Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

গোটা মুসলিম উম্মাহ বাকরুদ্ধ ও শোকাহত

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় অর্ধ শতাধিক মুসল্লী নিহতের ঘটনায় বাংলাদেশের সর্বস্তরের মুসল্লীরা বিক্ষোভে ফেটে পড়েছেন। বিভিন্ন সংগঠন তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ সমাবেশ, মিছিল ও তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। বাদ জুমা বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ থেকে সর্বস্তরের মুসল্লীগণ নিউজিল্যান্ডের মসজিদে মুসল্লী হত্যাযজ্ঞের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করে রাস্তায় নেমে আসে। নেতৃবৃন্দ বলেন, নিউজিল্যান্ডের মসজিদে জুমার নামাজ আদায়কালে নির্বিচারে হত্যাযজ্ঞে গোটা মুসলিম উম্মাহ বাকরুদ্ধ ও শোকাহত। জাতিসংঘের মাধ্যমে ইসলামী বিদ্বেষী খুনীদের বিচার করতে হবে। নেতৃবৃন্দ বলেন, নিউজিল্যান্ড সরকারকে দেশটির অন্যান্য মসজিদ, মাদরাসা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় উপাশনালয়গুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করার জোর দাবী জানান। যাতে কোনো দুস্কৃতিকারী সংখ্যালঘুদের উপাশনালয়ে অঘটন না ঘটাতে পারে।
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ
ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের সমজিদে খ্রিস্টান সন্ত্রাসীদের বন্দুক হামলায় অর্ধ-শতাধিক মুসল্লী হত্যাকান্ডের ঘটনায় জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে বিচার দাবি করেছেন। তিনি বলেন, নিউজিল্যান্ডের দুইটি মসজিদে হামলায় জড়িতদের নাম প্রকাশ হয়েছে। তারাও খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী। এই হামলায় যে কারণই উল্লেখ করা হোক না কেন, আমরা মনে করি এ হামলা বিশ্ব মুসলিমের উপর হয়েছে। আমাদের ভাইদের শাহাদাতের ঘটনায় আমরা মর্মাহত ও ক্ষুব্ধ। তিনি অবিলম্বে এ হামলার আন্তর্জাতিক তদন্ত দাবি করেন এবং অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। গতকাল শুক্রবার বাদ আসর বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে নিউজিল্যান্ডের মসজিদে খ্রিস্টান সন্ত্রাসীদের বন্দুক হামলায় অর্ধশতাধিক নামাজরত মুসল্লী হত্যার প্রতিবাদে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ পূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, আন্দোলনের প্রেসিডিয়াম সদস্য মাওলানা সৈয়দ মোহাম্মদ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী, মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, মাওলানা গাজী আতাউর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল আলম, কে এম আতিকুর রহমান, মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূূম, মাওলানা নেছার উদ্দিন, মাওলানা লোকমান হোসেন জাফরী, মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ প্রমুখ।
সমাবেশ শেষে বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে পুরানা পল্টন, দৈনিক বাংলা মোড় হয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয় গিয়ে শেষ হয়।
জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ
জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের অন্যতম সহ-সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফীর নেতৃত্বে বাদ জুমা বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের উত্তর গেইট থেকে নিউজিল্যান্ডের মসজিদে অর্ধ-শত মুসমিল শহীদ হওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিল পূর্ব সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী বলেন, ইসলাম বিদ্বেষী চক্র পরিকল্পিতভাবে মুসল্লীদের উপর নগ্ন হামলা চালিয়েছে। তিনি মুসলিম হত্যাযজ্ঞের দ্রুত বিচার এবং দেশটিতে অন্যান্য মসজিদ ও মাদরাসা প্রতিষ্ঠানে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জোর দাবী জানান। এছাড়া কোন দুস্কৃতিকারী যাতে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের ধর্মীয় উপাশনালয়ে হামলা চালাতে না পারে সে জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে। এতে আরো বক্তব্য রাখেন মাওলানা অলিউল্লাহ আরমান ও মাওলানা তোফায়েল গাজারী। পরে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়।
ইসলামী ঐক্যজোট
নিউজিল্যান্ডের দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় অর্ধ শতাধিক মুসল্লী নিহতের ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন খেলাফতে ইসলামীর আমীর ও ইসলামী ঐক্যজোটের ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী।
এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, নিউজিল্যান্ডের মসজিদে জুুমার নামাজ আদায়রত অবস্থায় মুসল্লীদের নির্মমভাবে গুলি করে হত্যার ঘটনায় গোটা মুসলিম উম্মাহ বাকরুদ্ধ ও গভীরভাবে শোকাহত। এর নিন্দা জানানোর ভাষা আমরা খুঁজে পাচ্ছি না। নিউজিল্যান্ডের নিরাপত্তা ব্যবস্থা যে কত দূর্বল, এই সন্ত্রাসী হামলা তার জলন্ত উদাহরণ।
তিনি বলেন, ঐ দেশে আরো যেসব মসজিদ, মাদরাসা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান রয়েছে, নিউজিল্যান্ড সরকারকে সেগুলোর নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। বিবৃতিতে তিনি নিহত মুসল্লীদের শহীদ আখ্যায়িত করে তাদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান ও আহতদের দ্রুত সুস্থতা কামনা করেন।
খেলাফত মজলিস
নিউজিল্যান্ডের মসজিদে জুম্মার নামাজে মুসল্লী নিহত হওয়ার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে খেলাফত মজলিসের আমীর অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক ও মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের বলেছেন, সারা দুনিয়ায় মুসলমানরা আজ ইসলাম বিদ্বেষী সন্ত্রাসীদের পরিকল্পিত হামলার শিকার। নিউজিল্যান্ডের মত একটি দেশে মুসলমানরা এরকম অনিরাপদ তা কল্পনাও করা যায় না। এ ভয়াবহ ও অতর্কিত বন্দুক হামলাকারীর অন্যতম ব্রেনটন ট্যারেন্ট নামে এক অস্ট্রেলিয়া স্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসীর ভাষ্যমতে এটি ছিল মুসলমানদের বিরুদ্ধে একটি পরিকল্পিত সন্ত্রাসী হামলা। এ হামলা সারা দুনিয়ার দুইশ’ কোটি মুসলমানদের উপর হামলার শামিল।
নেতৃদ্বয় বলেন, নিউজিল্যান্ডের মসজিদে হামলা ও মুসল্লি হত্যার সাথে জড়িত সকল সন্ত্রাসীকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে মৃত্যুদন্ড দিতে হবে।
বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন
বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর ও ঢাকা মহানগরীর আমীর মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী নিউজিল্যান্ডের মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় ৪৯ জন মুসলিম হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছেন, এ হামলা খৃষ্টান সন্ত্রাসীদের পূর্ব পরিকল্পিত। তিনি এ হামলায় জড়িতদের অবিলম্বে দৃষ্টান্ত মূলক বিচারের দাবিতে নিউজিল্যান্ডের সকল পণ্য বর্জন এবং নিউজিল্যান্ডকে বয়কট করতে বিশ্ববাসির প্রতি আহবান জানান।
গতকাল শুক্রবার বাদ আসর রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের উদ্যোগে নিউজিল্যান্ডের মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় ৪৯ জন মুসলিম হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল শেষে এক সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এতে অন্যান্যের বক্তব্য রাখেন, মুফতি সুলতান মহিউদ্দিন, মাওলানা সাইফুর ইসলাম সুনামগঞ্জী, মাওলানা আতাউল্লাহ নোমানী ও মাওলানা সুলায়মান প্রমুখ।
খতমে নবুওয়াত সংরক্ষণ কমিটি বাংলাদেশ
খতমে নবুওয়াত সংরক্ষণ কমিটি বাংলাদেশ-এর আমীর ও মধুপুর পীর সাহেব মাওলানা আব্দুল হামীদ নিউজিল্যান্ডের মসজিদে মুসল্লী হত্যাযজ্ঞের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে বলেন, ইসলাম বিদ্বেষী চক্র নির্বিচারে গুলি চালিয়ে নামাজরত মুসল্লীদের শহীদ করে মুসলিম উম্মাহ’র হৃদয়ে চরম আঘাত হেনেছে। তিনি নিউজিল্যান্ড ও অষ্ট্রেলিয়ার সকল পণ্য বর্জনের জন্য মুসলমানদের প্রতি আহবান জানান। মধুপুর পীর সাহেব নিউজিল্যান্ড সরকারকে অবিলম্বে ইসলাম বিদ্বেষী খুনীদের ফাঁসি দিতে হবে। মসজিদে মুসল্লীদের নিরাপত্তা দিতে চরমভাবে ব্যর্থ হওয়ায় নিউজিল্যান্ড প্রধানমন্ত্রীকে মুসলিম উম্মাহর কাছে ক্ষমা চাইতে হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।
নিউজিল্যান্ডের মসজিদে সন্ত্রাসী
হামলায় চট্টগ্রামে নিন্দা-ধিক্কার
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে গতকাল পবিত্র জুমার নামাজরত মুসল্লীদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় বারো আউলিয়ার পূণ্যভূমি বন্দরনগরীসহ বৃহত্তর চট্টগ্রামে সর্বস্তরের মানুষের মাঝে তীব্র নিন্দা ও ধিক্কার উচ্চারিত হচ্ছে। সবাই জোরালো দাবি তুলেছেন, উগ্রবাদী ও মুসলিম-বিদ্বেষী খ্রীস্টানদের এহেন ঘৃণ্য ও জঘন্য হামলার বিরুদ্ধে বিশ্ব বিবেককে জাগ্রত করে সশস্ত্র হামলাকারীদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। সেই সাথে সমগ্র মুসলিম উম্মাহকে আজ একাত্ম হতে হবে।
গতকাল নগরীর মোমিন রোডস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তরের ১০ম সাধারণ সভায় বক্তাগণ বলেন, মুসলমানদের পবিত্র স্থাপনা মসজিদে উগ্রবাদী খ্রীস্টানদের এই সশস্ত্র হামলা ও মুসল্লীদের হত্যা ইতিহাসের বর্বরোচিত ও নিন্দনীয় ঘটনা। এ ঘটনায় আজ আবারও প্রমাণিত হয়েছে, পৃথিবীর কোথাও মুসলমানরা উগ্রবাদী সন্ত্রাসীদের কবল থেকে নিরাপদ নয়। ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি মাছুমুর রশিদ কাদেরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত সভায় বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, মুহাম্মদ গোলাম মোস্তফা, শিহাব উদ্দীন, মুহাম্মদ কাউসার খাঁন, মুহাম্মদ ফোরকান রেজা, মুহাম্মদ মঈনুদ্দীন কাদেরী প্রমুখ।
নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে জুমার নামাজ আদায়কালে উগ্রবাদীদের সশস্ত্র হামলায় মুসলমানদের হতাহতের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান আল্লামা এম এ মান্নান ও মহাসচিব এম এ মতিন। নেতৃদ্বয় বলেন, পবিত্র জুমার দিনে নামাজরত অবস্থায় খ্রীস্টান উগ্র জঙ্গিরা হামলা করে যে নৃশংস হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে তা বিশ্ব বিবেককে নাড়িয়ে দিয়েছে। মুসলমানদের শান্তিময় পরিবেশকে বিনষ্ট এবং বিতর্কিত করতে এ হামলা চালানো হয়েছে। নেতাদ্বয় এ হামলায় জড়িতদের খুঁজে বের করে মূল হোতাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানান।



 

Show all comments
  • চেতনা সিংহ ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১২:৫৯ এএম says : 0
    নিউজিল্যান্ড শান্তির দেশ বলে খ্যাত সেখানেও হামলা। --- কেনো হয় এমনটা....? শান্তির অনুসারীরা হামলা করে নয়তো শান্তির জায়গায় হামলা হয়। অর্থাৎ হামলাটা হয় সবসময় শান্তি কর্তৃক... কেনো কেনো কেনো কেনো.....??
    Total Reply(0) Reply
  • MD Mehedi Hassan ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০০ এএম says : 0
    Bangladesh tem back koruk ...oi khane porjapto nirapod nai ..ei kaj jodi amr desh e hoyto ..ICC ...je ki korto allahi valo jane
    Total Reply(0) Reply
  • মোস্তাফিজ চৌধুরী ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০০ এএম says : 0
    সন্ত্রাসী জঙ্গি হামলা বলতে লজ্জা লাগে? হামলকারী মুসলিম হলে কিংবা হামলা টা মুসলিম দেশে হলে বিশ্ব মিডিয়ার প্রপাগান্ডার একটুও কমতি থাকত না । তাই হেড লাইনটা হওয়া উচিত ছিল"ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে খ্রিস্টান জঙ্গীদের হামলা"।
    Total Reply(0) Reply
  • Mdn Shariful Shariful ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০০ এএম says : 0
    আজতো হেডলাইন তেমন জমকানো লাগলোনা, মুসলমান মরেছে এরজন্য। বেধরর্মি মরলে হয় জঙ্গিহামলা মুসলমান মরলে হয় আতোতায়ি, বন্দুকধারি আরোঅনেক নাম। আজ মুসলমান নামটা বিশ্বের কাছে যেন উপহাসের পাত্র।
    Total Reply(0) Reply
  • Habib Rahman ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
    Wake up Muslim Wake up. world terror organisation America Israel and India produce their strength through to Al qaeda. ISiS. daes etc. so we are Muslim only victim around world terror attacks. Muslim leader should change their policy and playing constructive rule towards Muslim community..
    Total Reply(0) Reply
  • Soriatulla Sumon ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০১ এএম says : 0
    মুসলিম হত্যার বিচার চাই
    Total Reply(0) Reply
  • Sujon Ahmed ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০২ এএম says : 0
    নিউজিল্যান্ডের মসজিদের কারপেটে মুসলমানদের রক্ত.. আল্লাহ তুমি এই শহীদ মুসলমানদের জান্নাত দান করো..
    Total Reply(0) Reply
  • Md Suhel ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০৩ এএম says : 0
    কোথায় আজ মুসলিম বিশ্বের নেতারা একটা প্রতিক্রিয়াও তো দেখলাম না তারা আমেরিকার হেডফোন কানে লাগিয়ে ঘুমিয়ে রইলেন হায়রে মুসলিম হায়রে মুসলমান আল্লাহ জালিমদের বিচার করবেন ইনশাআল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammad Abdullah ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০৩ এএম says : 0
    আজকের এই শন্ত্রাসি হামলা জদি মুসলিম ছাড়া।অন্য যে কোন জাতির উপর হত সারা বিশ্ব তার জবাব ছাইত।বড় দুঃখের বিষয় হল জাতিসংঘ নামক একটা জে সস্তা আছে তারা কী এখনু ঘুম থেকে উঠে নাই।তাদের মুখ থেকে কোন কথা বাহির হচ্ছেনা কেন.
    Total Reply(0) Reply
  • Ahmad Reza Faruqi ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০৪ এএম says : 0
    ক্রিকেটারদের সনশ্লিষ্টতা ছিলো বিধায় আজ মিডিয়া এতো সোচ্চার তানাহলে শুধু মুসলিমদের এই নিঃশংস হত্যার কথাকি উঠতো?
    Total Reply(0) Reply
  • Sme Imran Hossain ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১:০৪ এএম says : 0
    যারা বলে শুধু মুসলমানরাই জঙ্গি এরা মানুষ নামে কলঙ্ক এদের মানুষ বলা যাবে না কারণ প্রাণ থাকলে প্রাণী হয় মন না থাকলে মানুষ নয়
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ