Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১, ০৮ মাঘ ১৪২৭, ০৮ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

মৃত্যুমুখে গঙ্গানির্ভর নদ-নদী

প্রকাশের সময় : ২৮ জানুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মিজানুর রহমান তোতা : ‘চোখের সামনে নদী খাল হচ্ছে, মৃত্যুযন্ত্রণায় ছটফট করছে, কিছু বলতেও পারছি না, সইতেও পারছি না, ভারতের কারণে দিনে দিনে মৃত্যুর মুখে গঙ্গানির্ভর সব নদ-নদী, শুষ্ক মৌসুম এলে নদ-নদীর অবস্থা কতটা শোচনীয় তা দেখা যায়’ কথাগুলো বললেন স্কুল শিক্ষক আব্দুল আজিজ। ঝিনাইদহের শৈলকুপার গাড়াগঞ্জ বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া একসময়ের প্রমত্তা কুমার নদীর সংকটাপন্ন অবস্থা দেখিয়ে তিনি আরো বললেন, মাটি ও মানুষের স্বার্থে আমাদের নদীগুলো বাঁচানো দরকার। কিন্তু কোন উদ্যোগ নেই। বরং কোনরকমে জীবিত থাকা নদীগুলো গলাটিপে হত্যা করছে প্রভাবশালীরা। তারা নিজেদের পৈত্রিক সম্পত্তির মতো দখল করে যে যার মতো নদীর বুকে পাটা দিয়ে মাছ চাষ করছে, বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তৈরী করছে। করছে চাষাবাদও। শুধু শৈলকুপার কুমার নদী নয়, সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের গঙ্গানির্ভর প্রায় সব নদ-নদীর অবস্থা কাহিল হয়ে পড়েছে। নদ-নদীতে পানির খেলা নেই, নদী একূল ভাঙে ওকূল গড়ে এই তো নদীর খেলা, সে কথা এ অঞ্চলের মানুষের মুখে মুখে আর শোনা যায় না। কেউ কোনদিন ঘর বেধ না নদীর ধারে-আমির কে সে এক পলকে পথের ফকির করে, সেটিও মিথ্যা হয়ে গেছে। এখন নদীর ধারে এক শতক জমি কিনলে ১০/২০ শতক ফ্রি পাওয়া যায় নদীর জমি।
পদ্মা ও গড়াইয়ের শাখা নদ-নদী মাথাভাঙ্গা, গড়াই, ভৈরব, আপার ভৈরব, কুমার, মধুমতি, ফটকি, বেতাই, চিত্রা, নবগঙ্গা ও অভিন্ন ইছামতি ও কোদলাসহ সব নদী কার্যত খালে পরিণত হয়েছে। গঙ্গা নদীর পানির ন্যায্য হিস্যা পাওয়া যাচ্ছে না তা হার্ডিঞ্জ ব্রিজের নিচের চেহারা দেখলেই প্রমাণ হয়। নদীদেহের অন্যতম হৃদপিন্ড পদ্মা এখন স্পন্দনহীন। পদ্মার বুকে শুরু হয়েছে হাহাকার। পদ্মার শাখা-প্রশাখার উৎসমুখ গড়াইয়ে পানি গড়িয়ে আসছে না পদ্মা থেকে। অনেক প্রমত্তা ও স্রোতস্বিনি নদীর পানি কমে গেছে, কোন ঢেউ নেই, পানি নড়াচড়া নেই, একরকম নিথর হয়ে আছে। এ অঞ্চলের নদ-নদীর পানি গড়িয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়ার স্বাভাবিক ধারা হয়েছে অস্বাভাবিক। মারমুখী ও বিপজ্জনক হচ্ছে পরিবেশ। ঘটছে ষড়ঋতুর পরিবর্তন। বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন হুমকির মুখে। বিপন্ন দেশের বৃহত্তম গঙ্গা কপোতাক্ষ সেচ প্রকল্পের (জিকে প্রজেক্ট) অস্তিত্ব। দ্বিতীয় সমুদ্রবন্দর মংলা ও নওয়াপাড়া নদী বন্দর মারাত্মক সংকটে। যশোর, খুলনা, ঝিনাইদহ ও কুষ্টিয়াসহ গোটা দক্ষিণ-পশ্চিমের কৃষি, শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনীতি, উদ্ভিদ, প্রাণীকূল, জলজ, বনজ ও মৎস্য সম্পদের অপূরণীয় ক্ষতি হচ্ছে। লবণাক্ততা গ্রাস করায় ক্রমেই উপকূলীয় বিস্তীর্ণ এলাকা হচ্ছে বিরাণভূমি। নদী বিশেষজ্ঞ ও পরিবেশবিদরা জানিয়েছেন এর জন্য মূলত দায়ী ফারাক্কা। তাদের মতে, মানুষের জীবন, অর্থনৈতিক কর্মকা-, সভ্যতা, সংস্কৃতি, ঐতিহ্যের সাথে বলিষ্ঠ ও নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে নদ-নদীর। রক্তের শিরা-উপশিরার মতো বাংলাদেশের নদী ধাবমান। নদীই জীবন। নদী বাঁচলে মানুষ বাঁচবে। মানুষের অন্যতম মৌলিক অধিকার পানি প্রাপ্তি। সেটি সম্ভব হচ্ছে না ফারাক্কা ও মিনি ফারাক্কার কারণে।
ভাটি অঞ্চলের নদীমাতৃক দেশ বাংলাদেশের জলবায়ুর পরিবর্তন ঘটছে দ্রুত একথাটি সবাই স্বীকার করলেও ফারাক্কার মরণ বাঁধের কারণে যে এটি ঘটছে তা ভারতের চোখে আঙ্গুল দিয়ে বুঝিয়ে দেয়ার মতো ভূমিকা রাখার ক্ষেত্রে বরাবরই অনুপস্থিত থাকছে। ফারাক্কা বাঁধের পাশাপাশি অভিন্ন নদ-নদীর উজানে বাঁধ, পাকা সড়ক নির্মাণ, গ্রোয়েন ও পাথর ফেলে পানি নিয়ন্ত্রণ করে আসছে ভারত। চলতি শুষ্ক মৌসুমের শুরুতেই গঙ্গানির্ভর নদ-নদীর কাহিল অবস্থা দেখে নদপাড়ের লোকজন বেশ শঙ্কিত হয়ে পড়ছেন। গতবারের চেয়ে এবার ভরা শুষ্ক মৌসুমে ভয়াবহ অবস্থার আশঙ্কা করা হচ্ছে। কারণ এবার ইতোমধ্যেই। মরণ ফাঁদ ফারাক্কার কারণে প্রতিমুহূর্তে খেসারত দিতে হচ্ছে নানাভাবে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিশাল জনগোষ্ঠীকে।
সূত্রমতে, নদী ব্যবস্থাপনার ত্রুটির কারণেও দিনে দিনে অস্বিস্তহীন হয়ে পড়ছে নদ-নদী। ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি নদী শুকিয়ে খাল ও পুকুরে পরিণত হওয়ায় সেখানে মাছ চাষ করা হচ্ছে। শুকিয়ে যাওয়া নদ-নদীর দুইপাড় হয়ে যাচ্ছে দখল। তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, পানি প্রত্যাহার ছাড়াও বহুকাল যাবত সিংহভাগ নদ-নদী সংস্কার করা হয়নি। এতে নদ-নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে পানি প্রবাহ বন্ধ হয়ে গেছে। বর্ষা মৌসুমের পানি ধারণ ক্ষমতাও হারিয়ে ফেলেছে নদীগুলো। তাছাড়া নদ-নদীর কোন কোন অংশে যতটুকু প্রবাহ আছে তাও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে অপরিকল্পিত ব্রিজ নির্মাণ, বাঁধ ও পাটাতন দিয়ে মাছ চাষ, অবৈধ দখল, স্লুইস গেট ও পোল্ডার এবং ভেড়িবাঁধ নির্মাণের কারণে। নদী তে পানিপ্রবাহ না থাকায় পরিবেশের উপর নেমে এসেছে মারাত্মক বিপর্যয়। বিশেষজ্ঞদের কথা, আসলে নদী বাঁচলে মানুষ বাঁচবে। উন্নয়ন ঘটবে কৃষি, শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনীতি, জীববৈচিত্র, বনজ ও মৎস্যসম্পদ এবং পরিবেশের। সেজন্য নদী বাঁচানোর বিকল্প নেই।
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের নদ-নদী ও খাল-বিলের প্রকৃত অবস্থা হচ্ছে, অধিকাংশ নদ-নদী একবারেই শুকিয়ে গেছে। খাল-বিলেও পানিশূন্য অবস্থা। এতে সৃষ্টি হচ্ছে জীবন-জীবিকায় মারাত্মক সংকট। ঝিনাইদহের নবগঙ্গা, কালীগঞ্জের চিত্রা, নড়াইলের মধুমতি, যশোরের ভৈরব, মুক্তেশ্বরী, ইছামতি ও মাগুরার নবগঙ্গাসহ সব নদ-নদী প্রায় পানিশূন্য অবস্থা। মানচিত্র থেকে অনেক নদীর নাম মুছে যাবার উপক্রম হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড ও হাইড্রোলজি বিভাগের কর্মকর্তাদের কাছে তথ্য জানতে চাইলে বলা হয় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সকল নদ-নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে গেছে। নদীগুলো প্রায় পানিশূন্য হয়ে পড়ছে দ্রুত। নদ-নদী খনন কিংবা ড্রেজিং করা হলে গোটা এলাকার সমস্যাদির সমাধান এবং অর্থনৈতিক কর্মকা- আরো জোরদার হতো বলে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ বিজ্ঞানীরা অভিমত ব্যক্ত করেছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মৃত্যুমুখে গঙ্গানির্ভর নদ-নদী
আরও পড়ুন