Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫, ১৭ রজব ১৪৪০ হিজরী।

নুসরাত-মিমির তৃণমূল মনোনয়নে সোশ্যাল মিডিয়া তোলপাড়

গ্রন্থনা : মোহাম্মদ শাহ আলম | প্রকাশের সময় : ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

টালিগঞ্জের দুই অভিনেত্রী নুসরাত জাহান (ছবিতে বাঁয়ে) আর মিমি চক্রবর্তী অভিনয় আর নাচের দক্ষতা দিয়ে লক্ষ দর্শক আর ভক্তের মন জয় করতে পারেন কিন্তু পশ্চিম বঙ্গের ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস তাদের আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থিতার সুযোগ দেবার পর সোশাল মিডিয়াতে বিরাট ঝড় উঠেছে।
ফেসবুক, টুইটার এবং হোয়াটসঅ্যাপে রুঢ় ও বুদ্ধিদীপ্ত, দুধরনেরই, মিম, মন্তব্য, লাইকের বন্যা বয়ে যাচ্ছে। অনেক নেটিজেন চলচ্চিত্রের ভূমিকার জন্য তাদের খোলামেলা ছবি পোস্ট করে ট্রল করতে ছাড়েনি।
জলপাইগুড়ি থেকে আগত মিমির বাংলা চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়েছিল ২০১২তে; তিনি দক্ষিণ কোলকাতার যাদবপুর থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করবেন। অন্যদিকে নুসরাতের অভিষেক হয়েছে ২০১১তে এবং তিনি উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাট থেকে নির্বাচনে লড়বেন।
গত সপ্তাহে প্রার্থিতা ঘোষণার পর নুসরাত পশ্চিম বঙ্গের মুখ্য মন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির একটি মন্তব্য রি-টুইট করেন যাতে উলে­খ করা হয়েছে : “৪১ শতাংশ তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী নারী বলে আমি ‘আনন্দিত ও গর্বিত’।”
এই বিশেষ টুইটটি পছন্দ করা হয়েছে ২০০০ বারের বেশি এবং রি-টুইট করা হয়েছে ৪০০ বারের বেশি, অনেকে তার এই নতুন ইনিংস শুরুর জন্য শুভেচ্ছা জানিয়েছে।
অনেকে মিমিকে অভিনন্দন জানিয়ে আগাম তাদের ভোট নিশ্চিত করেছে আবার অনেকে তাকে ভাল অভিনেত্রী হবার লক্ষ্যে রাজনীতি থেকে দূরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে।
বিশাল সংখ্যক নেটিজেন মমতা ব্যানার্জির সিদ্ধান্তের বিরোধিতাও করেছে। যাদবপুরের মত গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনী এলাকায় মিমির মনোনয়নকে অবমাননাকর বলে মন্তব্য করেছে অনেকে, এই এলাকা থেকেই সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য এবং লোকসভা স্পিকার সোমনাথ চ্যাটার্জি প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেছেন।
আরেকজন দুই অভিনেত্রীর আইটেম দৃশ্যের উত্তেজক ছবি পোস্ট করে মমতার সমালোচনা করেছে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন