Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫, ১৭ রজব ১৪৪০ হিজরী।

অনিশ্চয়তায় ক্রাইস্টচার্চ টেস্ট

দেশে ফিরতে উন্মুখ অতঙ্কিত মুশফিক-মাহমুদউল্লাহ-তামিমরা

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৫ মার্চ, ২০১৯, ১০:২৪ এএম | আপডেট : ১০:২৬ এএম, ১৫ মার্চ, ২০১৯

অনুশীলন শেষ করেই তড়িঘড়ি হাজির সংবাদ সম্মেলন কক্ষে। উদ্দেশ্য সাত তাড়াতাড়ি প্রশ্নোত্তোর পর্ব শেষ করেই জুমার নামাজ আদায়। হেগলি ওভালের পাশেই মসজিদ আল নূর। বরাবরের মত ক্রাইস্টচার্চে এলে এখানেই নামাজ আদায় করেন মুশফিক-মাহমুদউল্লাহরা। কিন্তু টানা হারের পোস্টমর্টেম যে এত তাড়াতাড়ি শেষ হবার নয়!

বাংলাদেশ থেকে নিউজিল্যান্ড যাওয়া সাংবাদিক তো বটেই, স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরাও প্রশ্নবানে জর্জর করেছেন বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে সম্মেলনে আসা ক্রিকেটারকে। লেগেছে নির্ধারিত সময়ের চাইতে ১০ মিনিট বেশি, তাতেই অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছে গোটা দল!

এই সংবাদ সম্মেলন শেষ করেই মসজিদ আল নূরে যাওয়ার কথা ছিলো তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, তাইজুল ইসলামসহ দলের অন্যান্য সদস্যদের। তবে নামাজ শুরুর কিছুক্ষন আগেই সেই মসজিদে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা হয়। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে নিউজিল্যান্ডের একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যম স্টাফ ডট কো জানিয়েছে, ন্যাক্কারজনক এই হামলায় কমপক্ষে ৬ জন নিহত হয়েছে এবাং আরো বেশ কয়েকজন গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

তবে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা সবাই নিরাপদ ও সুস্থ আছেন। এমনটাই জানানো হয়েছে নিউজিল্যান্ড থেকে। ক্রাইস্টচার্চে অবস্থানরত বাংলাদেশি একজন ক্রীড়া সাংবাদিক একটি ভিডিও টুইট করেছেন, যেখানে হ্যাগলি পার্ক এলাকা দিয়ে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের দ্রুত সরে যেতে দেখা গেছে।

এ নিয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরী সুজন দৈনিক ইনকিলাবকে বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের ঘটনা শুনে আমরাও আতঙ্কিত হয়ে উঠেছিলাম। বোর্ডের তরফ থেকে সার্বক্ষণিক তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। আমাদের ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ এবং কর্মকতা-কর্মচারিসহ বাংলাদেশ থেকে সেখানে যাওয়া সাংবাদিকরাও নিরাপদে আছে।’

ক্রাইস্টচার্চের হেগলি ওভাল এই মাঠেই আগামীকাল শনিবার ভোরে বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ডের তৃতীয় টেস্ট হওয়ার কথা রয়েছে। তবে এই ঘটনার পর এই টেস্টের ভাগ্যে কি আছে সেটিও নিশ্চিত করে বলতে পারেন নি বিসিবি সিইও সুজন, ‘এই মুহূর্তে বলা কঠিন এই টেস্ট মাঠে গড়াবে কি না। তবে এটুকু বলতে পারি আমাদের মতো নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডও ক্রিকেটারদের নিরাপত্তার ব্যাপারে সচেতন। তাদের কাছে একটি ম্যাচের চাইতে ছেলেদের জীবনের মূল্য অনেক বেশি। ছেলেরাও এই মুহূর্তে খেলার মত মানসিকতায় নেই।’

‘আমরা নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের কাছে আবেদন করেছি টেস্টটি বাতিল করা যায় কি না। যদি সম্ভব হয়, তাহলে দ্রুত সিন্ধান্ত নিয়ে আমাদের জানাতে। যাতে করে আমরা আতঙ্কে থাকা ক্রিকেটারদের দেশে ফিরিয়ে আনতে পারি।’- যোগ করেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী।

ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে সুজন বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে হেগলি ওভাল মাঠের কাছেই অবস্থিত আল নূর মসজিদ। এখানেই নামাজ আদায় করেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। শুক্রবারও অনুশীলন শেষে সেখানেই জুমার নামাজ আদায়ে যাওয়ার কথা ছিলো ক্রিকেটারদের। নামাজ শুরুর ঠিক দুই মিনিট আগে কেউ একজন বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সতর্ক করে দেন যেন তারা সেখানে না যান। বন্দুকধারীরা সেখানে আক্রমণ করেছে। তখনই বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা টিম বাসে ঢুকে পড়েন এবং নিরাপদে ফিরে আসেন।’

এই মূহূর্তে হ্যাগলির ড্রেসিং রুমেই অবস্থান করছেন তামিম-মুশফিকরা। তবে সকলেই এই ঘটনার আকস্মিকতায় আতঙ্কিত। তাদের ঘিরে রেখেছে নিরাপত্তা বাহিনী।

হামলাকারীর হাতে অটোমেটিক রাইফেল ছিল। হামলা শেষে সে জানালার কাঁচ ভেঙে পালিয়ে যেতে পেরেছে বলে তাৎক্ষনিক জানানো হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন