Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ০৫ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

সিলসিলায়ে জৌনপুরে শিরক কুফরের জিরো টলারেন্স

ঈসালে সওয়াব মাহফিলে ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : | প্রকাশের সময় : ১৪ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৮ এএম

গত শুক্রবার (নারায়াণগঞ্জ) আব্বাসী মঞ্জিল জৌনপুরী দরবার শরীফে আল্লামা সিদ্দিক আহমাদ আব্বাসী জৌনপুরী (রহ.) এবং আল্লামা নেছার আহমাদ আব্বাসী জৌনপুরী (রহ.)দ্বয়ের বার্ষিক ইসালে সাওয়াব মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব ও বিদায়ী মুনাজাত পরিচালনা করেন আল্লামা মুফতি ড. সাইয়্যেদ মুহাম্মাদ এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী ওয়া সিদ্দিকী পীর সাহেব জৌনপুরী।
পীর সাহেব জৌনপুরী বলেন, ওলামায়ে জৌনপুর শিরক ও কুফর থেকে দীর্ঘকাল যাবৎ উপমহাদেশে মুসলমানদেরকে সজাগ, সচেতন করে আসছে। সিলসিলায়ে জৌনপুরের সেরতাজ হাদীয়ে বাঙ্গাল শাহ কারামাত আলী জৌনপুরী (রহ.) সুদীর্ঘ কাল এদেশের মানুষদেরকে ঈমান আক্বীদা শিক্ষা দিয়েছেন। যার ফলোশ্রæতিতে তার হাতে সরাসরি ১ কোটি লোক মুসলমান হয়েছিল। ইতিহাস সাক্ষী, আব্দুল কাদির জিলানী (রহ.)-এর হাতে ৯০ হাজার লোক মুসলমান হয়েছে। খাজা মঈন উদ্দিন চিশতী (রহ.)-এর হাতে ৯০ লাখ লোক মুসলমান হয়েছে। আর শাহ কারামাত আলী জৌনপুরী (রহ.)-এর হাতে সরাসরি ১ কোটি লোক মুসলমান হয়েছেন। আরো হেদায়াতপ্রাপ্ত হয়েছে ১ কোটি লোক। এ সফল দায়ী কখনই শিরক-কুফরের কাছে মাথানত করেননি। বর্তমানেও বাংলার যেখানেই শিরক কুফর প্রকাশিত হয় সেখানেই আমাদের জবান থেকে কুফরের বিপক্ষে ফতুয়া জারি হয়। পীর সাহেব জৌনপুরী আরো বলেন, আমাদের দুই আল্লাহর অলী ভক্ত-মুরীদদেরকে শরিয়াত, তরিকাত, হাকিকাত, মারেফাত শিক্ষা দিয়েছিলেন। যেমনটি আল্লাহ তায়ালা আদেশ করেছেন। আর তার বন্ধুদের অনুসারী হওয়ার জন্য আল্লাহ তায়ালাই আদেশ করেছেন। আল্লাহর বন্ধুদের পরিচয় হল তারা হবে কামেল ঈমানদার, তাদের ঈমান হবে হাক্কুল ইয়াকিন এবং তারা তাদের জান ও মাল দিয়ে জিহাদ করবে দ্বীন কায়েমের জন্য। এই বৈশিষ্ট্যগুলো যার মধ্যে থাকবে সেই আল্লাহর ওলী, কেবলমাত্র তাদেরকেই শায়েখ/পীর হিসাবে মান্য করা যাবে।
ঈসালে সাওয়াব মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন মাওলানা এমদাদুল্লাহ আব্বাসী জৌনপুরী, মাওলানা এহসানুল্লাহ আব্বাসী জৌনপুরী, মাওলানা নেয়ামাতুল্লাহ আব্বাসী জৌনপুরী, মাওলানা ওবায়দুল্লাহ আব্বাসী জৌনপুরী, মাওলানা হাফেজ আব্দুর রাহিম, মাওলানা তামীম বিল্লাহ আল-ক্বাদরী প্রমুখ। পরিশেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনায় দোয়া করা হয়।



 

Show all comments
  • Arif Chowdhury ১৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১:১২ এএম says : 0
    ঈমান চোর।
    Total Reply(0) Reply
  • খালেদ হোসেন হাবিব ১৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১:১২ এএম says : 0
    তোমি ভন্ড ইমান চোর কয় জন মুসলমান বানাইছ,
    Total Reply(0) Reply
  • Zakir Hossain Bin Zibon ১৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১:১৩ এএম says : 0
    বয়কট করলাম আজ থেকে কাফেরদের তৈরি আলেমকে । তাই এটা ব্যবহার করা হারাম। এটা ব্যবহার করে আব্বাসিও কাফের হয়ে গেছে। -- জাল হাদিস, ৪২০
    Total Reply(0) Reply
  • Md Habibul Islam “ ১৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১:১৩ এএম says : 0
    কাফের সার্টিফিকেট”-এর ঝোলা কি সবসময় কাঁধে নিয়েই ঘোরেন? আজ অমুক কাফের, কাল তমুক কাফের!! ১.রাসুল (সা:)-এর একনিষ্ঠ অনুসারী হলে আপনি কাফেরের কাছে দ্বীনের দাওয়াত নিয়ে যান, সমাজে হিংসা তৈরী করেন না। ২. কাফেরী আলামত শুধু মাওলানা সাহেবদের মধ্যেই পান সরকারী উচ্চপদস্থ কোন ব্যক্তির মধ্যে পান না? পেলে গলাবাজী করে দেখান।
    Total Reply(0) Reply
  • Helal Masud ১৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১:১৩ এএম says : 0
    জাতীয় দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকায়, একজন ভন্ডর ছবি এবং লেখা কিছুতেই মানা যায় না
    Total Reply(0) Reply
  • Parvez Rohani ১৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
    এটা জৌনপুরী না এটা হেডায়েত উল্লা ইব্বাছির যৌনপুরী..
    Total Reply(0) Reply
  • Ismail Khan ১৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
    মাথামোটা একটা বলদের নাম আব্বাসী,যার কাছে সবাই কাফের শুধু সে আর তার চেলাচামুণ্ডারা ছাড়া....
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ