Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০১৯, ৮ বৈশাখ ১৪২৬, ১৪ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

সহস্রাধিক মায়া হরিণ যাবে কোথায়?

মীরসরাই (চট্টগ্রাম) থেকে ইমাম হোসেন | প্রকাশের সময় : ২৬ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

মীরসরাইয়ের উপকূলীয় বনাঞ্চলে একটি চিত্রা হরিণের উপর অজ্ঞাত কারো দ্বারা হামলা হয়। হরিনটিকে স্থানীয় বন বিভাগ গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা সদরস্থ পশু হাসপাতালে নিয়ে এলে চিকিৎসাধিন অবস্থায় হরিণটি মারা যায়। এদিকে জানা গেছে এই উপকূলীয় বনে সহস্রাধিক মায়া হরিণ রয়েছে। কিন্তু হরিণগুলো স্থানান্তর বা সংরক্ষের বিকল্প ব্যবস্থা ছাড়াই অর্থনৈতিক জোনের উন্নয়ন কাজে টেন্ডারের মাধ্যমে বনের সকল গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে।
উদ্ধারকারী বনকর্মী ও স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা গেছে রোববার মীরসরাই উপজেলার উপকূলে অর্থনৈতিক জোন ‘বঙ্গবন্ধু শিল্প নগরী’ নিকটস্থ উপকূলীয় বনে জখম হওয়া একটি বড় চিত্রা হরিণ ইছাখালী ইউনিয়নের জিরো পয়েন্ট এলাকায় চলে আসে। এসময় অর্থনৈতিক এলাকায় দায়িত্বরত আনসার কর্মীরা ও কর্মরত মিলেনিয়াম বিল্ডার্স এর শ্রমিক আশরাফ আলী, অভিসহ কয়েকজন মিলে হরিনটিকে আটকে উপকূলীয় বনকর্মীদের খবর দিলে উপকূলীয় বন বিভাগের ভারপ্রাপ্ত রেঞ্জ কর্মকর্তা এরফানুল হক উদ্ধারকারীদের সহায়তায় উক্ত চিত্রা হরিণটি সকাল সাড়ে ১১টা নাগাদ মীরসরাই সদরস্থ উপজেলা পশু সম্পদ কার্যালয়ে নিয়ে যান। সেখানে দায়িত্বরত ভেটেরেনারি সার্জন ডাঃ নাবিল ফারাবি উক্ত হরিণটিকে চিকিৎসা দিতে থাকে। প্রায় ২৫ মিনিট পর হরিণটি মারা যায়।
এই মুহুর্তে উপকূলীয় বনাঞ্চল এর গাছগুলো অর্থনৈতিক জোনের জন্য টেন্ডারের মাধ্যমে কাটা হচ্ছে। তাই হয়তো শ্রমিকদের দ্বারা আক্রান্ত হয়ে এমনটি হতে পারে। তবে বন কেটে ফেলার আগে সহস্রাধিক বড় জাতের দৃষ্টি নন্দন মায়া হরিণ গুলো স্থানান্তর ও নিরাপত্তার বিশেষ ব্যবস্থা ও প্রয়োজন ছিলো। আবার সচেতন মহল মনে করে অর্থনৈতিক জোনের স্বার্থে সবুজ বেষ্টনি ও অবশিষ্ট এই বনাঞ্চল রক্ষা করা প্রয়োজন ছিলো।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ