Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১, ০৯ মাঘ ১৪২৭, ০৯ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

রোমাঞ্চ জিতে সুপার সিক্সে মোহামেডান

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

লক্ষ্যটা ছিল নাগালের মধ্যেই। সেই লক্ষ্যে লিটন দাস আর ইরফান শুক্কুরের শুরুটাও ছিল দারুণ। কিন্তু মিডল অর্ডারের ব্যর্থতায় পথ হারিয়ে দুর্বল বিকেএসপির বিপক্ষেই ডুবতে বসেছিল মোহামেডান। টানটান উত্তেজনার পর অভিষেক মিত্রের ব্যাটে তীরে তরি ভিড়েছে তাদের। ফতুল্লায় ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের একাদশ রাউন্ডের ম্যাচে ১ বল বাকি থাকতে বিকেএসপিকে ১ উইকেটে হারিয়েছে মোহামেডান। এই রোমাঞ্চ জিতেই শেষ দল হিসেবে সুপার লিগ নিশ্চিত করেছে ঐতিহ্যবাহী দলটি। তাদের আগে সুপার সিক্স নিশ্চিত করে আবাহনী, লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ, প্রাইম দোলেশ্বর, প্রাইম ব্যাংক ও শেখ জামাল ধানমÐি ক্লাব।

গতকাল খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট পেয়ে ৭ উইকেটে ২৪৯ রান করেছিল বিকেএসপি। লিটন আর অভিষেকের দুই ফিফটিতে ওই রান পেরুলো ঐতিহ্যবাহী ক্লাবটি। আড়াইশ রানের লক্ষ্যে ইরফানকে নিয়ে অনায়াসে খেলতে থাকেন লিটন। তার আগ্রাসী অ্যাপ্রোচে বড়ছিল রান। দলের ৭৭ রানে ইরফান আউট হওয়ার পর লিটনের সঙ্গে যোগ দেন অভিষেক। জুটিতে আরও ৩৯ রান তুলার পর বিচ্ছিন্ন হন তারা। ৫৭ বলে ৬ চারে ৫৩ করে ফেরেন লিটন।

এরপর রকিবুল হাসানের সঙ্গে গড়ে উঠে লিটনের আরেক জুটি। ৪৭ রানের জুটির পর ৩৫ করা রকিবুল আউট হয়ে গেলে হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে মোহামেডানের মিডল অর্ডার। মোহাম্মদ আশরাফুল, নাদীফ চৌধুরী ছিলেন আসা যাওয়ার মিছিলে। এক প্রান্ত আগলে তখন মোহামেডানের আশা বাঁচান অভিষেক। ৬৯ বলে ৬৫ রানের দারুণ ইনিংস খেলার পর অভিষেক আউট হলে আধার ঘনিয়েছিল মোহামেডানের ডেরায়। শেষ দিকের রোমাঞ্চে বাকি কাজ সেরেছেন কাজি অনিক। জয়ের জন্য শেষ ওভারে মোহামেডানের প্রয়োজন ছিল ৯ রান। একটি করে চার হাঁকিয়ে অনিক ও সাকলাইন দলকে নিয়ে যান জয়ের বন্দরে।

এর আগে আমিনুল ইসলামের ৬০ আর শামিম হোসেনের ৪৯ রানে মোহামেডানের সামনে লড়াকু লক্ষ্য দিতে পেরেছিল বিকেএসপি। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে প্রান্তিক নওরোজের সঙ্গে ৪২ রানের উদ্বোধনী জুটিতে বিকেএসপিকে ভালো শুরু এনে এনে দেন ফাহাদ আহমেদ। দুই ওপেনার পারেননি ভালো শুরুটা বড় করতে।

সাবধানী ব্যাটিংয়ে ৯২ বলে পাঁচ চারে ৬০ রান করেন আমিনুল ইসলাম। তার সঙ্গে তৃতীয় উইকেটে ৯৪ রান জুটি গড়া শামিম হোসেন ফিরেন দুটি করে ছক্কা ও চারে ৪৯ রান করে। আকবর আলীর ৩৫ বলে ৩৮ ও পারভেজ হোসেনের ২২ বলে ৩৮ রানের দুটি আক্রমণাত্মক ইনিংসে লড়াই করার মতো সংগ্রহ গড়ে বিকেএসপি, তবে শেষরক্ষা হয়নি। মোহামেডানের রাহাতুল ফেরদৌস ৩ উইকেট নেন ৩৭ রানে। দায়িত্বশীল ইনিংসে মোহামেডানকে পথ দেখানো অভিষেক জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।
এই হারে খেলাঘর আর উত্তরা স্পোর্টিং ক্লাবের সঙ্গে অবনমন এড়ানোর লিগ খেলা নিশ্চিত হয়ে গেছে বিকেএসপির। এই লিগের সেরা দল টিকে থাকবে প্রিমিয়ার লিগে, অন্য দুই দল নেমে যাবে প্রথম বিভাগে। দিনের অন্য দুই ম্যাচে সাভারে গাজী গ্রæপ ক্রিকেটার্সকে (১৬৭/১০) ৩৪ রানে হারিয়েছে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব (২০১/৯) আর মিরপুরে বৃষ্টি আইনে খেলাঘরের (১৯০/১০) বিপক্ষে শাইনপুকুরের (১৬৫/৬) জয়টি ১৫ রানের। ১৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তিনে থাকা প্রাইম ব্যাংকের সুপার লিগ নিশ্চিত ছিল আগেই। তবে জিতেও লাভ হলো না শাইনপুকুরের।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
বিকেএসপি-মোহামেডান, ফতুল্লা
বিকেএসপি : ৫০ ওভারে ২৪৯/৭ (ফাহাদ ৩২, আমিনুল ৬০, শামিম ৪৯, আকবর ৩৮, পারভেজ ৩৮; অনিক ১/৫২, সাকলাইন ১/৪২, রাহাতুল ৩/৩৭, আশরাফুল ০/৩১, ভাটিয়া ২/৪৮)।
মোহামেডান : ৪৯.৫ ওভারে ২৫২/৯ (লিটন ৫৩, শুক্কুর ৪১, অভিষেক ৬৫, রকিবুল ৩৫, আশরাফুল ৩, ভাটিয়া ১৫, সাকলাইন ৫*; নওশাদ ২/৪১, তানজিম ২/৪৭, মুরাদ ৪/৩০)।
ফল : মোহামেডান ১ উইকেটে জয়ী। ম্যাচসেরা : অভিষেক মিত্র।

গাজী গ্রæপ-প্রাইম ব্যাংক, সাভার
প্রাইম ব্যাংক : ৫০ ওভারে ২০১/৯ (সুদীপ ২১, কাপালী ১৪, নাঈম ৩৪, আরিফুল ৩৪, মনির ২৫*; আবু হায়দার ১/৪৯, রাব্বি ১/৩৯, সঞ্জিত ৩/৩০, নাসুম ২/৩২, কামরান ২/৪২)।
গাজী গ্রæপ : ৪৫.২ ওভারে ১৬৭ (মাইশুকুর আহত অনুপস্থিত ৭৪, রনি ১০, ইমরুল ১৮, শামসুর ২৭, সঞ্জিত ১২; আল আমিন ১/৩০, নাঈম ২/৩৯, কাপালী ২/১৩, আরিফুল ১/১৮)।
ফল : প্রাইম ব্যাংক ৩৪ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা : নাঈম হাসান।

খেলাঘর-শাইনপুকুর, মিরপুর
খেলাঘর : ৪৮.২ ওভারে ১৯০ (শাহরিয়ার ২২, অজিত ৩৭, মাসুম ৪০, রকিবুল ২২; দেলোয়ার ৩/২৭, টিপু ১/৩১, হামিদুল ২/২৩, আফিফ ২/২৮, রকিবুল ১/২১)।
শাইনপুকুর : ৪১ ওভারে ১৬৫/৫ (সাদমান ৬৪, চাঁদ ৩৪, ধীমান ৩১*; রবিউল ২/২৬, তানভির ১/২৭, মইনুল ২/৩১, ইফতেখার ১/৯)।
ফল : শাইনপুকুর ১৫ রানে জয়ী (ডি/এল)। ম্যাচসেরা : সাদমান ইসলাম।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মোহামেডান

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন