Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৫ আশ্বিন ১৪২৬, ২০ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

সংযোগ খাল খনন প্রসঙ্গে

চিঠিপত্র

| প্রকাশের সময় : ২৪ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৯ এএম

কুমিল্লা জেলার নাঙ্গলকোট উপজেলাধীন মৌকরা ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে তলিয়ে যায়। পানি নিষ্কাষনের তেমন কোনো ব্যবস্থা না থাকায় এ জলাবদ্ধাতার সৃষ্টি হয়। এ সময় মৌকরা ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত মাঝিপাড়া গ্রামের উপর দিয়ে এক সময় বয়ে গিয়েছিল ডাকাতিয়া নদীর একটি সরু খাল। যা লাকসাম গিয়ে ডাকাতিয়া নদীর সাথে মিলিত হয়েছিল এবং এ মাঝিপাড়া গ্রামের উপর দিয়েই বড় বড় নৌকা বিভিন্ন রকমের মালামাল নিয়ে আসা যাওয়া করতো। রাতের বেলায় নৌকার মাঝিরা এ গ্রামেই নোঙ্গর করে রাত যাপন করতো বিধায় এ গ্রামের নাম হয়ে যায় মাঝিপাড়া। কালের বিবর্তনে আজ ওই খালটি বিলীন হয়ে গেছে। মৌকরা ইউনিয়নের দক্ষিণে সুরপুর পর্যন্ত এসে সরু খালটি বর্তমানে বন্ধ হয়ে যায় এবং মৌকরা ইউনিয়নের উত্তরে শামিরখিল গ্রামের ভিতর দিয়ে ডাকাতিয়া নদীর আরেকটি সরু খাল লাকসাম ডাকাতিয়া নদীর সাথে বর্তমানে প্রবাহিত আছে এ দুই সরু খালের মাঝখানে ৮/১০টি গ্রামে যেমন: তিলিপ, মাঝিপাড়া, বড়ফতেপুর, ছোট ফতেপুর, কালেম, কেশতলা, বেতাগাঁও, মৌকরা ও ময়ূরা গ্রামের আওতায় থাকা ৪০০/৫০০ একর ফসলী জমি প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে তলিয়ে যায়। এতে কৃষকরা ফসল নিয়ে সংকিত থাকে। এসব জমিনের ফসলগুলো রক্ষা করতে হলে উল্লেখিত দক্ষিণে সুরপুর, উত্তরে শামেরখিল মাঝখানে ২/৩ কিলোমিটার নতুন খাল খনন করে পুরনো খালের সাথে সংযোগ করে দিতে হবে। তাই উল্লেখিত সমস্যাটি খতিয়ে দেখে কৃষকদের ফসল রক্ষায় সুব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি।
দ্বীন মোহাম্মেদ
তিলিপ দরবার শরীফ, নাঙ্গলকোট, কুমিল্লা



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চিঠিপত্র


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ