Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০১৯, ৮ বৈশাখ ১৪২৬, ১৪ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

অপেক্ষা মূল্যায়ন পদ্ধতির চূড়ান্ত হলেই তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা বাতিল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৫ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৭ এএম

প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় বৃত্তি পেয়েছে ৮২ হাজার ৫০০ শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ৩৩ হাজার ট্যালেন্টপুলে এবং ৪৯ হাজার ৫০০ জন সাধারণ বৃত্তি। গতকাল (রোববার) সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মো: জাকির হোসেন। তিনি বলেন, ঝরে পড়া রোধ, শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বৃদ্ধি ও সুষম মেধা বিকাশের লক্ষ্যে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে এই বৃত্তি দেয়া হয়। সকল শিক্ষার্থী এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারে। আগে কিছু মেধাবী শিক্ষার্থীর বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ ছিল। ফলে অনেকেই এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হতো। বর্তমানে সে সুযোগ বেড়েছে।
মন্ত্রী জানান, ট্যালেন্টপুলে বৃত্তিপ্রাপ্তদের মাসে ৩০০ টাকা এবং সাধারণ বৃত্তিপ্রাপ্তদের মাসে ২২৫ টাকা করে দেয়া হবে। ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত তিন বছর বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা বৃত্তির টাকা পাবে। আগে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দেয়ার জন্য আলাদা পরীক্ষা নেওয়া হতো। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা সচিব আকরাম-আল-হোসেন জানান, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কিভাবে মূল্যায়ন করা হবে তা চ‚ড়ান্ত হলেই এই তিন শ্রেণির পরীক্ষা তুলে দেয়া হবে। তিনি বলেন, তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা রাখব না, প্রধানমন্ত্রীও মৌখিকভাবে বলেছেন। তবে মাঠপর্যায়ে এখনও কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়নি। পরীক্ষা তুলে দেয়ার পর প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কোন পদ্ধতিতে মূল্যায়ন করা হবে তা ঠিক করতে এনসিটিবিকে সুপারিশপত্র তৈরি করতে বলা হয়েছে। এনসিটিবির সুপারিশপত্রের আলোকে শিক্ষক, কর্মকর্তা, শিক্ষাবিদ ও অভিভাবকদের একটি কর্মশালা করে অ্যাসেসমেন্ট পদ্ধতি ঠিক করা হবে। অ্যাসেসমেন্ট পদ্ধতি নির্ধারণ করা গেলে কবে থেকে পরীক্ষা হবে না সে বিষয়ে মাঠপর্যায়ে যারা আছেন তাদের নির্দেশনা দেয়া হবে। শিক্ষার্থীদের এক শ্রেণি থেকে আরেক শ্রেণিতে উন্নীত করা হবে কি হবে না তা মূল্যায়ন পদ্ধতির আলোকে নির্ধারণ করা হবে বলেও জানান গণশিক্ষা সচিব। তিনি বলেন, তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা তুলে দিলেও চতুর্থ শ্রেণির চূড়ান্ত পরীক্ষা এবং প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা চলবে। গত বছরের প্রাথমিক সমাপনীতে ৯৭ দশমিক ৫৯ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছে, এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে তিন লাখ ৬৮ হাজার ১৯৩ জন। বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের তালিকা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট ww.dpe.gov.bd পাওয়া যাবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পরীক্ষা

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ