Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০১৯, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৫ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

কুমিল্লায় ভোটকেন্দ্রে ভোটার নেই, ফাঁকা কেন্দ্রেও জোর করে ব্যালটে সিল

কুমিল্লা থেকে সাদিক মামুন | প্রকাশের সময় : ৩১ মার্চ, ২০১৯, ১:৪৮ পিএম

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে কুমিল্লার সাতটি উপজেলায় আজ রবিবার সকাল আটটা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হলেও বেশিরভাগ ভোটারের আগ্রহ নেই ভোট কেন্দ্রে আসার। সকাল থেকেই ভোটকেন্দ্রগুলো ফাঁকা ছিল। মুরাদনগর উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, সকাল ১১টায় বাঙ্গরাবাজার থানাধীন কড়ইবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের কোন উপস্থিতি নেই। কুকুর ও হাস মুরগী ছুটাছুটি করছে ভোটকেন্দ্র। পুলিশ আনসাররা আড্ডায় মশগুল। ভোটগ্রহণের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা অলস সময় পার করছেন।

এদিকে মেঘনা উপজেলায় মুগারচর ভোট কেন্দ্রে সকাল আটটায় নৌকা ও আনারস প্রতীকের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধলে কেন্দ্রে আর কোন ভোটার খেুঁজে পাওয়া যায়নি। পরে সকাল সাড়ে ৯টায় ভোটারদের কেন্দ্রে আসার জন্য মসজিদের মাইকে আহ্বান করা হয়। উপজেলার রাধানগর এলাকার মসজিদের মাইকে সকাল সাড়ে ৯টায় ঘোষণা আসে মুগারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের পরিস্থিতি স্বাভাবিক। ভোটার ভাই বোনেরা আপনারা সবাই কেন্দ্রে ভোট দিতে আসেন। কিন্তু ভোটারের কোন সাড়া নেই। তবে ফাঁকা কেন্দ্রে শিশুরা মনের আনন্দে খেলাধুলা করেছে।
এদিকে বুড়িচং উপজেলার সবকটি কেন্দ্রেই ভোটারের উপস্থিতি খূবই কম। এ উপজেলার বারেশ্বর কেন্দ্রে সকাল ১১টায় নৌকার সমর্থকদের হামলায় প্রিসাইডিং কর্মকর্তাসহ ৫জন আহত হয়েছে। একই উপজেলার আনন্দ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে ফাঁকা ভোট কেন্দ্রেও জোর করে ব্যালটে সিল মারার ঘটনা ঘটেছে। চশমা প্রতীকের ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর লোকজন ব্যালটে জোরপূর্বক সিল মারে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: উপজেলা পরিষদ নির্বাচন


আরও
আরও পড়ুন