Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০১৯, ০৫ চৈত্র ১৪২৫, ১১ রজব ১৪৪০ হিজরী।
শিরোনাম

স্কুলমাঠে আলুর হাট

জিয়ানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয়

দুপচাঁচিয়া (বগুড়া) থেকে মো. গোলাম ফারুক | প্রকাশের সময় : ১৫ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

দুপচাঁচিয়া উপজেলার জিয়ানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও জিয়ানগর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের খেলার মাঠ দখল করে বসেছে আলুর হাট। ফলে শিক্ষার্থীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

দুপচাঁচিয়া উপজেলার সদর থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার উত্তরে জিয়ানগর ইউনিয়ন অবস্থিত। এই ইউনিয়নের প্রাণকেন্দ্র দুপচাঁচিয়া-আক্কেলপুর সড়কের পাশে জিয়ানগর উচ্চ বিদ্যালয় ও জিয়ানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় অবস্থিত। বিদ্যালয় দুইটির একই মাঠে স্থানীয় জিয়ানগর হাটের ইজারাদার স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যাক্তিদের ছত্রছায়ায় সপ্তাহে ২ দিন শনিবার ও বুধবার হাটবারে আলুর হাট বসায়ে আসছে। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত বিভিন্ন পাইকাররা এলাকার আলু চাষিদের কাছ থেকে আলু ক্রয় করে এই মাঠেই পাহাড় সমান করে আলুর ঢিব করে রাখছে। ফলে বিদ্যালয় দুটির শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষে প্রবেশ করতে যেমন সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। তেমনি তাঁদের বিনোদনের খেলাধূলা থেকে তাঁরা বঞ্চিত হচ্ছে।
এ ব্যাপারে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শাহাদৎ হোসেন এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি “দৈনিক ইনকিলাব” কে জানান, বিদ্যালয় মাঠে আলুর হাট বসার বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। মাঠে এই আলুর হাট বসায় কোমলমতি শিশুদের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়। বিষয়টি তিনি উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার কতৃপক্ষকে অবগত করবেন বলেও জানান।

জিয়ানগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মোত্তালেব গনি একই কথা বলে জানান, বিদ্যালয় মাঠে আলুর হাট বসার ফলে শিক্ষার্থীদের এ্যসেম্বেলি করতে বিরম্বনায় পড়ছে। আলুর ধুলা-বালুতে বিদ্যালয়ের পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। এতে শিক্ষার্থী সহ শিক্ষকদের ও বিভিন্ন দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রভাবশালী এই ইজারাদা স্থানীয়দের প্রভাব খাটিয়ে এই আলুর হাট বসিয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস.এম জাকির হোসেন এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, জিয়ানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে আলুর হাট বসানোর বিষয়টি তিনি অবগত নন। শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ সৃষ্টি করে বিদ্যালয়ের মাঠে অবৈধভাবে আলুরহাট বসানো অন্যায়। এ ব্যাপারে তিনি হাট ইজারাদারের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানান।



 

Show all comments
  • ash ১৫ মার্চ, ২০১৯, ২:২৬ পিএম says : 0
    PORTIBOSOR E DESHER KRISHOKRA TEMON ALUR DAM PAY NA, KINTU ER PORE O KENO SHAHIRA ATO ALU FOLAY ATO KOSTO KORE ???
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন