Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

নিউজিল্যান্ডের অস্ত্র আইন সংস্কারের পক্ষে পার্লামেন্টের রায়

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ এপ্রিল, ২০১৯, ৭:৫১ পিএম

নিউজিল্যান্ডের সব ধরনের আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ও অ্যাসল্ট রাইফেল নিষিদ্ধ করার পক্ষে ভোট দিয়েছেন দেশটির আইনপ্রণেতারা। বুধবার পার্লামেন্টে চূড়ান্ত পর্যালোচনার পর ১১৯-১ ভোটে অস্ত্র আইন সংস্কার বিলটি পাস হয়। এখন গভর্নর জেনারেলের কাছ থেকে সম্মতি পাওয়ার পরই বিলটি আইনে পরিণত হবে। খবর বিবিসি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বুধবার পার্লামেন্টে বক্তব্য দেওয়ার সময় নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী বলেন, হামলায় হতাহত ও তাদের পরিবারের কারণেই আজ তারা সেখানে আছেন। আহতদের দেখতে হাসপাতালে যাওয়ার দিনগুলোকে স্মরণ করেন তিনি। আহতদের সবার গায়ে একাধিক গুলির চিহ্ন দেখতে পেয়েছিলেন বলে জানান তিনি। আইনপ্রণেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন ‘হত্যা ও পঙ্গু করে ফেলতে এগুলো তৈরি হয়েছে। আর ১৫ মার্চ এগুলো ব্যবহার করেছে জঙ্গীরা।’

যেসব অস্ত্র নিষিদ্ধ হচ্ছে তাদের মালিকরা যেন বাই-ব্যাক স্কিমের আওতায় নিজেদের কাছে থাকা অস্ত্রগুলো ফেরত দিতে পারেন তা নিশ্চিত করতে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়েছে। জেসিন্ডা জানিয়েছেন, বাই-ব্যাক স্কিমের আওতায় তার দেশের ২০ কোটি ডলার ক্ষতি হতে পারে। তবে দেশের জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার স্বার্থে এ অর্থ খরচ জরুরি বলে মনে করছেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত ১৫ মার্চ ২৮ বছর বয়সী অস্ট্রেলীয় জঙ্গী নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুইটি মসজিদে হামলা চালায়। শহরের হাগলি পার্কমুখী সড়ক ডিনস এভিনিউয়ের আল নুর মসজিদসহ লিনউডের আরেকটি মসজিদে তার তাণ্ডবের বলি হয় অর্ধশত মানুষ। হামলা চালাতে একটি এ আর-১৫ সহ কয়েকটি আধা-স্বয়ংক্রিয় রাইফেল ব্যবহার করা হয়েছিল। এ ঘটনার পর নিউজিল্যান্ডে আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ও অ্যাসল্ট রাইফেল নিষিদ্ধ করার ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন। অন্য অস্ত্রকে আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রে পরিণত করতে যেসব যন্ত্র ব্যবহার করা হয় সেগুলো্ও নিষিদ্ধ করা হবে বলে জানান তিনি। ঘোষণা দেন বিদ্যমান অস্ত্র আইন পরিবর্তনের। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার নিউ জিল্যান্ডের পার্লামেন্টে পাস হলো অস্ত্র সংস্কার বিল।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন