Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০২ কার্তিক ১৪২৬, ১৮ সফর ১৪৪১ হিজরী

ইসলামভীতি ছড়ানোর বিরুদ্ধে সম্মিলিত পদক্ষেপের আহ্বান

ইস্তাম্বুলে ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৯ এএম

ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা বা ওআইসির পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের জরুরি সম্মেলন থেকে পশ্চিমা দেশগুলোর ইসলামভীতি ছড়ানোর বিরুদ্ধে সম্মিলিত পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। শুক্রবার তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরে ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ইসলামভীতি ছড়ানোর জন্য সম্মেলন থেকে পশ্চিমা দেশগুলোর নিন্দাও জানানো হয়েছে। সম্মেলনে গোটা বিশ্বে ক্রমবর্ধমান ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ঘোষণা দিলেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলায় ৫০ মুসল্লি নিহত হওয়ার প্রেক্ষিতে গত শুক্রবার তিনি এ ঘোষণা দেন বলে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। ইসলামী সম্মেলন সংস্থার (ওআইসি) এক জরুরি বৈঠকে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘হলোকাস্ট গহত্যার পর মানবতার জন্য ইহুদী বিদ্বেষীদের বিরুদ্ধে যেভাবে লড়াই করা হচ্ছে ঠিক তেমন করে বিশ্বে ক্রমবর্ধমান ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধেও আমাদের লড়াই করা উচিত।’ তুরস্কের ইস্তাম্বুলে ওআইসি’র সদস্যভূক্ত দেশগুলোর পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের বৈঠকে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান মসজিদে হামলার পর নিউজিল্যান্ড সরকার ও দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্নের ভূমিকার প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, ‘মুসলিমদের জন্য আরডার্ন যে সমানুভূতি ও সংহতি দেখিয়েছেন সেটা বিশ্ব নেতাদের জন্য উদাহরণ হওয়া উচিত।’ সম্মেলনে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ বলেন, পশ্চিমা সুনির্দিষ্ট কয়কটি দেশকে নিউজিল্যান্ড হত্যাকান্ডের জন্য অবশ্যই দায় নিতে হবে। নিউজিল্যান্ডের এ হত্যাকান্ডের মধ্যদিয়ে পরিষ্কার হয়েছে যে, পশ্চিমা বিশ্বে বিপজ্জনক একটি জোয়ার চলছে আর তা হচ্ছে ইসলামিভীতি ছড়ানো। তিনি বলেন, পশ্চিমা কোনো কোনো কর্মকর্তা ও প্রতিষ্ঠান নিরবতা পালন করে মুসলমানদের বিরুদ্ধে এ ধরনের ঘৃণ্য অপরাধমূলক তৎপরতা চালাতে সহায়তা দিচ্ছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্টের নাম উল্লেখ করে জাওয়াদ জারিফ বলেন, ডোনাল্ড ট্রাম্প মুসলমানদেরকে তার দেশে প্রবেশে বাধা দিচ্ছেন। আর ইসলামি প্রতীক ব্যবহারে বাধা দেয়ার জন্য তিনি ইউরোপকে দায়ী করেন। দুর্ভাগ্যজনকভাবে এসব ব্যক্তি বাকস্বাধীনতা ও মানবাধিকারের কথা বললেও প্রকৃতপক্ষে তারা মুসলমানদের বাকস্বাধীনতা দমন করছে এবং বাকস্বাধীনতার নামে মুসলমানদেরকে সব উপায়ে অপমান-অপদস্ত করার চেষ্টা করছে। এর অংশ হিসেবে বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় মুসলমানদের ওপর হামলা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন জারিফ। নিউজিল্যান্ডের দুটি মসজিদে মুসল্লিদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার পর ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসওগুর সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন এবং ওআইসি’র পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের জরুরি সম্মেলন অনুষ্ঠানের প্রস্তাব করেন। পার্সটুডে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইসলাম

১০ অক্টোবর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন