Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ০৫ মাঘ ১৪২৭, ০৫ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

শবে বরাত মহিমান্বিত রজনী

প্রকাশের সময় : ২২ মে, ২০১৬, ১২:০০ এএম

মুফতি রফিকুল ইসলাম আল মাদানী
আল্লাহ তা’আলা পরম দয়ালু। অসীম মেহেরবান। তিনি উদার ক্ষমাশীল। ক্ষমা তাঁর অন্যতম আদর্শ, শ্রেষ্ঠ গুণ। ক্ষমা করার জন্য ক্ষমা প্রার্থীর আবেদনের অপেক্ষায় থাকেন তিনি। বাতলে দিয়েছেন এর অসংখ্য পথ ও পাথেয়। স্বীয় বান্দাদেরকে প্রদান করেছেন তিনি ক্ষমার সুবর্ণ সুযোগ আর বিশাল বিশাল অফার। বরাদ্দ করেছেন ক্ষমার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন সময়। যে সময়ে তিনি মহা পাপীদের মুক্তি দেন, মর্যাদা বাড়িয়ে দেন- বাড়িয়ে দেন ভালো কাজের বিনিময় অনেক অনেক গুণে। মুছে দেন পাপীদের কালিমার সব চিহ্ন। এই মহা অফারসমূহের অন্যতম একটি হলো শবে বরাত।
শবে বরাতে মুক্তি ও রহমতের দ্বার উন্মুক্ত থাকে
শবে বরাত একটি মহিমান্বিত রজনী। এই রজনীতে পরম করুণাময় তাঁর রহমতের দ্বার উন্মুক্ত করে দেন। পাপীদেরকে উদার চিত্তে ক্ষমা করেন। এ মর্মে একটি সহীহ হাদীস নি¤œরূপÑ
“হযরত মুআয ইবনে জাবাল (রা.) বর্ণনা করেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, “আল্লাহ তা’আলা অর্ধ শাবানের রাতে (শাবানের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতে) সৃষ্টিকুলের প্রতি (রহমতের) দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও হিংসুক বিদ্বেষী ব্যতীত সবাইকে ক্ষমা করে দেন। “সহীহ ইবনে হিব্বান” (১২/৪৮১, হাদীস নং ৫৬৬৫) ইমাম তাবরানী, কাবীর (২০/১০৯ হা. নং ২১৫), আওসাত (৭/৬৮ হাদীস নং ৬৭৭৬), বায়হাকী, শুয়াবুল ঈমান (৫/২৭২ হা. নং ৬৬২৮)
হাদীস বিশারদ নির্ভরযোগ্য সব উলামায়ে কেরামের গবেষণা মতে এ হাদীসটি ‘সহীহ’ বিশুদ্ধ। উল্লিখিত বিষয়ে প্রায় এক ডজনের বেশি হাদীস নির্ভরযোগ্য গ্রন্থসমূহে সংকলন করা হয়েছে। তন্মধ্যে কয়েকটি আছে সহীহ। কয়েকটি আছে ‘হাসান’ (গ্রহণযোগ্য উত্তম হাদীস) এ ছাড়া কিছু আছে দুর্বল। কিন্তু হাদীসের নীতিমালা অনুযায়ী হাদীস গ্রহণযোগ্য। এ মর্মে যেসব সাহাবায়ে কেরাম থেকে হাদীস বর্ণিত আছে তাঁদের অন্যতম কয়েকজন হলেন, হযরত মুআয ইবনে জাবাল (রা.), হযরত আবূ বকর সিদ্দীক (রা.), হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রা.), হযরত আয়েশা (রা.), হযরত আবূ মূসা আশআরী (রা.), হযরত আবূ সা’লাবা (রা.), হযরত আবূ হুরায়রা (রা.), হযরত আউফ ইবনে মালেক (রা.), হযরত কাসীর ইবনে মুররাহ (রা.), হযরত উসমান ইবনে আবীল আস (রা.) এবং হযরত আলী ইবনে আবী তালেব (রা.)।
উপরোল্লিখিত হাদীসটি যেসব বিশ্ব বরেণ্য হাদীস বিশারদ ইমামগণ সহীহ বলে আখ্যায়িত করেছেন তাদের অন্যতম হলো, আরব বিশ্বের শ্রেষ্ঠ গবেষক ও মান্যবর ইমাম হাফেজ নূরুদ্দীন হায়সামী (রহ.)। তিনি তাঁর নির্ভরযোগ্য গ্রন্থ “মাজমাউয যাওয়ায়েদ”-এ লেখেনÑ“ইমাম তাবরানী স্বীয় হাদীস গ্রন্থ ‘কাবীর’ ও ‘আওসাত’-এ হাদীসটি সংকলন করেছেন। উভয় গ্রন্থে এ হাদীসের বর্ণনাকারী নির্ভরযোগ্য।” মাজমাউয যাওয়াইদ ৮/৬৫
এ ছাড়া আরব ও অনারব অসংখ্য উলামায়ে কেরাম শবে বরাতের হাদীসগুলোকে সহীহ ও গ্রহণযোগ্য বলে আখ্যায়িত করেছেন। আরব বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ মান্যবর ইমাম আল্লামা শায়খুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া (রহ.) এবং আল্লামা নাসিরুদ্দীন আলবানীও শবে বরাত সম্পর্কীয় হাদীসগুলোকে সুদৃঢ়ভাবে সহীহ ও গ্রহণযোগ্য বলে অভিহিত করেছেন । ইকতিযা, পৃ. ৪৮৪ সিলসিলাতুল আহাদীসিস সহীহা ৩/১৩৫
আল্লামা নাসিরুদ্দীন আলবানী লেখেন “শবে বরাত সম্পর্কীয় হাদীসের ক্ষেত্রে সার কথা হলো, শবে বরাত সম্পর্কে বর্ণিত হাদীসগুলো সমষ্টিগতভাবে নিঃসন্দেহে ‘সহীহ’। হাদীস অত্যধিক দুর্বল না হলে আরো কমসংখ্যক সূত্রে বর্ণিত হাদীস সহীহ হিসেবে গণ্য হয়।” সিলসিলাতুস সহীহা ৩/১৩৮-১৩৯
শবে বরাত ভাগ্য বণ্টনের রাত
হযরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেনÑ“নিশ্চয় আল্লাহ তা’আলা মধ্য শাবান রাতে (শবে বরাতে) যাবতীয় সিদ্ধান্তের চূড়ান্ত ফায়সালা করেন। আর শবে কদরে তা নির্দিষ্ট দায়িত্বশীলের নিকট অর্পণ করেন। ইবনে আব্বাস (রা.) আরো বলেন, নিশ্চয় আল্লাহ তা’আলা লওহে মাহফূজ থেকে পূর্ণ কুরআনে কারীম একত্রে অবতরণ করেন শবে বরাতে। আর অবতরণের ধারা সমাপ্ত করেন শবে কদরে। লুবাব, আবু হাফস উমর ১৭/৩১১, তাফসীরে রাযী ২৭/২৩৯, কুরতুবী ১৬/১২৬
বলাবাহুল্য, তাফসীর বিশারদ ইমামদের ব্যাখ্যা থেকে প্রমাণ হয় শবে কদর এবং শবে বরাত উভয় রাতেই কুরআন নাযিল হয়েছে। তবে শবে বরাতের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হলো, এতে সব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের ভাগ বণ্টন করা হয়। তাই এর নাম মুবারক রাত বা ভাগ্য রজনী। তাফসীরে কাশশাফ ৪/২৬৪, রূহুল মাআনী ৯/১১২
শবে বরাতে রাত জেগে ইবাদত করা ও পরদিন রোযা রাখা
হযরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, এক রাতে রাসূলুল্লাহ (সা.) নামাযের জন্য দাঁড়িয়ে গেলেন। এতে তিনি এমন দীর্ঘ সেজদা করলেন যে, আমার ধারণা হলো তিনি মারাই গিয়েছেন। আমি যখন অবলোকন করি, তখন বিছানা থেকে উঠে নবীজী (সা.)-এর বৃদ্ধাঙ্গুলিতে নাড়া দিই। এতে করে তাঁকে সচেতন বুঝতে পারি, আমার বিশ্বাস হলো তিনি জীবিত আছেন। অতঃপর নিজ বিছানায় ফিরে এলাম। তিনি সেজদা থেকে মাথা উঠালেন। নামায সমাপ্ত করে তিনি আমাকে বললেন, হে আয়েশা! তোমার কী ধারণা হয়েছে? নবী কী তোমার সাথে সীমালঙ্ঘন করেছে? আমি বলি, না, হে আল্লাহর রাসূল (সা.)! তবে আপনার দীর্ঘ সেজদার কারণে আমার মনে হয়েছে আপনি মৃত্যুবরণ করেছেন। অতঃপর মহানবী (সা.) বললেন, হে আয়েশা! তুমি কি জানো আজকের এ রাতটি কোন রাত? আমি বললাম আল্লাহ ও তাঁর রাসূল (সা.) এ বিষয়ে অধিক জ্ঞাত। নবীজী (সা.) বললেন, “এ রাতটি মধ্য শাবানের রাত (শবে বরাত)। এ রাতে আল্লাহ তা’আলা তাঁর বান্দাদের প্রতি বিশেষ করুণার দৃষ্টি দেন, অনুগ্রহপ্রার্থীদের দয়া করেন, তবে হিংসুক ব্যক্তিদের স্বীয় অবস্থার ওপর ছেড়ে দেন।” বায়হাকী শুআবুল ঈমান ৩/৩৮৩, হা. ৩৮৩৫, আততারগীব ওয়াত তারহীব ২/৭৩-৭৪
ইমাম বায়হাকী (রহ.) উল্লিখিত হাদীসটি সংকলন করেছেন। তিনি এ হাদীসটি সম্পর্কে গ্রহণ করার মতো উত্তম মুরসাল হাদীস বলে উল্লেখ করেছেন। সাথে সাথে শবে বরাতের ফযিলতপূর্ণ অন্যান্য হাদীসের সমন্বয়ে এই হাদীসটির গ্রহণযোগ্যতা আরো বৃদ্ধি পাবে।
সুনানে ইবনে মাজায় হযরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেনÑ পনের শাবানের রাত যখন আসে, তোমরা এই রাতটি ইবাদত বন্দেগীতে পালন করো এবং দিনের বেলা রোযা রাখো। কেননা, এ রাতে সূর্যাস্তের পর আল্লাহ তা’আলা প্রথম আসমানে আসেন আর বলেন, “কোনো ক্ষমাপ্রার্থী আছে কি? আমি তাকে ক্ষমা করব। কোনো রিযিক অন্বেষণকারী আছে কি? আমি তাকে রিযিক প্রদান করব। আছে কি কোনো রোগাক্রান্ত? আমি তাকে আরোগ্য দান করব। এভাবে সুবহে সাদিক পর্যন্ত আল্লাহ তা’আলা মানুষের বিভিন্ন প্রয়োজনের কথা উল্লেখ করে তাদের ডাকতে থাকেন।” ইবনে মাজাহ সুনান পৃ. ৯৯ হা. ১৩৮৮, বায়হাকী শুআবুল ঈমান ৩/৩৭৮ হা. ৩৮২২
হাদীস বিশারদ ইমামগণের গবেষণা মতে এ হাদীসের সব বর্ণনাকারী নির্ভরযোগ্য। তবে এতে শুধু ইবনে আবী সাবূরা নামক এক ব্যক্তি রয়েছে, তার স্মৃতিশক্তির দুর্বলতার কারণে হাদীসটি আংশিক সামান্য দুর্বল বলে গণ্য হবে। এ ধরনের দুর্বল হাদীস ফাযায়েলের ক্ষেত্রে সর্বসম্মতিক্রমে গ্রহণযোগ্য শবে বরাত শীর্ষক হাদীসগুলোকে সমষ্টিগতভাবে হাদীস বিশারদ ইমামগণ বিশুদ্ধ বলে উল্লেখ করেছেন, তাই এ হাদীসটিও গ্রহণযোগ্য হবে।
শবে বরাতে যা বর্জনীয়
এ রাতে নির্দিষ্ট কোনো আমল বা নির্দিষ্ট সংখ্যায় কোনো কাজকর্ম কুরআন-হাদীসে বর্ণিত নেই। নেই নামাযের কোনো নির্দিষ্ট রাক’আত সংখ্যা, ভিন্ন কোনো পদ্ধতি। এ রাতে নামায, দু’আ ও কুরআন তিলাওয়াত ইত্যাদি নফল আমলের অন্তর্ভুক্ত। আর যাবতীয় নফল আমল আপন আপন ঘরে একাগ্রচিত্তে পড়া উত্তম। তাই এ রাতে নফল নামায আদায়ের জন্য দলে দলে মসজিদে জমকালো আনুষ্ঠানিকতা সৃষ্টি করা ঠিক নয়। তবে কোনো ধরনের আয়োজন ও আনুষ্ঠানিকতা ব্যতীত মসজিদ নামাযের স্থান হিসেবে এতে সমবেত হয়ে গেলে কোনো আপত্তির কারণ নেই। অনুরূপভাবে হালুয়া-রুটি, মিষ্টি বিতরণ এবং বাসাবাড়ি, মসজিদ, দোকান, অফিস ইত্যাদিতে আলোকসজ্জা করা, পটকাবাজি, আতশবাজি, কবরস্থানে পুষ্প অর্পণ ও আলোকসজ্জা করা ইত্যাদির কোনো ভিত্তি নেই। নেই সাহাবায়ে কেরাম ও নির্ভরযোগ্য উলামায়ে কেরামের অনুসৃত আমলের কোনো প্রমাণ। তাই এ সব কুসংস্কার পরিপূর্ণরূপে পরিহার করা অত্যন্ত জরুরি।
কবর যিয়ারতের বিধান
হযরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ (সা)-কে এক রাতে বিছানায় পাইনি। তখন খোঁজ করার জন্য বের হয়ে তাঁকে জান্নাতুল বাক্বীতে (কবরস্থানে) পাই। (এমতাবস্থায় কথা প্রসঙ্গে) তিনি বলেনÑ“মধ্য শাবান বা শাবানের পঞ্চদশ রাতে মহান আল্লাহ দুনিয়ার আসমানে আগমন করেন এবং বনু কালব গোত্রের ছাগল ভেড়ার পশমের চেয়েও অধিক সংখ্যক লোককে তিনি ক্ষমা করে দেন।” তিরমিযী, সুনান ১/১৫৬ হা. ৭৩৯, ইবনে মাজাহ-পৃ. ৯৯ হা. ১৩৮৯
হাদীসটির মূল সূত্রে এক স্থানে ধারাবাহিকতা ছিন্ন হয়েছে। তবে পূর্বোল্লিখিত শবে বরাত সম্পর্কীয় অসংখ্য হাদীসের সমন্বয়ে সমষ্টিগতভাবে হাদীসটি সহীহ পর্যায়ে গণ্য হবে। তাই হাদীসটি গ্রহণযোগ্য ও আমলযোগ্য।
এ হাদীসে বিশেষভাবে লক্ষণীয় একটি বিষয় হলো, রাসূলুল্লাহ (সা.) শবে বরাতে জান্নাতুল বাক্বী (কবরস্থানে) গিয়েছিলেন। এতে কবরস্থানে যাওয়া এ রাতের একটি উল্লেখযোগ্য আমল হিসেবে প্রমাণ বহন করে। তবে উল্লেখ্য যে, রাসূলুল্লাহ (সা.) এ রাতে কবরস্থানে গিয়েছিলেন ঠিকই। কিন্তু তিনি তো একাকী গিয়েছিলেন। গিয়ে ছিলেন নির্জনে অনানুষ্ঠানিকভাবে। তাই কবর যিয়ারতের নামে দলবদ্ধ হওয়া, সংঘবদ্ধ হওয়ার জন্য আহ্বান করা, জমকালো অনুষ্ঠানে পরিণত করা, কবরে আলোকসজ্জা করা, আতশবাজি, পুষ্পঅর্পণে লিপ্ত হওয়া, বিনোদন ও নারী-পুরুষের মিলনমেলায় পরিণত করা ইত্যাদি শবে বরাতের নামে বাড়াবাড়ি ও ধর্মবিকৃতির নামান্তর। এ সবই ইসলামী আদর্শ বিবর্জিত। রাসূলুল্লাহ (সা.) ও সাহাবাগণের অনুসৃত আমল থেকে দূরে-অনেক দূরে। তাই শরীয়তের যাবতীয় ক্ষেত্রে বাড়াবাড়ি ও চরমপন্থা পরিহার করে শরীয়তকে যথাযথভাবে মূল্যায়ন করা একান্ত অপরিহার্য। আল্লাহ আমাদের সবাইকে সঠিক বোঝা ও আমল করার তৌফিক দিন। শাবান মাসে সবধরনের পাপাচার হতে মুক্ত থেকে এ মাসের যথাযথ মূল্যায়ন এবং কল্যাণ লাভে সবাইকে ধন্য করুন।



 

Show all comments
  • Motaleb Ali of West Bengal ২২ মে, ২০১৬, ২:৪১ পিএম says : 0
    Hope our Almighty Allah-Subhanatala give us the capacity of right work)Amal) to do and forgive and pardon ourselves(Mumin Muslims) in the eve of lucky night(Sabe-Barat)
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: শবে বরাত মহিমান্বিত রজনী
আরও পড়ুন