Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬, ১৭ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

নৌকার প্রার্থীসহ আহত ২০ আটক ৭

মঠবাড়িয়ায় নির্বাচনী সহিংসতা

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২৬ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে গুলিশাখালী বাজারে সহিংসতায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হোসাইন মোশাররফ সাকু ও হলতা গুলিশাখালী ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল আলম ঝনোসহ ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে শনিবার রাতে মোশাররফ সাকু, রিয়াজুল আলম ঝনো, বাবুল ও মোতালেব তারুকদারকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় গতকাল রোববার নৌকা মার্কার প্রার্থী ও বিদ্রোহী প্রার্থীর পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
দুপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র মো. রফিউদ্দিন আহমেদ ফেরদৌস সংবাদ সম্মেলন করেন। এ সময় তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন, শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার গুলিসাখালীতে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হোসাইন মোশারেফ সাকুর (নৌকা) পক্ষে পথসভা শেষে বাজারে দলীয় কার্যালয়ে নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলছিলেন স্থানীয় চেয়ারম্যান ঝনো। এ সময় স¦তন্ত্র প্রার্থী মো. রিয়াজ উদ্দিন ও পদত্যাগী সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আশরাফুর রহমানের নেতৃত্বে ৫০/৮০ জনের একটি দুর্বৃত্তের দল স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রিয়াজুল আলম ঝনো সহ বেশ কয়েক জনের ওপর হামলা চালায়। এ খবর শুনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হোসাইন মোশারেফ সাকু ঘটনাস্থলে ছুটে আসলে তাকে ও তার সাথে থাকা ২০ জন নেতা কর্মীকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম করা হয়।
তিনি আরও বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থীর গণ জোয়ার দেখে পদত্যাগী উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমান ও তার বড় ভাই উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য বিদ্রোহী প্রার্থী মো. রিয়াজ উদ্দিন সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে এ হামলা চালায়। এ হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও বিচারের দাবি জানাচ্ছি।
অপর দিকে গতকাল বিকেলে বিদ্রোহী প্রার্থী মো. রিয়াজ উদ্দিনের পৌর শহরের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তার উপরে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, শনিবার রাত ১০টার দিকে রিয়াজুল আলমের নেতৃত্বে গুলিসাখালী বাজারে অবস্থিত আমার নির্বাচনী কার্যালয় ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কার্যালয় ভাঙচুর করে এবং হলতা গুলিসাখালী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আলাউদ্দিনকে মারধর করার অভিযোগ করেন।
মঠবাড়িয়া থানার ওসি এম আর শওকত আনোয়ার বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। উপজেলার সব স্থানে পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে। এ ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে ও হামলার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৭ জনকে আটক করা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নির্বাচনী সহিংসতা


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ