Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

বালু উত্তোলনে ঝুঁকিতে নদীর তীর রক্ষা প্রকল্প

স্টাফ রিপোর্টার, গাইবান্ধা থেকে : | প্রকাশের সময় : ৯ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

সাঘাটায় যমুনা ও কাটাখালী নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ড্রেজার মেশিন বসিয়ে ওই দুটি নদীর তীর রক্ষা প্রকল্প এলাকাসহ বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ সংলগ্ন বিভিন্ন স্থানে দীর্ঘদিন ধরে এভাবে বালু উত্তোলন করে একটি চক্র অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। ফলে যমুনা তীর সংরক্ষণ প্রকল্প এবং ত্রিমোহনী, পাকুরতলা ও সতিতলা ব্রিজসহ নদীর তীরবর্তী জনবসতি এবং ফসলী এলাকা ভাঙনে হুমকির মুখে পড়েছে। বালু উত্তোলনের বিষয়ে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডকে একাধিকবার অভিযোগ জানিয়েও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি।
জানা গেছে, অবৈধ বালু উত্তোলনকারীরা প্রশাসনের অবহেলা, নির্লিপ্ততার সুযোগ নিয়ে যমুনা নদী থেকে গোবিন্দী, হলদিয়া, হাসিলকান্দি, নলছিয়া, গোবিন্দপুর, দক্ষিণ উল্যা (বড়মতাইড়), কাটাখালী নদীর ত্রিমোহনীঘাট, রামনগর ঘাট, সতীতলা ঘাট, ইলিয়াছের ঘাট, শঙ্করগঞ্জ ঘাট ও মেলান্দহ ঘাট ফলিয়াদিগর পাকুরতলা ঘাটসহ বিভিন্ন স্থানে এভাবে অবৈধ পন্থায় বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে। এলাকার প্রভাবশালী এই অবৈধ বালু ব্যবসায়ি চক্রটি যমুনা ও কাটাখালি নদীর বিভিন্ন স্থানে রাবার ড্রামের উপর ড্রেজার মেশিন বসিয়ে নদীর তলদেশ থেকে অবাধে বালু উত্তোলন করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।
শুধু তাই নয়, বালুখেকো প্রভাবশালী চক্রটি কাঁটাখালী নদীর উপর নব নির্মিত ত্রিমোহনী ব্রিজ, মেলান্দহ ব্রিজ, সতিতলা ব্রিজ, পাকুরতলা ব্রিজ এলাকাতেও অব্যাহতভাবে বালু উত্তোলন করছে। ফলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ১শ ৩৫ কোটি টাকা ব্যয়ে যমুনা নদীর রক্ষা প্রকল্প ও ২৮ কোটি ৪৫ লাখ টাকা ব্যয়ে কাঁটাখালী নদীর উপর নির্মিত ত্রিমোহনী ব্রিজ ভাঙনের হুমকির মুখে পড়েছে। এসব এলাকা থেকে বালু উত্তোলন করে ডাম্পার ট্রাকে করে তা নিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন স্থানে। বালু বোঝাই এসব ডাম্পার ট্রাক অতিরিক্ত চলাচলের ফলে এলাকার রাস্তাগুলোর বেহাল অবস্থা দাড়িয়েছে।
নদী রক্ষা প্রকল্প এলাকা থেকে বালু উত্তোলনের বিষয়ে গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমান জানান, সাঘাটা থানায় এব্যাপারে জিডি করা হয়েছে। কিন্তু বালু উত্তোলন বন্ধ করা যায়নি। উপজেলা নিবার্হী অফিসার উজ্জল কুমার ঘোষ নদী থেকে বালু উত্তোলনের বিষয়ে এলাকাবাসির অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করলেও তিনি কোন ব্যবস্থা নেয়ার ব্যাপারে সদুত্তর দিতে পারেননি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বালু উত্তোলন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ