Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৮ আশ্বিন ১৪২৬, ২৩ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

বিশ্ব নেতৃত্বের আদর্শ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

জেসিন্ডা আরডার্ন। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী থেকে তিনি এখন পরিণত হয়েছেন বিশ্বকে শান্তির পথে নেতৃত্ব দেয়ার দূত হিসেবে। গত শুক্রবার ক্রাইষ্টচার্চের দুটি মসজিদে সংগঠিত সংগঠিত হামলার পরে তার বিভিন্ন পদক্ষেপ প্রশংসিত হয়েছে সারা বিশ্বে। দেশটির পার্লামেন্ট পবিত্র কুরআন তেলওয়াত ও নামাজ পড়ার ব্যবস্থা করানোর পরে তিনি আজ শুক্রবার সরকারি রেডিও ও টেলিভিশনে জুমা’র আজান সরাসরি সম্প্রচারের ব্যবস্থা করেছেন।
১৯৮০ সালে জন্ম নেয়া আরডার্নের বেড়ে ওঠা মুরুপাড়া নামে নিউজিল্যান্ডের মাউরি আদিবাসী অধ্যুষিত একটি ছোট শহরে। যেখানে শিশুদের পায়ে দেয়ার মতো জুতা ছিল না, এমনকি দুপুরে তারা খাবারও পেত না। এই ঘটনাই তাকে রাজনীতিতে উদ্বুদ্ধ করে। উচ্চ মাধ্যমিক শেষে আরডার্ন পড়াশোনা করেন যোগাযোগ বিদ্যায়। তার আগে ১৭ বছর বয়সেই যুক্ত হন নিউজিল্যান্ডের লেবার পার্টির রাজনীতিতে। স্নাতক শেষ করে আরডার্ন নিউজিল্যান্ডের লেবার পার্টির একজন সংসদ সদস্যের অধীনে গবেষক হিসেবে কাজ করেন। ২০০৮ সালে আরডার্ন লেবার পার্টির সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েও ১৩,০০০ ভোটে হেরে যান। কিন্তু দেশটির সংবিধানিক নিয়মে তিনি সংসদে যাওয়ার সুযোগ পান। ২৮ বছর বয়সে সর্বকনিষ্ঠ রাজনীতিবিদ হিসেবে জায়গা করে নেন হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভে। ২০১৭ সালে লেবার পার্টির উপ প্রধান নির্বাচিত হন আরডার্ন। নির্বাচনের দু’মাস আগে দলটির প্রধান পদত্যাগ করলে সেই ভারও চাপে তার কাঁধে। নির্বাচনি প্রচারে তরুণদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয় হন আরডার্ন। তাকে নিয়ে এসময় দেশটিতে জনপ্রিয়তার যে ঢেউ উঠে, তা পরিচিত ‘জেসিডামেনিয়া’ নামে।
মাত্র দু’মাসের নেতৃত্বে অনেকটা অপ্রত্যাশিতভাই দলকে নির্বাচনে বিজয়ী করেন আরডার্ন। ২০১৭ সালে ৩৮ বছর বয়সে বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ নারী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেন। নিউজিল্যান্ডের ১৫০ বছরের ইতিহাসেও তিনি সবচেয়ে কম বয়সি সরকার প্রধান। ২০১৮ সালে ‘ফোর্বসের পাওয়ার উইমেনের’ তালিকায় জায়গা করে নেন তিনি। আছেন টাইম ম্যাগাজিনে সবচেয়ে প্রভাবশালী ১০০ ব্যক্তির তালিকাতেও। টিভি উপস্থাপক ক্লার্ক গেফোর্ডকে বেছে নিয়েছেন তিনি সঙ্গী হিসেবে। ২০১৮ সালের ২২ জুন বেনজির ভুট্টোর পর বিশ্বের দ্বিতীয় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বকালে সন্তানের জন্ম দেন আরডার্ন। বিশ্বে প্রথমবার কোনো প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনের কক্ষে সন্তান নিয়ে বক্তৃতা দিতে যান।
ক্রাইস্টচার্চে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে ৫০ জনকে হত্যার পর জেসিন্ডা আরডার্নকে নতুন করে চেনে বিশ্ব। এই ঘটনার অভিযুক্তকে কোনো কার্পণ্য না করেই সন্ত্রাসী ও জঙ্গি হিসেবে অভিহিত করেন তিনি। দ্রæত অস্ত্র আইন পরিবর্তনের ঘোষণা দেন। মুসলমানদের উদ্দেশ্যে জানান, নিউজিল্যান্ড মোটেও এমনটা নয়। এই দেশে তারা স্বাধীনভাবেই থাকতে পারবে। জেসিন্ডা আরডার্ন ক্রাইস্টচার্চের ঘটনার পর প্রতিদিনই ছুটে যাচ্ছেন নিহতদের স্বজনদের কাছে। তাদের জড়িয়ে ধরছেন, সমব্যাথী হচ্ছেন। শুধু তাই নয়, মুসলমানদের সাথে একত্মতার প্রকাশ হিসেবে তিনি একাধিক দিন হিজাব পরে বেরিয়েছেন। ১৯ মার্চ সংসদে বক্তব্য দেন আরডার্ন। শুরুতেই সবাইকে ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলে সম্বোন্ধন করেন তিনি। জানান ক্রাইস্টচার্চের ঘটনায় অভিযুক্তের নামও তিনি কখনও মুখে আনবেন না। সূত্র: ডয়েচ ভেলে।



 

Show all comments
  • Ashok Das ২২ মার্চ, ২০১৯, ২:২৫ এএম says : 0
    আপনার কাছ থেকে বিশ্ব নেতা ও ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকল জাতী অনেক অনেক কিছু শিখতে পারবে । আপনাকে বলা যায় মানবতার মানব নেত্রী । আমার মনে হয় আপনার কাছে প্রতিটি ধর্ম সুরক্ষিত। আপনি একমাত্র দৃষ্টান্ত স্থাপনকারী নেত্রী।
    Total Reply(0) Reply
  • Rafiqul Alam ২২ মার্চ, ২০১৯, ২:২৬ এএম says : 0
    বিনাযুদ্ধে জয় যাকে বলে। তিনি বিশ্ব জয় করলেন। বিশ্ব নেতাদের তাঁর থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা উচিত্।
    Total Reply(0) Reply
  • Jashim Chowdhury ২২ মার্চ, ২০১৯, ২:২৬ এএম says : 0
    নোবেলে শান্তি পুরস্কার জাসিন্ডা আরডের্ন কে দেওয়া উচিত বলে মনে করি। সে বিশ্বকে দেখিয়ে দিচ্ছে, মানবতার চেয়ে কোন ধর্ম বড় নয়। সে আরো দেখিয়ে দিচ্ছে, এতো বড় বিপর্যয়েও কিভাবে সবাইকে আপন করে নিতে হয়। তাকে শ্রদ্ধা না করলে নিজের কাছে নিজেকে খুব ছোট মনে হয়।
    Total Reply(0) Reply
  • M. A. Hasan ২২ মার্চ, ২০১৯, ২:২৭ এএম says : 0
    ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা কিউই প্রধানমন্ত্রিকে। যেভাবে মুসলমানদের সাপোর্ট করেছেন। মুসলমানরা আপনার কাছে কৃতজ্ঞ।
    Total Reply(0) Reply
  • Saiful Islam ২২ মার্চ, ২০১৯, ২:২৮ এএম says : 0
    বিশ্ব নেতাদের মানসিকতা এমনি হওয়া উচিত ! আবার দেখুন আমেরিকা ভারত ইসরাইলের রাষ্ট্র প্রধানদের কথাবার্তা জঙ্গিদের চেয়ে ভয়ংকর !
    Total Reply(0) Reply
  • শেখ মারুফ ২২ মার্চ, ২০১৯, ২:২৮ এএম says : 0
    নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রমান করলেন আসলে তিনি একজন ভালো মনের মানুষ। ধর্ম বর্ণের ঊর্ধ্বে উঠে উনি যে মানবতা রচনা করেছেন তার জন্য কৃতজ্ঞতা জানাই।।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ