Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬, ১৭ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

ভোটারদের উপস্থিতি বাড়াতে আসছে নতুন উদ্যোগ

বিব্রত সরকার

ইয়াছিন রানা | প্রকাশের সময় : ১৯ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

উপজেলা নির্বাচনে ভোটাররা ভোট দিতে না যাওয়ায় বেশ বিব্রতকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে সরকার ও আওয়ামী লীগে। সরাসরি সরকারের এমপি-মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের নেতারা বিষয়টি নিয়ে কথা না বললেও কিভাবে ভোটারদের উপস্থিতি বাড়ানো যায় তা নিয়ে রীতিমত চলছে গবেষণা। উপজেলা নির্বাচনের আগামী তিন ধাপে ভোটারদের উপস্থিতি বাড়াতে সরকার নতুন উদ্যোগ নিতে পারে। এ নিয়ে আজ অথবা আগামীকাল সরকারের নীতি-নির্ধারকরা সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানা গেছে।
সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একটি সূত্র জানায়, ভোটারদের উপস্থিতি বা ভোট দেয়ার অনাগ্রহের কারণ বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। এ নিয়ে প্রশাসনের উচ্চ পর্যায় এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠন থেকে পরামর্শ চাওয়া হচ্ছে। বিশ্লেষণ করা হচ্ছে, আওয়ামী লীগের সমর্থকরাও কেন ভোট দিতে যাচ্ছেন না। আগামীতে কি করলে ভোটারদের উপস্থিতি বাড়বে বা এ ধরণের পরিস্থিতির উত্তোরণ ঘটবে তা নিয়েও চলছে নানা বিশ্লেষণ। আজ অথবা আগামীকাল সরকারের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে ভোটার সংকট উত্তোরণে করনীয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হতে পারে।
ইতোমধ্যে নির্বাচনে ভোটারদের আগ্রহ ও উপস্থিতি বাড়াতে সরকারের তরফ থেকে কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু তাতে তেমন একটা সুফল আসেনি। প্রত্যেক এলাকায় পুলিশ প্রশাসনের তরফ থেকে সভা, সেমিনার ও মাইকিং করে সুষ্ঠু নির্বাচন, জাল ভোট ও সহিংসতা না হওয়া, আগের দিন ভোট না হওয়ার বিষয়ে ভোটারদের আশ্বস্ত করার চেষ্টা করা হয়েছে। পুলিশ বলেছে, যদি কোন জাল ভোট বা সহিংসতার ঘটনা ঘটে তাহলে পুলিশ গুলি চালাবে তবুও নির্বাচন সুষ্ঠু ও সুন্দর হবে। ভোটারদের কোন ভয় নেই, কোন শঙ্কা নেই। কিন্তু এরপরও ভোটাররা ভোট দিতে কেন্দ্রে যাননি।
নির্বাচন কমিশনের হিসাব মতে, প্রথম ধাপের নির্বাচনে মাত্র ৩৩ শতাংশ ভোট পড়েছে। আর ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র উপ-নির্বাচনে ভোট পড়েছে ৩১.০৫ শতাংশ। এই সংখ্যার সঠিকতা নিয়েও রয়েছে নানা প্রশ্ন।
গতকাল দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে দেখা গেছে, ভোট কেন্দ্রে নির্বাচন অফিসাররা বাদাম খেয়ে ভোটারদের অপেক্ষায় সময় পার করছেন। প্রার্থীদের পোলিং অজেন্টারা ঘুমিয়ে সময় পার করেছেন। নিরাপত্তাকর্মীরা ঘুমিয়ে ও দোলনায় দোল খেয়ে সময় পার করছেন। সাংবাদিকরাও ভোটারদের জন্য কেন্দ্রে অপেক্ষায় বসেছিলেন কিন্তু ভোটারদের দেখা পাননি। নিজ এলাকার ভোটারদের কেন্দ্রে নিয়ে যেতে না পারায় বিগত নির্বাচনে নিশ্চিত জয়েও অনেকে ফেল করেছেন। প্রার্থীরা নানাভাবে ভোটারদের আশ্বস্ত করেও কেন্দ্রে নিয়ে যেতে পারেননি।
এমনাবস্থায় নতুন করণীয় ঠিক করার জন্য চিন্তিত সরকার। এই সংকট কাটিয়ে উত্তোরণের পথ খুঁজছে সরকারের নীতি-নির্ধারকরা। এ নিয়ে শীঘ্রই একটি বৈঠকের আয়োজন করা হতে পারে। যা আজ বা আগামীকাল হবার সম্ভাবনা রয়েছে বলে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের একটি সুত্র নিশ্চিত করেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশের একজন উচ্চপদস্থ কর্মকতা ইনকিলাবকে বলেন, পুলিশের আশ্বাসে ভোটারদের উপস্থিতি বাড়ছে না। তাই সরকারের তরফ থেকে নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। কিন্তু কি উদ্যোগ তা এখনো জানানো হয়নি।
এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের একজন কর্মকতা বলেন, ভোটারদের উপস্থিতি বাড়াতে সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে নতুন কিছু সিদ্ধান্ত আসবে। সিদ্ধান্ত এলেও মাঠ পর্যায়ে তা বাস্তবায়ন করা হবে।
এদিকে গতকাল নির্বাচন কমিশন ভবনে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেন, উপজেলা নির্বাচনের জৌলুস নেই। একতরফা নির্বাচনের কারণে ভোটাররাও কেউ ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার বিষয়ে আগ্রহী নয়। এহেন নির্বাচনবিমুখতা গণতন্ত্রবিমুখতায় পর্যবসিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এই অবস্থা গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত।
এর আগে ১৩ মার্চ সিলেটে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নূরুল হুদা কত শতাংশ ভোট হলে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে বা জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হবেন, এর কোনো মাপকাঠি নেই। সবচেয়ে বেশি ভোট যিনি পাবেন, তিনিই নির্বাচিত হবেন। কত ভোট পড়ল তা কমিশনের দেখার বিষয় না। এ নিয়ে ইসির কিছু করার নেই। #



 

Show all comments
  • মোঃ এমদাদুল হক এমদাদ ১৯ মার্চ, ২০১৯, ১:৫৮ এএম says : 0
    মানুষ ডিজিটাল হয়ে গেছে , লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দিতে চায় না ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে ভোটের ব্যবস্থা করা হোক ‌।।
    Total Reply(0) Reply
  • Abdullah Al Sohel ১৯ মার্চ, ২০১৯, ১:৪৭ এএম says : 0
    আগামিতে ভোটার উপস্থিতি বাড়ানো জন্যে নির্বাচন কমিশন যে যে সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারেন- * ভোটারদের লটারির মাধ্যমে পুরস্কারের ব্যবস্থা করা। নগদ পুরস্কারের ব্যবস্থা করা। * ভোট দিলেই আগামিতে কোন নির্বাচনের সুযোগ রাখা। ভোট না দিলে পরবর্তীতে কোন পদে নির্বাচন করতে পারবে না মর্মে আইন করা। * চাকুরিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ভোট দেয়া অতিরিক্ত যোগ্যতা হিসেবে গণ্য করা। ইত্যাদি
    Total Reply(0) Reply
  • Adnan Babu ১৯ মার্চ, ২০১৯, ১:৪৮ এএম says : 0
    উপস্থিতি বাড়ানোর জন্য, কেন্দ্রে ভূরিভোজের ব্যবস্থা রেখে "ভোট দিন,খেয়ে যান" নামে একটি কর্মসূচী হাতে নিয়ে দেখতে পারে সরকার
    Total Reply(0) Reply
  • Jahangir Alam ১৯ মার্চ, ২০১৯, ১:৪৯ এএম says : 0
    আগামীতে ভোটার উপস্থিতি বাড়ানো জন্যে নির্বাচন কমিশন যেসব পদক্ষেপ নিতে পারেন: # "ভোট দিন খাবার নিন" নামের মেগা প্রকল্প চালু করা। # ভোটের দিন ব্যালট বক্স গুলো কে মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয়ার জন্য হোম সার্ভিস প্রকল্প চালু করা। # তরুণ ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে আনার জন্য ইয়ুথ বাংলা কনসার্ট আয়োজন করা।
    Total Reply(0) Reply
  • Fakrul Islam ১৯ মার্চ, ২০১৯, ২:১২ এএম says : 0
    ব্যালট বাক্স নিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট নিয়ে আসা যায় না?তাতে যদি দয়া করে মানু্ষ কিছু ভোট দেয়!
    Total Reply(0) Reply
  • Sha Alam ১৯ মার্চ, ২০১৯, ৯:৩৫ এএম says : 0
    প্রতিটি ভোটারের জন্য লটারী কুপন এর ব্যবস্থা করা যেতে পারে। পুরস্কার থাক বা না থাক। পুরস্কার এর লোভে ভোটার আসতে পারে।
    Total Reply(0) Reply
  • Nurullah Shikder ১৯ মার্চ, ২০১৯, ৯:৫৮ এএম says : 0
    বাড়বে না যত উদ্যোগই নেন না কেন, যতদিন পর্যন্ত না বাংলাদেশের মানুষ তাদের গনতান্ত্রিক অধিকার ফেরত না পায়!!
    Total Reply(0) Reply
  • Engr. Md Adil Sarkar ১৯ মার্চ, ২০১৯, ১০:০১ এএম says : 0
    বিএন‌পি নাই ভোটার নাই , জনগন ভোট দি‌তে চায় বিএন‌পি কে । যত চেষ্টা ক‌রো কাজ হ‌বে না । কেউ যা‌ব্নো।
    Total Reply(0) Reply
  • Suhairel ১৯ মার্চ, ২০১৯, ১:৩১ পিএম says : 0
    বিএনপি যদি নির্বাচন না করে কোনোদিন ভোটারেরা ভোট দিতে যাবেনা|কারণ কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা নাই|
    Total Reply(0) Reply
  • Jannat ২০ মার্চ, ২০১৯, ১২:১২ এএম says : 0
    টাকা দিয়ে সরকার ভোটার কিনতে পারে, সরকার আরো বেশী জাল ভোটের ব্যবসথা করতে পারে,
    Total Reply(0) Reply
  • Abdul Gaffar azad ২১ মার্চ, ২০১৯, ৮:১০ পিএম says : 0
    দিন আনবে দিন খাবে, কে বা যাবে ভোট দিতে!??? কারনে ভোট দিতে গেলে মামলার আসামী হতে হয়......আর জেলে যেতে হয় তাহলে কি লাভ অযথা ঝামেলা করবার............. এর চেয়ে ভাল পরিবার নিয়ে দু’মোটো ভাত দিন পার করা।
    Total Reply(0) Reply
  • Emrankhan ২১ মার্চ, ২০১৯, ৪:২৯ পিএম says : 0
    ভোট দিলেই কি আর না দিলেই কি আমাদের ভোটের কোন দামনেই
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নির্বাচন


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ