Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৮ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

গ্যাসের দাম বাড়লেও ক্ষতি হবে না ব্যবসায়ীদের সেমিনারে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ এপ্রিল, ২০১৯, ২:০১ এএম


বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, ভর্তুকি কমাতে গ্যাসের দাম বাড়ছে। তবে এতে ব্যবসায়ীদের কোনো ক্ষতি হবে না। আর যদি কোনো সমস্যা হয়, তাহলে সরকার তা দেখবে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর মতিঝিলে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) কনফারেন্স রুমে জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি: শিল্পায়নে প্রভাব শীর্ষক সেমিনারে তিনি এসব কথ বলেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, গ্যাসের দাম বাড়ছে। তবে এটিকে আমি বাড়ানো বলব না, বলব- সমন্বয় করা হচ্ছে। এতে ব্যবসায়ী দের কোনো ক্ষতি হবে না। আর যদি সমস্যা হয় তাহলে সরকার তা দেখবে। নসরুল হামিদ বলেন, দেড় বছর আগে আমরা এফবিসিসিআই, ডিসিসিআই, বিজিএমইএসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ীক সংগঠনের সঙ্গে বসেছিলাম। তখনই গ্যাসের দাম সমন্বয়ের কথা জানিয়েছিলাম। এখন আমরা দাম সমন্বয় করতে যাচ্ছি। আগামী পাঁচ বছর পর্যায়ক্রমে দাম সমন্বয় করতে হবে। তিনি বলেন, আমরা নয় টাকার গ্যাস ছয় টাকায় দিচ্ছি। অনেক ক্ষেত্রে দুই টাকা প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ বিক্রি করছি। অর্থাৎ প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রায় ৮০ লাখ গ্রাহককে দুই টাকায় বিদ্যুৎ দিচ্ছে সরকার। এতে গ্রামীণ অর্থনীতি এগিয়ে যাচ্ছে। তবে এর কারণে বছরে জ্বালানি খাতে প্রায় ছয় হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হচ্ছে।
নসরুল হামিদ বলেন, কারখানায় স্থাপিত ক্যাপটিভ পাওয়ার প্লান্ট বন্ধ করতে হবে। জাতীয়ভাবে উৎপাদিত বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে হবে। বিদ্যুতের ব্যবহার বাড়ালে একদিকে দাম কমবে অন্যদিকে নিরবিছিন্ন বিদ্যুৎ সরবারহ করা সম্ভব হবে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, আজকে পর্যন্ত ছয় হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উদ্বৃত্ত রয়েছে। আর ব্যবহার হচ্ছে মাত্র আট হাজার মেগাওয়াট। ব্যবহার না করেও উদ্বৃত্ত বিদ্যুতের খরচ আমা দের বহন করতে হচ্ছে। এর দায় গ্রাহকের উপর পড়ছে। তাই আপনারা ব্যবসায়ীরা কারখানায় বিদ্যুতের ব্যবহার বাড়ান, দাম কমে আসবে। পিক ও অফপিক আওয়ারে পাঁচ হাজার মেগাওয়াটের বিদ্যুতের ব্যবধান রয়েছে। এতে প্রায় এক হাজার কোটি টাকা বাড়তি ব্যয় হচ্ছে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, নিরবিছিন্ন গ্যাস-বিদ্যুৎ সরবারহ নিশ্চিতে সরকার ২০১০ সালে মাস্টার প্লান করেছে। প্লান নিয়ে নিয়ে কাজ করা হচ্ছে। আশা করছি, এ সমস্যার সমধান হয়ে যাবে। অনুষ্ঠানে ডিসিসিআই -এর সভাপতি ওসামা তাসীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাভেন, সংগঠনটির সহ-সভাপতি ইমরান আহমেদ, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) অধ্যাপক ড. ইজাজ হোসেন প্রমুখ।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন