Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৬ কার্তিক ১৪২৬, ২২ সফর ১৪৪১ হিজরী

নূরের গণভবনের বক্তব্য আন্দোলনের সাথে সাংঘর্ষিক

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী গত শনিবার গণভবনে ডাকসুর নব-নির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুরের দেয়া বক্তব্য পুন:নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনের সাথে সাংঘর্ষিক বলে মন্তব্য করেছেন। গতকাল রোববার বিরোধী সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে প্রশাসনকে দেয়া আল্টিমেটামের পরবর্তী করণীয় নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে লিটন নন্দী এ মন্তব্য করেন। এর আগে পুনঃতফসিলের দাবিতে ভোট বর্জনকারী ৫টি প্যানেলের দেয়া ৩ দিনের আলটিমেটাম শনিবার শেষ হয়েছে। এদিন বেলা দেড়টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনটির আয়োজন করে প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্য। লিটন নন্দী বলেন, ভোট বর্জনকারী ১ একটি প্যানেলের নেতা নুরুল হক নর শনিবার গণভবনে যে বক্তব্য দিয়েছে সেটা আন্দোলনের স্পিরিট এর সাথে সাংঘর্ষিক বলে মনে করছি। এই সময় তিনি কর্মসূচি পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করে বলেন, আজ সোমবার থেকে আমরা ক্লাস পরীক্ষা বর্জনের ডাক দিচ্ছি এবং আমরা সকাল ১১টায় রাজু ভাস্কর্য থেকে ভিসি কার্যালয়ে অবস্থান গ্রহণ করবো। লিটন নন্দী বলেন, দীর্ঘ ২৮ বছর পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যে নির্বাচন হয়েছে, সে নির্বাচনের মধ্য দিয়ে একধরনের কলঙ্কজনক অধ্যায় রচিত হয়েছে। আমরা ১১মার্চ নির্বাচনের দিন ৫টি প্যানেল যৌথভাবে এই নির্বাচনকে বর্জন করেছিলাম এবং একইসঙ্গে নির্বাচনের ফলাফলকে প্রত্যাখ্যান করে পুনঃতফসিলের দাবি জানিয়েছিলাম।
১১ মার্চ নির্বাচন বর্জনকারী পাঁচ প্যানেলের দাবিগুলোর মধ্যে ছিল, জালিয়াতির ডাকসু নির্বাচন বাতিল করা; পুনঃতফসিল ঘোষণা করা; নির্বাচনের সাথে জড়িত ভিসি, চিফ রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ অন্যান্যদের পদত্যাগ করা; মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করা এবং হামলাকারী সন্ত্রাসীদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা
তবে এই সংবাদ সম্মেলনে প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্যের প্যানেলে ছাড়া বাকি প্যানেলগুলোকে দেখা যায়নি। এ ব্যাপারে লিটন নন্দী বলেন, আমরা সংবাদ সম্মেলন করছি প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্যের জায়গা থেকে। বাকি তিনটি প্যানেল এখনো সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। পরে তারা আপনাদের সাথে কথা বলবে। আর নুরুর প্যানেলও মনে করে নুর যে বক্তব্য দিয়েছেন সেটা তাদের সংগঠন বক্তব্যের সাথে যায় না। তাই তারাও এখন বসে সিদ্ধান্ত নিচ্ছে। তবে তিনি নৈতিকতার জায়গা থেকে এই ত্রুটিপূর্ণ নির্বাচনকে বৈধতা দেয়ার সুযোগ দেখেন না বলে জানান। বাকি প্যানেলগুলো থেকে তারা আলাদা হয়ে গেছেন কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আমরা সরে যাইনি। তারা তাদের মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছেন। সামগ্রিক আন্দোলনের স্বার্থে আমরা আমাদের বক্তব্যটা স্পেসিফিক করেছি। আমরা এখনো সকলে একত্রিত হয়ে এই আন্দোলনকে চলমান রাখতে চাই। বাকি প্যানেলগুলো কিছু বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। নিশ্চয় আন্দোলনের সাথে তাদের এবং আমাদের মধ্যে দ্বিমত নেই। যারা এই গ্রুটিপূর্ণ নির্বাচনে নির্বাচিত হয়েছেন আমরা মনে করি, তারাও এই নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করবেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব পুনঃপ্রতিষ্ঠা করবেন। নুর তাদের সাথে প্রতারণা করেছেন কিনা জানতে চাইলে লিটন নন্দী বলেন, তার সাথে আমরা এখনো কথা বলতে পারিনি। তবে তার এই বক্তব্য ছাত্রদের স্পিরিটের সাথে প্রতারণা পূর্ণ। আমরা আহ্বান করব নুর তার বক্তব্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সামনে স্পষ্ট করবেন। তবে আমরা সকলকে নিয়ে আন্দোলনটা করতে চাই এবং ছাত্রদের অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে চাই।#



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ডাকসু


আরও
আরও পড়ুন