Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২ বৈশাখ ১৪২৬, ১৮ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

আমেরিকা জাতিগতভাবে নয় জাতিগত মতাদর্শে বিভক্ত

দি নিউ ইয়র্ক টাইমস | প্রকাশের সময় : ২০ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

র‌্যালফ নর্থামের কালোমুখ ছবি নিয়ে হৈচৈ-এর মধ্যে তার গভর্নর থাকা উচিত কিনা ভার্জিনিয়াবাসীদের কাছে সে প্রশ্ন করে ওয়াশিংটন পোস্ট এক জনমত জরিপ চালায়। এ জরিপের ফলাফল উল্লেখ করার মত। শতকরা ৪৮ জন সাদা মনে করে যে, তার গভর্নর থাকা উচিত। আর কালোদের মধ্যে প্রায় শতকরা ৬০ জন মনে করে যে, তিনি তার পদে বহাল থাকতে পারেন।
আরেক জরিপে, যা আমার গবেষণার অংশ, আমি আমেরিকানদের জিজ্ঞেস করেছিলাম যে, ট্রাম্পের প্রাচীর বর্ণবিদ্বেষী কিনা। সাদা ডেমোক্র্যাটরা একচেটিয়াভাবে বলেছে হ্যাঁ। কোনো রিপাবলিকান তা মনে করে না আর সংখ্যালঘুরা মাঝামাঝি অবস্থান প্রকাশ করেছে।
অসংখ্য ইস্যুতে আমরা এ পদ্ধতি দেখি। সামগ্রিকভাবে এটা ট্রাম্প আমলের যুক্তরাষ্ট্র বিষয়ে কিছু প্রকাশ করেঃ দেশ জাতিগত বিরোধের দ্বারা বিভক্ত নয়, জাতিগত মতাদর্শের বিরোধে বিভক্ত। এটা গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য এবং আশাবাদের ভিত্তি।
বংশধারা ও শারীরিক উপস্থিতি দ্বারা সম্প্রদায়ের জাতি সম্পৃক্ততা নির্ণীত হয়। জাতিগত মতাদর্শ জাতির কাছে রাজনৈতিক মতে পরিণত হয়। নর্দামের কি পদত্যাগ করা উচিত বা প্রাচীর কি বর্ণবিদ্বেষী কিনার মত প্রশ্ন ভোটারদেরকে জাতির চেয়ে মতবাদ হিসেবে অনেক বেশি বিভক্ত করে। ‘সাদা’ শব্দটি কোনো ব্যক্তির জাতির পরিচয়, পক্ষান্তরে সাদারা সুবিধাপ্রাপ্ত বা বহুত্ব দেশকে শক্তিশালী করে কিনা সে বিষয়ক উপলব্ধি হচ্ছে ব্যক্তির জাতিগত মতাদর্শ।
সংখ্যালঘুরা নয়, উদার সাদারা এ বিষয়ে কথা বলছে।
২০১২ সাল থেকে উদার সাদারা জাতি সম্পর্কিত বিষয়ে প্রশ্ন তুলে চলেছে যার মধ্যে তারা ক্যাম্পাস ও অনলাইন-চালিত সাংস্কৃতিক সচেতনতা প্রতিফলিত করেছে। ট্রাম্পের ভূমিকার প্রেক্ষিতে এটা জোরদার হয়েছে। উত্তরদাতারা একটি গ্রুপ সম্পর্কে কীভাবে উপলব্ধি করে সে বিষয়ে আমেরিকান ন্যাশনাল ইলেকশন স্টাডির মাত্রা পরিমাপে দেখা যায়, উদার সাদারা তাদের নিজ জাতিগত গ্রুপের চেয়ে সংখ্যালঘুদের প্রতি আন্তরিক।
২০১৬ সালে কালো ও সাদারা কীভাবে তাদের নিজ জাতিগত গ্রুপ এবং তাদের কালো বা সাদা সমজাতীয় গ্রুপের অবস্থান নির্ণয় করে। এতে দেখা যায়, যেসব সাদারা বলে যে, কালোদের অগ্রসরতার প্রধান কারণ জাতিগত কুসংস্কার, ২০১৪ সালের পর তাদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। এই বিবরণের সাথে যারা একমত নন তাদের কথাঃ আইরিশ, ইতালিয়, ইহুদি ও আরো বহু সংখ্যালঘু তাদের কুসংস্কার ত্যাগ করেছে ও উন্নতি লাভ করেছে। কোনো বিশেষ অনুগ্রহ না নিয়ে কালোদেরও তা করা উচিত।
মোর ইন কমন সংস্থা আমেরিকার ভোটারদের তাদের দৃষ্টিভঙ্গির ভিত্তিতে বিভিন্ন গ্রুপে ভাগ করেছে। সংস্থার ‘হিডেন ট্রাইবস’ সমীক্ষা জাতিগত উদারতার শীর্ষ প্রবক্তাদের চিহ্নিত করতে সাহায্য করে। ৭টি প্রধান ভোট ব্লকের মধ্যে জাতিগত ভাবে সবচেয়ে উদার হচ্ছে প্রগতিশীল অ্যাক্টিভিস্টরা যারা জনসংখ্যার ৮ শতাংশ। এ গ্রুপটির সদস্যরা ৮০ শতাংশের বেশি সাদা , মাত্র ৩ শতাংশ আফ্রিকান-আমেরিকান। অনুরূপ ভাবে পিউ রিসার্চ সেন্টারের এক রিপোর্টে দেখা যায় যে ‘সলিড লিবারেলস’ গ্রপটির সদস্যদের সিংহভাগ সাদা। আর সংখ্যালঘু ডেমোক্র্যাটরা বেশি রক্ষণশীল।
এদিকে অভিবাসন বিষয়টি রক্ষণশীল এশিয়ান ও হিস্পানিকসহ সকলের কাছে প্রাধান্য লাভ করেছে। তবে মতাদর্শগত বিন্যাস জাতিগত বিভক্তির সব নয়। উদাহরণ স্বরূপ ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে অভিবাসনের প্রতি সমর্থন ব্যাপক ভাবে বেড়েছে, কিন্তু কালো ডেমোক্র্যাটদের সমর্থন বৃদ্ধির কথার চেয়ে সাদা ডেমোক্র্যাটদের সমর্থন বৃদ্ধির কথা বেশি প্রচার করা হয়।
ট্রাম্পের ভোটদাতারা সংখ্যালঘুদের প্রতি তুলনামূলক ভাবে বেশি আন্তরিক। জাতির চেয়ে জাতিগত মতাদর্শ সাদা ডেমোক্র্যাটদের সাথে তাদের পার্থক্যের কারণ। সাদা রিপাবলিকানরা ইতিবাচক পদক্ষেপ প্রত্যাখ্যান করে , সাদা শ্রেষ্ঠত্বের মনোভাব বজায় রাখে ও সংখ্যালঘুদের পিছনে রাখতে তাদের জাতিগত বৈষম্যের ধারণা অব্যাহত থাকে।
সার্বিকভাবে দেখা যায় যে আমেরিকা জাতিগতভাবে বিভক্ত নয়, জাতিগত মতাদর্শে বিভক্ত। এটা দেশের ঐক্যের জন্য ভালো , কারণ তা শত্রুর বিরুদ্ধে গোটা সম্প্রদায়কে ঐক্যবদ্ধ করে। জাতিগত বিভক্তি দুর্ভাগ্যজনক, আর জাতিগত বিরোধের তুলনায় কম মেরুকরণপ্রবণ। প্রতিটি জাতিগত মতাদর্শেই জাতির মিশ্রণ দেখা যায়। এটা জাতি ও ধর্মকে একই লক্ষ্যে অগ্রসর হতে বাধা দেয় যা গৃহযুদ্ধের দিকে ঠেলে দেয়। াএটা এ আশা সৃষ্টি করে যে আমেরিকার রাজনৈতিক এলিটরা একদিন জাতির বিভক্তি উপশম করতে পারবে।
*নিবন্ধকার এরিক কফম্যান লন্ডন বিশ^বিদ্যালয়ে রাজনীতির অধ্যাপক ও ‘হোয়াইটশিফট ঃ পপুলিজম, ইমিগ্রেশন অ্যান্ড দি ফিউচার অব হোয়াইট মেজরিটিজ’ গ্রন্থের লেখক।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আমেরিকা


আরও
আরও পড়ুন