Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ০৮ ভাদ্র ১৪২৬, ২১ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

রাবি প্রেসক্লাব সভাপতিকে ফাঁসানোর অপচেষ্টা!

রাবি সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৪ মার্চ, ২০১৯, ১:৫২ পিএম

রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ে (রাবি) মুক্তিযুদ্ধের মত স্পর্শকাতর বিষয় ও আবেগকে অপব্যবহার করে বিশ^বিদ্যালয় প্রেসক্লাব সভাপতি মানিক রাইহান বাপ্পীকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হয়েছে। ঔদ্যত্বপূর্ণ আচরণ ও প্রেসক্লাবের সিনিয়র সদস্যকে হুমকি দেয়ায় ওমর ফারুক নামে এক ক্লাব সদস্যকে ক্লাব থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করা হলে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদেরকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করা হয়েছে এমন মিথ্যা অভিযোগ তুলে বিশ^বিদ্যালয় মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের ব্যানারে সংবাদ সম্মেলন করেন ওই শিক্ষার্থী। তবে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতির দাবি, ভুল বোঝাবুঝি থেকেই এই সংবাদ সম্মেলন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের উদ্ধর্তন নেতৃবৃন্দের নিকট নিজের অপরাধকে আড়াল রেখে প্রেসক্লাব সভাপতির বিরুদ্ধে মহান মুক্তিযুদ্ধকে নিয়ে বিভিন্ন আপত্তিকর মন্তব্যের অভিযোগ দেয় উমর ফারুক। এতে রাবি মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড কোন ধরণের তথ্য যাচাই ছাড়াই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। পরে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি তারিকুল হাসানের সঙ্গে এ বিষয়ে প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে কথা বলা হলে আনীত অভিযোগটির বিষয়ে তিনি তার ভূল বুঝতে পান। দু’দিন বিষয়টি পর্যালোচনা করে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডকে ব্যক্তিস্বার্থে ব্যবহার করা হয়েছে বলে প্রমাণিত হওয়ায় তিনি নিজ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতি দেন।
বিবৃতিতে উল্লেখ্য করা হয় ‘গত ১৬ মার্চ তারিখে প্রেসক্লাব সভাপতির বিরুদ্ধে ক্লাব সদস্য উমর ফারুককে বহিস্কারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করি। তবে ওই দিন বিকেলে ক্লাবের সভাপতি ও সিনিয়র কয়েকজন সদস্যের সাথে সাক্ষাতে জানতে পারি ভুল বোঝাবুঝি থেকেই এই সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে এবং এ ঘটনায় একে অপরের বিরুদ্ধে বিদ্বেষমূলক তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। এছাড়াও তিনি উল্লেখ করেন, রাবি প্রেসক্লাবের সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের কোন ধরণের দ্বন্দ্ব নেই। আমরা আশা করছি ভ্রাতৃত্বের মধ্য দিয়ে উভয়ের সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে।’
এর আগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ঔদ্যত্বপূর্ণ আচরণ ও প্রেসক্লাবের এক সিনিয়র সদস্যকে হুমকি দেওয়ার কার্যনির্বাহী কমিটির ১৩ সদস্যর মধ্যে ১১ সদস্য স্বাক্ষরিত আবেদন সভাপতি বরাবর আবেদন করা হয়। এরই প্রেক্ষিতে ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় অধিকাংশের মতামতের ভিত্তিতে তাকে স্থায়ী সদস্য পদ বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এর পর থেকেই প্রেসক্লাব ও বর্তমান সভাপতির বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক অভিযোগ দেওয়া শুরু করে ওই সদস্য।
এ বিষয়ে বিশ^বিদ্যালয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মানিক রাইহান বাপ্পী বলেন, বিভিন্ন সময়ে সতর্কতার পরেও উমর ক্লাবের শৃঙ্খলা বিরোধী কার্যক্রমে জড়ানোর ফলে তাকে কার্যনির্বাহী সদস্যদের দাবির প্রেক্ষিতে সদস্য পদ বাতিল করা হয়। কিন্তু এরপর থেকেই ওই শিক্ষার্থী আমার বিরুদ্ধে নানান অপপ্রচার শুরু করে। মহান মুক্তিযুদ্ধকে অপব্যবহার করে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে। তার এহেন কর্মকান্ডের মধ্যে দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদদের অপমানিত এবং মহান মুক্তিযোদ্ধের চেতনাকে ভুলণ্ঠিত করা হয়েছে। ওই সদস্য’র বিরুদ্ধে দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ি ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান তিনি।
রাবি মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড’র সভাপতি তারিকুল হাসান বলেন, ভুল বুঝাবোঝির কারণে বর্তমান সভাপতির বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছিলাম। একটি বিবৃতি দিয়েছি। বর্তমান সভাপতি এর সঙ্গে জড়িত নই বলে জানতে পেরেছি।
বিশ^বিদ্যালয় ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. লায়লা আরজুমান বানু বলেন, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সভাপতি সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তি পেয়েছি। সেখানে উভয়ের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি থেকে এমন সমস্য হয়েছিল বলে জানতে পেরেছি। আশা করি, দ্রুত বিষয়টি সমাধান হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রাবি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ