Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ৭ বৈশাখ ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

শুক্রবার সম্প্রচারিত হবে জুমার আজান

ক্রাইস্টচার্চে নিহতদের দাফন শুরু

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের পৃথক মসজিদে নৃশংসতম হত্যাযজ্ঞের এক সপ্তাহ পূরণ হবে আগামী শুক্রবার। ভয়াবহ এ সন্ত্রাসী হামলায় নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর অংশ হিসেবে এ দিন দেশটির সরকারি বেতার ও টেলিভিশনে জুমার নামাজের আজান সরাসরি সম্প্রচারের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এদিকে, গতকাল বুধবার সিরীয় শরণার্থী খালেদ মুস্তাফা এবং তার ছেলে হামজাকে দাফনের মাধ্যমে ক্রাইস্টচার্চ হামলায় নিহতদের দাফন প্রক্রিয়া শুরু হয়। ভয়াবহ এ হামলায় নিহত অর্ধশতাধিক মুসল্লির দাফন প্রক্রিয়া শুরু হতে পাঁচদিন সময় লেগে গেল। খবর রয়টার্স।
নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন জানিয়েছেন, জুমার নামাজের আজান সরাসরি সম্প্রচারের পাশাপাশি শুক্রবার নিহতদের স্মরণে দুই মিনিটের নীরবতাও পালন করা হবে। গতকাল বুধবার ক্রাইস্টচার্চের একটি স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে এমন ঘোষণা দেন তিনি। আল নূর মসজিদে হামলার পর সেখানে সবার আগে পৌঁছানো পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে এ দিন প্রথমবারের মতো সাক্ষাৎ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে পৌঁছে হতাহতদের উদ্ধার ও দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করায় তিনি পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রতি ধন্যবাদও জানিয়েছেন।
দেশটির ইংরেজি দৈনিক নিউজিল্যান্ড হেরাল্ডে প্রকাশিত সংবাদে বলা হয়, স্বাভাবিকভাবে যেকোনো প্রাণঘাতী নৃশংসতার পর দেশে এক মিনিটের নীরবতা পালনের রেওয়াজ থাকলেও এবার ক্রাইস্টচার্চ হামলার ভয়াবহতার কারণে দুই মিনিটের নীরবতা পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এর আগে ২০১০ সালে পাইক রিভার বিস্ফোরণে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের অংশ হিসেবে সর্বশেষ দুই মিনিট নীরবতা পালন করেছিল নিউজিল্যান্ড।
ক্রাইস্টচার্চ পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মসজিদে হামলায় নিহতদের বেশিরভাগের পরিচয় শনাক্তের কাজ এখন বেশ কঠিন হয়ে পড়েছে। তবে এখন পর্যন্ত মোট ২১ জনের মরদেহ শনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে দেশটির ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা। যেখানে চিহ্নিত বারোটি মরদেহের মধ্যে ছয়টি ইতোমধ্যে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আর বাকিগুলোকেও অতি অল্প সময়ের মধ্যে হস্তান্তর করা হবে।
এদিকে, বুধবার দাফন প্রক্রিয়ার শুরুতে নিহতদের পরিবারকে যাবতীয় সহায়তা প্রদানে ইতোমধ্যে ক্রাইস্টচার্চে পৌঁছেছেন বেশ কয়েকটি স্বেচ্ছাসেবী দলের সদস্যরা। তবে এই দাফন প্রক্রিয়ার সংবাদ সংগ্রহে গণমাধ্যমকে কঠোর নির্দেশিকাও প্রদান করেছে ক্রাইস্টচার্চ কর্তৃপক্ষ। তারা নিহতদের পরিবারের সদস্যদের একেবারে নিজেদের মতো থাকতে দিতে এবং তাদের যেন বার বার এ বিষয়ে প্রশ্ন করে অস্বস্তিতে ফেলা না হয় সে জন্য বিশেষ অনুরোধ জানানো হয়েছে। এ দিন হামলার শিকার স্থানীয় আল নূর মসজিদের কাছেই জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে শত শত মুসল্লি অংশ নিয়েছেন। জানাজার নামাজে নিহত খালেদ মুস্তাফা এবং তার ১৫ বছর বয়সী ছেলে হামজার রুহের মাগফিরাত কামনা করা হয়।
উল্লেখ্য, উগ্র-ডানপন্থী ব্রেন্টন ট্যারান্ট নামে অস্ট্রেলিয়ার এক নাগরিক মুসল্লিদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালিয়ে ৫০ মুসল্লিকে হত্যা করে। গত শুক্রবারের সেই হামলায় বাংলাদেশ, ভারত, তুরস্ক, কুয়েত, সোমালিয়া এবং অন্যান্য দেশের নাগরিকরা নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন কমপক্ষে ৪৯ জন। যাদের মধ্যে ১২ জনের অবস্থা বেশ আশঙ্কাজনক।



 

Show all comments
  • mizan ২১ মার্চ, ২০১৯, ৩:৩৯ এএম says : 0
    হে আল্লাহ্ নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী কে হেদায়েত দিয়ে দেন।
    Total Reply(0) Reply
  • Shofiq Sadi ২১ মার্চ, ২০১৯, ৩:৩৯ এএম says : 0
    ইসলাম শান্তির ধর্ম।সে অনুযায়ী সবচে শান্তি ও নিরাপত্তার দেশ হওয়ার কথা ছিল কোন মুসলিম কান্ট্রি।অথচ বিশ্বে সবচে শান্তির দেশ ভাবা হয় নিউজিল্যান্ডকে।যার প্রমান তারা দিয়ে যাচ্ছে।কেনই বা এমনটি হবে না! আমরা যে আমাধের ধর্ম থেকে অনেক দূরে সরে গেছি
    Total Reply(0) Reply
  • Samim Hasan ২১ মার্চ, ২০১৯, ৩:৩৯ এএম says : 0
    মাশাআল্লাহ। এই উচিলায় আল্লাহ নিউজিল্যান্ডবাসীকে ইসলামের জন্য কবুল করে নাও। আমীন
    Total Reply(0) Reply
  • Arif Rubel ২১ মার্চ, ২০১৯, ৩:৪০ এএম says : 0
    নিউজিল্যান্ডের সকল নাগরিকদের প্রতি সম্মান, শ্রদ্ধা বেড়ে গেলো। কেমন মানবিক প্রধানমন্ত্রী তারা নির্বাচিত করেছে। আপনাদের রুচির সাক্ষর রাখছেন আপনাদের নেতা। ভালোবাসা রইলো সকল নিউজিল্যান্ড বাসীর জন্য।
    Total Reply(0) Reply
  • MD Rezaul Karim ২১ মার্চ, ২০১৯, ৩:৪০ এএম says : 0
    Salute prime minister of New Zealand
    Total Reply(0) Reply
  • DR.SERAJ ২১ মার্চ, ২০১৯, ৭:৪৮ এএম says : 0
    হে আল্লাহ্ নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী কে হেদায়েত দিয়ে দেন।
    Total Reply(1) Reply
    • zahurul alam ২১ মার্চ, ২০১৯, ৯:১১ এএম says : 0
      The prime minister of New Zealand is one of the great leader of the world , because she handle the situation with very carefully and take a good decision about incident .
  • MD.lmam uddin ahmad yshal ২১ মার্চ, ২০১৯, ১০:১৩ পিএম says : 0
    thank you newjilrnd ministar
    Total Reply(0) Reply
  • How is bangladeshi prime minster ১ এপ্রিল, ২০১৯, ৫:০৮ পিএম says : 0
    You do yourself
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নিউজিল্যান্ড


আরও
আরও পড়ুন