Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ৭ বৈশাখ ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪০ হিজরী।

উৎসব আর শঙ্কার মধ্যে দিয়ে নেছারাবাদে শুরু হচ্ছে ভোট

নেছারাবাদ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

নেছারাবাদ(পিরোজপুর)উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৩০ মার্চ, ২০১৯, ২:১২ পিএম

কি হবে ভোট দিয়ে? আমি একজন নৌকা মার্কার সমর্থক। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কেন্দ্রে গিয়ে শুনি আমার ভোট হয়ে গেছে। নিজের ভোট নিজে দিতে পারিনি।এক সময় ভোট আসলে মানুষের মনে উৎসব দেখা দিত। রাস্তা-ঘাটে দেখা মিলত নির্বাচনী আমেজের চিত্র। এখন কেন্দ্রে গিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেওয়া মানে নিজ জানমালের শঙ্কা ডেকে আনা। আর ভোট দিতে পারবো কিনা তাও অনিশ্চয়তা। কথাগুলো বলেছিলেন নেছারাবাদ উপজেলা সদরের হিন্দু ধর্মালম্বি বেসরকারি চাকুরীজীবী একজন লোক। পাশা-পাশি উপজেলা সদরের একজন দোকানদার বলেন, উপজেলা ভোট সুষ্ঠ হবে। নির্বাচন হবে প্রতিযোগীতা ও অশংগ্রহনমুলক। তিনি পরিবার নিয়ে সকাল সকাল পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে যাবেন। অপর আর একজন লোক মন্তব্যে করে বলেন,ভোট মানেই কাটাকাটি, ভোট মানেই শঙ্কা। ভোট উঠানোর পর থেকে একবার জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দিয়েছিলাম। তারপর আর পারিনি। শুনতেছি ভোট নাকি সুষ্ঠ হবে। তাই নির্বাচনের দিন ভোটের পরিবেশ ভাল খবর পেলে স্ত্রী,মাকে নিয়ে দুপুরে ভোট দিতে যাব। অন্যথায় নয়। এ কথা গুলো বলছিলেন উপজেলার সদর ইউনিয়নের বাসিন্দা একজন অটো ড্রাইভার।

এভাবে উৎসাহ আর শঙ্কার মধ্যে দিয়ে রোববার(৩১ মার্চ) শুরু হচ্ছে ৫ম নেছারাবাদ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট। গত শুক্রবার(৩০ মার্চ) মধ্যে রাত থেকে প্রার্থীদের সমস্ত প্রচার-প্রচারণা শেষ হয়েছে। রোববার উপজেলার ৬৯ টি কেন্দ্রের ৪২২টি ভোট কক্ষে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভোট গ্রহণ চলবে। এবারের নেছারাবাদ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান,পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদ মিলিয়ে মোট মোট ১৩ প্রার্থী প্রতিদন্ধিতা করছেন। এদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ মনোনীত এস,এম মুইদুল ইসলাম(নৌকা), স্বতন্ত্র মো: আব্দুল হক(আনারস) এবং এনপিপি মনোনীত মো:ছিদ্দীকুর রহমান আম প্রতীকে নির্বাচন করছেন। এছাড়া পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ এবং মহিলা পদে ৪ জন প্রতিদন্ধিতা করছেন।

ইতোমধ্যে ভোট গ্রহনের সমস্ত প্রস্তুতি সেরে ফেলতে কেন্দ্রে কেন্দ্রে শনিবার সকাল এগারটা থেকে পাঠানো হয়েছে বস্তা ভর্তি ব্যালট,ব্যালট বক্স সহ প্রয়োজনীয় নির্বাচনী সরঞ্জামাদি।

সহকারী রির্টানিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানাযায়, নির্বাচনে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় সহ সুষ্ঠ ভোটদান, আচরনবিধি রক্ষার জন্য একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ও পাচজন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রয়েছে। ভোটের পরিবেশ সুষ্ঠ রাখতে মাঠে রয়েছে পাচ প্লাটুন বিজিবি ও পর্যাপ্ত পুলিশ। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১২ জন আনসার সদস্য সহ তিন জন করে থাকবে পুলিশ মোতায়ন।

এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মোটার ভোটার সংখ্যা ১ লক্ষ ৬৩ হাজার,১৪৫ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ৮১৮৬৯ এবং নারী ভোটারের সংখ্যা ৮১২৭৬ জন।

এদিকে ভোট শুরু হতে না হতেই গত দুদিন ধরে উপজেলার সমেদয়কাঠি ইউনিয়নের সাগরকান্দা, শশীদ ও গুয়ারেখা ইউনিয়নের বরতকাঠী চাদকাঠি, জলাবাড়ী ইউনিয়ন ও আটঘর কুড়িয়ানার বিভিন্ন এলাকায় নৌকা চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী পক্ষের লোকদের বিরুদ্ধে আদিপত্য বিস্তারের অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র আনারস প্রার্থীর লোকেরা। তবে এসব অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বলে দাবী করেছেন শাসকদলের নৌকা সমর্থক লোকেরা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: উপজেলা পরিষদ নির্বাচন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ