Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

সাবিনাদের গ্রুপ সেরা হওয়ার লড়াই

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

প্রথম ম্যাচে ভুটানকে হারিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার নারী ফুটবলে শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই সাফ মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ চার নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ। এবার পালা গ্রুপ সেরা হওয়া। ‘এ’ গ্রুপ সেরা হওয়ার লড়াইয়ে আজ স্বাগতিক নেপালের মুখোমুখী হচ্ছে লাল-সবুজের মেয়েরা। নেপালের বিরাটনগরস্থ সাহিদ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বিকেল সোয়া ৩ টায় শুরু হবে বাংলাদেশ-নেপাল গ্রুপের শেষ ম্যাচটি। এ ম্যাচ বাংলাদেশের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। নেপালের বিপক্ষে জিতলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পাশাপাশি সেমিফাইনালে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শক্তিশালী ভারতকে এড়াতে পারবেন সাবিনা খাতুনরা। শেষ চারে ভারত বেশ শক্ত প্রতিপক্ষ। তারা টুর্নামেন্টের গত চার আসরের চ্যাম্পিয়ন। তাই বাংলাদেশকে ফাইনালে যেতে হলে আজ নেপালের বিপক্ষে জিততেই হবে।

প্রথম ম্যাচে ভুটানকে হারালেও বড় জয় পায়নি বাংলাদেশ। যা প্রত্যাশা ছিল সবার। তাই ভুটান ম্যাচ শেষে আনন্দ কিংবা উল্লাস করেনি বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়রা। টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই লাল-সবুজদের প্রধান লক্ষ্য ভারতকে এড়িয়ে সেমিফাইনালে খেলা। এটা করতে হলে গ্রুপ সেরা হয়েই সেমিতে যেতে হবে বাংলাদেশকে। বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচে ভুটানকে ২-০ গোলে হারালেও নেপাল হারিয়েছে ৩-০ ব্যবধানে। যদি বাংলাদেশ স্বাগতিকদের চেয়ে বড় ব্যবধানে ভুটানকে হারাতে পারতো তাহলে নেপালের বিপক্ষে ড্র করলেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হতে পারতেন সাবিনারা। এক্ষেত্রে সেমিতে ভারতকে এড়ানো যেত। তাই এখন নেপালের বিপক্ষে জয়ের বিকল্প নেই বাংলাদেশের। ম্যাচকে সামনে রেখে গতকাল বিরাটনগরের পুলিশ মাঠে কঠোর অনুশীলন করেন সাবিনা, মারিয়া, মৌসুমীরা। বেলা ৩ টা থেকে ৪টা পর্যন্ত এক ঘন্টার অনুশীলনে বেশ কিছু টেকনিক শিখিয়েছেন কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন।

নেপাল ম্যাচ নিয়ে অধিনায়ক সাবিনা খাতুন বলেন, ‘নেপাল আমার চেনা প্রতিপক্ষ। ২০০৯ সাল থেকেই ওদের বিপক্ষে খেলে আসছি। কিন্তু আমার এই দলের অনেকে অনূর্ধ্ব-১৬, অনূর্ধ্ব-১৮ দলের খেলোয়াড়। তাই ওদের জন্য ম্যাচটা চ্যালেঞ্জিং।’ তিনি আরো বলেন, ‘ভুটানের বিপক্ষে একটি কঠিন ম্যাচ খেলেছি। একদিন সময় পেয়ে ক্লান্তি দূর করলাম। আমার মনে হয় না আমাদের কোন সমস্যা হবে। তাছাড়া মিয়ানমারে গত নভেম্বরে আমরা নেপালের সঙ্গে ড্র করেছি। সেটা প্রমাণ করে আমাদের দলের উন্নতি হয়েছে। মেয়েরা প্রস্তুত রয়েছে লড়াইয়ের জন্য। আমার মনে হয় নেপালকে হারানো অসম্ভব নয়।’ কোচ ছোটন বলেন, ‘সেমির আগে এটা আমাদের জন্য আরেকটা সেমিফাইনাল। আমরা পিছিয়ে আছি বয়স আর অভিজ্ঞতায়। অভিজ্ঞতায় ঘাটতির কারণে মেয়েরা ছোট ছোট ভুল করে। ভুটান ম্যাচে যেমন রুপনা একটা ব্যাকপাস দিয়ে ছোট ভুল করেছিল। এ ঘাটতি পুষিয়ে নিতে হলে আমাদের শতভাগের বেশি দিতে হবে। গ্রুপ সেরা হওয়ার লড়াইয়ের জন্য মেয়েরা প্রস্তুত।’

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন