Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৯, ০৮ কার্তিক ১৪২৬, ২৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

শ্রমিকদের মহাসড়ক অবরোধ আহত অর্ধশত

সোনারগাঁও (নারায়ণগঞ্জ) জেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২৩ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার টিপুরদী এলাকায় অবস্থিত চৈতি গার্মেন্টসে রিনা আক্তার (২৮) নামে এক শ্রমিক নিহত হওয়ার খবরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে গাড়ী ভাঙচুর করেছে শ্রমিকরা। এসময় শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে পুলিশসহ কমপক্ষে ১২ জন আহত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।
চৈতি গার্মেন্টসে কর্মরত সুইং অপারেটর রুমা আক্তার ও লাইন ম্যান পংকজ জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে কারখানার মূল ভবনের তিন তলায় ১২ নং লাইনে সুইং অপারেটর হিসেবে কাজ করছিলেন রিনা আক্তার নামে এক শ্রমিক। তাকে ওই লাইনের ইনচার্জ জামালসহ কয়েক জন নির্যাতন করে হাত পা বেঁধে বাথরুমে ফেলে রাখে। পরে অন্য শ্রমিক বাথরুমে গেলে বিষয়টি দেখে নাজমা আক্তারসহ দুজন শ্রমিক জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এদিকে ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর কারখানার কর্তৃপক্ষ দুপুর ১টায় কারখানা বিরতি দেওয়ার কথা থাকলে নির্ধারিত সময়ের ৩০ মিনিট আগেই বিরতি দিয়ে দেন। পরে কারখানা কর্তৃপক্ষ দ্রুত রিনা আক্তারকে কারখানা থেকে বের করে নেয় এবং আহত দুই শ্রমিককে বের করার সময় শ্রমিকরা গাড়ী ভাঙচুর করে আহত শ্রমিকদের উদ্ধার করে এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। ফলে মহাসড়কের ৯ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এক ঘন্টা যানজটের সৃষ্টি হয়।
খবর পেয়ে সোনারগাঁও থানা পুলিশ, কাচঁপুর হাইওয়ে পুলিশ, কাচঁপুর শিল্প পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে শ্রমিকদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে দেওয়া চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ রাস্তা থেকে শ্রমিকদের ছত্রভঙ্গ করতে ৪১ রাউন্ড রাবার বুলেট ১০ রাউন্ড টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষে পুলিশ, সাংবাদিক ও শ্রমিকসহ কমপক্ষে অর্ধশত আহত হয়। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
কারখানার উপ মহা ব্যবস্থাপক বদরুল আলম জানান, কারখানায় একজন শ্রমিক অসুস্থ হয়ে পড়েছে। গুজবে শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ করে ভাঙচুর চালিয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কারখানা ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।
নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ) অঞ্চল খোরশেদ আলম জানান, কারখানায় শ্রমিক নিহত হওয়ার খবরে শ্রমিকরা মহাসড়ক অবরোধ করেছে। শ্রমিকদের লাঠিচার্জ করে মহাসড়ক থেকে সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন