Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০১৯, ০৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৭ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

স্বাধীনতা দিবসের খেলাধুলা

| প্রকাশের সময় : ২৭ মার্চ, ২০১৯, ১২:০৩ এএম


হ্যান্ডবলে সেরা বিজিবি ও বিজেএমসি
শহীদ ক্যাপ্টেন (অব.) এম মনসুর আলী হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে এম এ হামিদ স্বাধীনতা দিবস হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতার পুরুষ বিভাগের ফাইনালে বিজিবি ৩৮-২২ গোলে বাংলাদেশ পুলিশ হ্যান্ডবল ক্লাবকে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেয়। একই ভেন্যুতে মহিলা বিভাগের শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে বিজেএমসি ২৯-২২ গোলে বাংলাদেশ আনসারকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়। ফাইনাল শেষে বিজয়ী ও বিজিত দলের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন দেশসেরা দাবাড়– মহিলা আন্তর্জাতিক মাষ্টার রানী হামিদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হ্যান্ডবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কোহিনুর, টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান মো: নুরুল ইসলাম ও সম্পাদক মো: মকবুল হোসেন।

দিনব্যাপী নৌকা বাইচ
হাতিরঝিল লেকে অনুষ্ঠিত হলো দিনব্যাপী স্বাধীনতা দিবস নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা। গতকাল প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ.ম. রেজাউল করিম। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রোইং ফেডারেশনের সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কাওসার ও সাধারন সম্পাদক মো: খোরশেদ আলম। পুরুষ বিভাগে ১১টি দলের মধ্যে আলীনগর রোয়িং ক্লাব চ্যাম্পিয়ন ও নিউ গাজী রোইং ক্লাব রানার্সআপ হয়। মহিলা বিভাগে ৫টি দলের মধ্যে সেরা হয় টঙ্গী রোইং ক্লাব এবং চুনকুটিয়া রোইং ক্লাব হয় রানার্সআপ। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান মাসুদ স্টীল ডিজাইনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কে. এম. মাসুদুর রহমান।

ছয়শ’ থানায় কাবাডি!
দেশজুড়ে ছয়শ’ থানায় একযোগে অনুষ্ঠিত হয়েছে স্বাধীনতা দিবস কাবাডি প্রতিযোগিতা। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় ২০ মার্চ শুরু হয়ে গতকাল থানায় থানায় ফাইনাল শেষে চ্যাম্পিয়ন দলগুলো জেলায় খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। জেলা পর্যায়ের খেলাগুলো হবে ২৯ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল পর্যন্ত। এরপর বিভাগীয় পর্যায়ের খেলা শেষে রাজধানী ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় পর্বের খেলা।



 

Show all comments
  • Muhammad Zahir Rayhan ২৭ মার্চ, ২০১৯, ১২:১০ পিএম says : 0
    এই দেশকে আমরা বালোবাসি প্রয়োজন হলে এই দেশের জন্য জীবন দিব কিন্তু শহিদ হয়েছে ৩০ (ত্রিশ) লক্ষ বা আরও বেশী বাংঙ্গালী অর্জিত রক্তে রঞ্জিত বাংলার স্বাধীন মানুষ গুলো কি তাদের আসল সম্পান দিতে পেরেছে কি? শুধু মুখে বলে এইদেশকে আমরা বালোবাসি বৎসরে একবার স্মৃতিশোদে যেয়ে ফলের বন্যা বয়েদিয়ে এটাকি বালোবাসা তা হলে প্রকৃত বালোবাসা কোনটি তা কি আমরা জানি না জানার চেষ্টা কি করেছি? তাদের জন্য যে ফুলের বন্যা বয়ে দেয়া হলো তারা কি এটার গ্রান পায় না তাদের কোন উপকারে আসে আজ যদি ২০ কোটি মানুষ তাদের জন্য যে টাকা দিয়ে ফুলে বন্যাবয়ে দিয়েছি সে টাকা দিয়ে যদি এ দেশে কত মানুষ না খেয়ে থাকে থাকার যায়গা নাই মানুষের এক মুঠো খাওয়া জুটেনা তাদের জন্য কি চিন্তা করেছি আমরা যদি এই ৪৮ বৎসর আটচল্লিশবার মহান আল্লাহর কাছে দোয়া প্রার্থনা করে বলেছি যে আল্লাহ যারা এই দেশের জন্য যারা প্রান দিয়েছে তাদের তুমি জান্নাত দান করুন তা হলে আজ শহিদদের আত্মা শান্তি পাইত আর যারা দুনিয়ায় জীবন যুদ্ধে এক বেলা খাওয়া জুটেনা তাদের জন্য কি আমরা নিজের হাত প্রসারিত করতে পারিনা আজ জাতীয় ভাবে কত সম্পদ অপচয় হয় তার হিসাব নেবে কে? এটা হলো প্রকৃত বালোবাসা হয়তো কারো কাছে ভালো লাগবে না এটাই বাস্তব আল্লাহ সকলকে বুঝার তাওফিক দান করুন আমিন।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: স্বাধীনতা দিবস


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ