Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

নিরাপত্তা নিয়ে পাপনের ক্ষোভ

ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলা

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

অনুশীলন শেষ করেই তড়িঘড়ি হাজির সংবাদ সম্মেলন কক্ষে। উদ্দেশ্য সাত তাড়াতাড়ি প্রশ্নোত্তোর পর্ব শেষ করেই জুমার নামাজ আদায়। হেগলি ওভালের পাশেই মসজিদ আল নূর। বরাবরের মত ক্রাইস্টচার্চে এলে এখানেই নামাজ আদায় করেন মুশফিক-মাহমুদউল্লাহরা। কিন্তু টানা হারের পোস্টমর্টেম যে এত তাড়াতাড়ি শেষ হবার নয়!

বাংলাদেশ থেকে নিউজিল্যান্ড যাওয়া সাংবাদিক তো বটেই, স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরাও প্রশ্নবানে জর্জর করেছেন বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে সম্মেলনে আসা ক্রিকেটারকে। লেগেছে নির্ধারিত সময়ের চাইতে ১০ মিনিট বেশি, আর তাতেই যেন পাল্টে গেছে দৃশ্যপট, অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছে গোটা দল!

এই সংবাদ সম্মেলন শেষ করেই মসজিদ আল নূরে যাওয়ার কথা ছিলো তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, এমনকি সৌম্য সরকারসহ ১৭ জনের। তাদের সঙ্গী তখন সফরে ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করা সাবেক অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলট।

তবে নামাজ শুরুর কিছুক্ষন আগেই সেই মসজিদে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা হয়। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে নিউজিল্যান্ডের একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যম স্টাফ ডট কো জানিয়েছে, ন্যাক্কারজনক এই হামলায় কমপক্ষে ৯ জন নিহত হয়েছে এবাং আরো বেশ কয়েকজন গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ভাগ্যক্রমে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা সবাই নিরাপদ ও সুস্থ আছেন। ক্রাইস্টচার্চে অবস্থানরত বাংলাদেশি একজন ক্রীড়া সাংবাদিক একটি ভিডিও টুইট করেছেন, যেখানে হ্যাগলি পার্ক এলাকা দিয়ে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের দ্রুত সরে যেতে দেখা গেছে।

বাংলাদেশে এলে বিদেশি দলগুলোকে যে ধরণের নিরাপত্তা দেওয়া হয় সেটা তাদের দেশে সফরে গেলে পাওয়া যায় না বলে অনুযোগ করেছেন বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান। নিউজিল্যান্ডে ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় পুলিশের ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে দেরি হওয়াতেও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন তিনি। সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় ক্রাইস্টচার্চ টেস্ট বাতিল করে বাংলাদেশ দলকে দ্রুত দেশে ফেরানোর খবর জানানোর সময় পুরো বিশ্বব্যাপী নিরাপত্তা ইস্যু নিয়ে কথা বলেন বিসিবি প্রধান।

গতকাল গুলশানে নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলনে নাজমুল বলেন ক্রাইস্টচার্চের এরকম ঘটনায় প্রস্তুত ছিল না সেখানকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, ‘আমাদের দেশে কেউ যখন আসে, তখন ওরা যে ধরনের নিরাপত্তার কথা বলে, যে ধরনের নিরাপত্তা দিতে হয় তাদের আমাদের, আমরা এখন পর্যন্ত এমন কিছু (নিরাপত্তা) পাইও নাই। সত্যি কথা বলতে আমরা এটা (নিরাপত্তা) নিয়ে জোরাজোরিও করি নাই। অন্যান্য দেশেও দেখেছি কেউ করেও না, ‘আপনি যদি পুরা জিনিসটা দেখেন, নিউজিল্যান্ড কিন্তু, আমার কাছে যেটা মনে হয়েছে, এই ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে এমন কোন ধারনাই তাদের নাই। ওইখানে পুলিশের যে সময়টা লেগেছে, এটাই তো অবাক করার মতন। আমার মনে হয় না আমাদের দেশে বা আশেপাশের কোন দেশে এমন কিছু হলে পুলিশ আসতে এত সময় লাগত। তো অবশ্যই আমার মনে হয়েছে ওরা হয়তো অপ্রস্তুত ছিল।’

নাজমুল বলেন সন্ত্রাসের বিষবাষ্প পুরো বিশ্বেই ছড়িয়ে পড়েছে। নিরাপত্তার ব্যাপারে সব দেশকেই সমান গুরুত্ব দেওয়ারও আহবান তার, ‘আমার মনে হয় প্রত্যেকটা দেশকেই এখন সতর্ক হতে হবে। প্রত্যেকটা দলকেই আরও বেশি সতর্ক হতে হবে। ওদের হয়তো ধারনা থাকতে পারে এটা হয়তো উপমহাদেশে হতে পারে। ওদের এখানে হওয়ার সম্ভাবনা নেই। এই জিনিসটা কিন্তু এখন আর নেই।’

নিউজিল্যান্ডের মতো ‘নিরাপদ’ দেশে এমন ঘটনা ঘটে যাওয়ায় এবার থেকে যেকোনো সফরেই নিরাপত্তার ব্যাপারে বাড়তি ব্যবস্থা নিশ্চিতের কথাও জানান বিসিবি প্রধান, ‘নিরাপত্তা যে রকম থাকার কথা ছিল (নিউজিল্যান্ডে) বা আমরা যেমন দিয়ে থাকি, ধারে কাছেও ছিল না। এবং এটা এখানে না। শুধু এখানে না, আমরা যে জায়গাই সফর করতে যাই আমরা তেমন কোন নিরাপত্তা দেখি না। এখন হয়তো এই ব্যাপারে আরও সতর্ক হবে। অন্যরা কি করবে জানি না। তবে আজকের ঘটনার পর এটা নিশ্চিত, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড এখন থেকে যে দেশেই আমাদের দল যাক না কেন, আমাদের নূন্যতম নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এটা যারা দিতে পারবে তাদের ওখানেই আমরা খেলতে যেতে পারব এছাড়া খেলতে যাওয়া সম্ভব না।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন