Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

ব্যবসায়ী সেলিম চৌধুরী হত্যায় অংশ নেয় ৪ জন, গ্রেফতার ৩

নারায়ণগঞ্জ থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১১ এপ্রিল, ২০১৯, ৫:৫৬ পিএম

নিখোঁজ হওয়ার ১০ দিন পর ব্যবসায়ি কামরুজ্জামান চৌধুরী সেলিমের (৫২) বস্তাবন্দি লাশ ফতুল্লার একটি ঝুটের গোডাউনের মাটি খুঁজে উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার বিকেলে ফতুল্লার ভোলাইল এলাকায় ঝুট ব্যবসায়ি মোহাম্মদ আলীর গোডাউনের ভেতরে মাটি খুঁড়ে ব্যবসায়ি সেলিমের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। খবর পেয়ে সেলিমের স্ত্রী রেহানা আক্তার রেখা ও ছোট ভাই জামিল এবং অন্যান্য আত্মীয়-স্বজনরা এসে লাশ সনাক্ত করেন। ওই সময় নিহতের স্বজনদের আহাজারিতে ঘটনাস্থলে শোকাবহ পরিবেশ সৃষ্টি হয়।
লাশ উদ্ধারের আগে পুলিশ গতকাল দুপুরে মোহাম্মদ আলীর ঝুটের গোডাউনের কর্মচারী ফয়সালকে গ্রেফতার করে। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেই পুলিশ জানতে পারে যে ব্যবসায়ি সেলিম চৌধুরীকে হত্যার পর লাশ বস্তাবন্দি করে গোডাউনের ভেতরেই মাটি চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে। তার দেখানো মতোই পুলিশ মোহাম্মদ আলীর গোডাউনের ভেতরে মাটি খুঁড়ে বস্তাবন্দি লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তর জন্য নারায়ণগঞ্জ দেড়শ শয্যা হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।
এদিকে ব্যবসায়ি সেলিমের লাশ উদ্ধারের পর রাতে ভোলাইল এলাকা থেকেই গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ হত্যাকান্ডের মূল হোতা মোহাম্মদ আলী ও মোঃ ইউনুছ নামে তার অপর এক কর্মচারীকে গ্রেফতার করে। তবে এখনও ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িত আলী হোসেন পলাতক রয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন।
গত ৩১ মার্চ বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন ঝুট ব্যবসায়ি কামরুজ্জামান চৌধুরী সেলিম। ওইদিন সকাল ১১টায় স্ত্রী রেহানা আক্তার রেখার সঙ্গে টেলিফোনে তার সর্বশেষ কথা হয়। স্ত্রী রেখা টেলিফোন করে সেলিমের অবস্থান জানতে চাইলে তিনি জানিয়েছিলেন সে ফতুল্লার পঞ্চবটি মোড়ে অবস্থিত ইস্টার্ণ ব্যাংকে রয়েছেন। ওইদিন দুপুর ২টায় দুপুরের খাবারের জন্য পুনরায় ফোন দিয়ে সেলিম চৌধুরী ফোন বন্ধ পান স্ত্রী রেখা। খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে নিখোঁজ হবার ৬ দিন পর গত ৬ এপ্রিল ফতুল্লার মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন স্ত্রী রেখা। দুইদিন পর গত ৮ এপ্রিল এ ঘটনায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন রেখা। এ দম্পতি এক ছেলে সন্তানের জনক। ফতুল্লার বক্তাবলীর কানাইনগর এলাকার বাসিন্দা হলেও সে পরিবার নিয়ে ফতুল্লার শিবু মার্কেট এলাকায় ভাড়া থাকেন। তিনি ঝুটের ব্যবসা করতেন।
গ্রেফতারকৃত ফয়সাল প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানিয়েছে, ব্যবসায়ি সেলিম চৌধুরীকে অপর ঝুট ব্যবসায়ি মোহাম্মদ আলীর নির্দেশে হত্যা করা হয়। হত্যাকান্ডে মোহাম্মদ আলীসহ, আলী হোসেন, ইউনুস ও ফয়সালসহ মোট ৪ জন অংশ নেয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গ্রেফতার

৩ অক্টোবর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ