তিন হাজার আইএস যোদ্ধা আত্মসমর্পণ করেছে।
খবরে বলা হয়েছে, আইএসের সর্বশেষ এলাকা থেকে ব্যাপক ধোঁয়ার কুণ্ডলী, বিস্ফোরণ ও গোলাগুলির শব্দ এবং আকাশে অগ্নির কুণ্ডলী লক্ষ করা গেছে। যা দেখে মনে হচ্ছে, আইএসবিরোধী অভিযানে ব্যাপক সংঘর্ষ হচ্ছে।
এসডিএফ কমান্ডার আলি চের বলছেন, তার বাহিনী ও জোট বাহিনী মঙ্গলবার রাতে আইএস নিয়ন্ত্রিত এলাকায় হামলা চালিয়েছে। এর উদ্দেশ্য হলো, আইএস যোদ্ধারা যাতে আত্মসমর্পণ করে এবং বেসামরিক লোকরা যাতে বেরিয়ে আসতে পারে।
এসডিএফের কর্মকর্তা মুস্তফা বালি মঙ্গলবার রাতে টুইটারে বলেছেন, আত্মসমর্পণকারী আইএস যোদ্ধার সংখ্যা তিন হাজারে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া ইয়াজিদি সম্প্রদায়ের তিন নারী এবং চারটি শিশুকে বন্দি অবস্থা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।
এসডিএফের মুখপাত্র কিনো গ্যাব্রিয়েল আল-হাদাহ টেলিভিশনকে বলেছেন, ‘অভিযান শেষ হয়েছে, কিংবা শেষের পর্যায়ে। তবে বাস্তবে সেটা কার্যকর হতে একটু সময় লাগবে।’
প্রসঙ্গত, কয়েক সপ্তাহ ধরে বাঘোজ অবরুদ্ধ করে রেখেছে এসডিএফ। কিন্তু বার বার চূড়ান্ত অভিযান স্থগিত করছে তারা- যাতে সেখানকার হাজার হাজার বেসামরিক লোক, যার মধ্যে আইএস যোদ্ধাদের অনেক স্ত্রী ও সন্তানও রয়েছে, বেরিয়ে আসতে পারে। তবে গত রোববার আবার অভিযান শুরু করেছে এসডিএফ। খবরে বলা হয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ের সংঘর্ষে বেশি কিছু লোক নিহত হয়েছে। তবে আইএসের কয়েক শ যোদ্ধা বাঘোজের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে মরার জন্যও প্রস্তুত বলে মনে করা হচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সিরিয়া


আরও
আরও পড়ুন