Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০১৯, ৮ বৈশাখ ১৪২৬, ১৪ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

টানা তিনে আশরাফুলের পাশে বিজয়

আবাহনীকে মাটিতে নামাল প্রাইম ব্যাংক # শেষবল রোমাঞ্চ হারল মোহামেডান

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

গত আসরের শেষ দিকে কীর্তিটা গড়েছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে করেছিলেন টানা তিন ম্যাচে সেঞ্চুরি। প্রাথমিক পর্বের শেষ রাউন্ডে মোহামেডানের বিপক্ষে ১২৭ রান করেন কলাবাগান ক্রীড়া চক্রের আশরাফুল। রেলিগেশন লিগের দুই ম্যাচে করেন দুই সেঞ্চুরি। অগ্রণী ব্যাংকের বিপক্ষে অপরাজিত ১০৩ ও ব্রাদার্স ইউনিয়নের বিপক্ষে ১৩৭ রান করে গড়েন দারুণ এক কীর্তি। এবার আবাহনীর বিপক্ষে সেঞ্চুরি করে তার পাশে বসলেন এনামুল হক বিজয়।

গতকাল ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে নিজের সাবেক দল আবাহনীর বিপক্ষে ৬১ বলে পাঁচ চার ও এক ছক্কায় পঞ্চাশ স্পর্শ করেন এনামুল। সেখান থেকে একশ ছুঁতে এক-দুইয়ের ওপর অনেক বেশি নির্ভর করেন তিনি। ৯৪ থেকে সেঞ্চুরি করতে হাঁকানো ছক্কাটিই পরের পঞ্চাশে তার একমাত্র বাউন্ডারি। তিন অঙ্ক ছোঁয়ার পর বেশিক্ষণ টিকেননি এনামুল। ১২৮ বলে পাঁচ চার ও দুই ছক্কায় ১০২ রান করে এই কিপার-ব্যাটসম্যান এলবিডবিøউ হন বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপুর বলে।

এবারের আসরে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবের প্রথম দুই ম্যাচে ভালো শুরুটা বড় করতে পারেননি অধিনায়ক এনামুল। ফিরে যান থিতু হয়ে। ১৪ মার্চ তৃতীয় ম্যাচে বিকেএসপিতে লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জের বিপক্ষে করেন অপরাজিত ১০০ রান। পাঁচ দিন পর একই মাঠে শেখ জামাল ধানমÐি ক্লাবের বিপক্ষে খেলেন ১০১ রানের আরেকটি ইনিংস। ব্যাটিং স্বর্গে দুটি সেঞ্চুরি করে আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে থাকা এনামুল গতকাল ১২৫ বলে সেঞ্চুরি স্পর্শ করেন সানজামুল ইসলামকে ছক্কায় উড়িয়ে।

এমন একটি ম্যাচ কি করে হেরে যায় প্রাইম ব্যাংক! জাতীয় দলের এক ঝাঁক তারকা খেলোয়াড়দের নিয়ে বেশ শক্তিশালী দল গড়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন আবাহনী লিমিটেড। মাঠে খেলছিলও দারুণ। প্রথম চার ম্যাচেই জয় তুলে নেয় দলটি। তবে পঞ্চম ম্যাচে এসে তাদের হারের স্বাদ দিয়েছে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব। বিজয়ের সেঞ্চুরি, আরিফুল হকের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে এদিন ১৬ রানে হেরেছে চ্যাম্পিয়নরা। প্রাইম ব্যাংকের দেওয়া ৩০৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি আবাহনী। ২ উইকেটে ১৯৫ রান তুলে নেওয়া দলটি তখন জয়ই দেখছিল। কিন্তু বাকিদের ব্যর্থতায় ৭ বল বাকী থাকতেই ১৬ রান দূরে থামে দলটি।

এছাড়া বারবার রঙ পাল্টানো ম্যাচে ব্যবধান গড়ে দিলেন আরেক এনামুল হক। শেষ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে অভিজ্ঞ এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের বিপক্ষে শেখ জামাল ধানমÐি ক্লাবকে এনে দিলেন নাটকীয় জয়। বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ২৪১ রানের লক্ষ্য দেয় মোহামেডান। দুই উইকেট আগেই শেষ বলে লক্ষ্য ছাড়িয়ে যায় নুরুল হাসান সোহানের দল।
এদিকে গাজী গ্রæপ ক্রিকেটার্সকে উড়িয়ে দিয়ে জয়ে ফিরেছ লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জও। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে পঞ্চম রাউন্ডের ম্যাচে ৮ উইকেটে জিতেছে নাঈম ইসলামের দল। টস হেরে ব্যাট করে দেয়া ২৫১ রানের লক্ষ্য ২৭ বল বাকি থাকতে পেরিয়ে যায় তারা। দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যাওয়ার পথে ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলেন ওপেনার মারুফ। ক্যারিয়ারের প্রথম সেঞ্চুরি তুলে নেন কিপার-ব্যাটসম্যান জাকের।

প্রাইম ব্যাংক-আবাহনী, ফতুল্লা
প্রাইম ব্যাংক : ৫০ ওভারে ৩০২/৫ (বিজয় ১০২, জাকির ১৮, ইয়াসবারান ৮৫, আল-আমিন ১৯, আরিফুল ৫১*, মিলন ২, কাপালী ১৫*; মাশরাফি ০/৫৬, রুবেল ১/৫৬, মোসাদ্দেক ১/৯, অপু ১/৫০, সৌম্য ১/৪১, সানজামুল ১/৫৮)। আবাহনী : ৪৮.৫ ওভারে ২৮৬ (সৌম্য ৩৬, জাফর ৯৪, শান্ত ৭৩, মোসাদ্দেক ৫২, সাব্বির ১০;, মোহর ১/২৩, নাহিদুল ৩/৫৬, রাজ্জাক ৩/৫৭, আল-আমিন ৩/৪৫)।
ফল : প্রাইম ব্যাংক ১৬ রানে জয়ী।
ম্যান অব দ্য মাচ : এনামুল হক বিজয় (প্রাইম ব্যাংক)।
গাজী গ্রæপ-রূপগঞ্জ, মিরপুর
গাজী গ্রæপ : ৫০ ওভারে ২৫০/৯ (ইমরুল ৪৮, তাসামুল ১৭, রনি ২৯, শামসুর ১, রসুল ৮৬, মাইশুকুর ৩১, তারেক ১৯, আবু হায়দার ৪, মেহেদি ৬, রাব্বি ১*; শহীদ ১/৫০, ধাওয়ান ১/৩৯, মুক্তার ২/৫৪, নাঈম ১/৩৪, মিজানুর ১/৪০, আসিফ ০/৩০)। রূপগঞ্জ : ৪৫.৩ ওভারে ২৫৩/২ (মারুফ ১৩৭*, মুমিনুল ২, জাকের ১০৭*; রুহেল ১/৪৬, মেহেদি ০/৪২, আবু হায়দার ১/৪১)।
ফল : লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ ৮ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : মেহেদী মারুফ (রূপগঞ্জ)।
মোহামেডান-শেখ জামাল, সাভার
মোহামেডান : ৪৯.১ ওভারে ২৪০ (শুক্কুর ১৭, মজিদ ৫২, তুষার ০, রকিবুল ১৪, আশরাফুল ৪৪, ডি সিলভা ৪৯, সোহাগ ৩২, শফিউল ১০, নিহাদ ১১*; নাসির ১/৩২, তাইজুল ১/৫২, গুনারতেœ ২/৫২, তানবীর ১/২১, শাকিল ৩/৪১, এনামুল ১/১৪)। শেখ জামাল : ৫০ ওভারে ২৪২/৮ (ইমতিয়াজ ৭৪, হাসান ৫, তানবীর ৩৯, নাসির ২৫, গুনারতেœ ২০, সোহান ৩২, এনামুল ২৮*; ডি সিলভা ২/৩৬, সোহাগ ৩/৪৩, নিহাদ ১/৪৯, আশরাফুল ১/৩২)।
ফল : শেখ জামাল ২ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : ইমতিয়াজ হোসেন (শেখ জামাল)



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বিজয়

১৯ জানুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ