Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ৭ বৈশাখ ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪০ হিজরী।
শিরোনাম

সাইফের আগুনে বোলিং

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৫ এপ্রিল, ২০১৯, ৯:৪৮ পিএম

ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের সুপার লিগ পর্বের শুরুটা দারুণ হয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন আবাহনী লিমিটেড এবং পয়েন্ট তালিকার শীর্ষ দল লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের। প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাবকে মাত্র ৮৬ রানে গুটিয়ে ১৬৫ রানের বিশাল বড় জয় তুলে নিয়েছে আবাহনী। তিনশোর্ধো রানের সংগ্রহ গড়ে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে ৪৬ রানে উড়িয়ে দেয় রূপগঞ্জ। প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবকে ৬ উইকেটে হারিয়ে এই পর্বের শুরুটা উড়ন্ত হয়েছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবেরও।

দারুণ ব্যাটিংয়ে রোববার সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক ব্যাটসম্যান নাঈম ইসলাম ও নাসির হোসেন। অল রাউন্ডার নৈপূন্য দেখিয়েছে ইলিয়াস সানি, আরিফুল হকরা। তবে দিনের সবচেয়ে উজ্জ্বল পারফম্যান্সটা এসেছে মোহাম্মাদ সাইফুদ্দিনের কাছ থেকে। তার ক্যারিয়ার সেরা আগুনে বোলিংয়েই দলীয় সংগ্রহ একশ ছাড়াতে পারেনি প্রাইম দোলেম্বর। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে এর আগে ৩ উইকেটের বেশি ছিল না সাইফুদ্দিনের। সেই তিনিই দুর্দান্ত সব সুইং, বাউন্সের পসরা সাজিয়ে ৬ ওভারে দুই মেডেনসহ মাত্র ৯ রানের খরচায় তুলে নেন ৫ উইকেট।
মিরপুরে আবাহনী এক ওভার বাকি থাকতে অল আউট হওয়ার আগে করে ২৫১ রান। জবাবে ৩০ ওভারও টিকতে পারেনি দোলেশ্বর। ৩৪ রানে তারা হারায় ৫ উইকেট। যার প্রত্যেকেই ছিলেন সাইফুদ্দিনের শিকার। বিশ্বকাপের আগে তরুণ অলরাউন্ডারের এমন নৈপূন্য টাইগার ক্রিকেট ভক্তদের সাহস যোগাবে বৈকি।
ফতুল্লায় নাসিরের সেঞ্চুরি ম্লান হয়ে যায় ইলিয়াস সানির অলরাউন্ডার নৈপূন্যে। তার ঘুর্ণী বোলিং দিশেহারা হয়েই ১ উইকেটে ১২১ থেকে মুহূর্তেই প্রাইম ব্যাংকের স্কোরবোর্ড হয়ে যায় ৭ উইকেটে ১৪০! অবশ্য সেখানে অবদান ছিল তানবীর হায়দারেরও। দুজনেই সমান তিনটি করে উইকেট ভাগ করে নেন। শেষ দিকে আরিফুলের ৫১ বলে ৭ ছক্কা ও ২ চারে করা ৭৪ রানের ঝড়ো ইনিংস এনামুল হকের দলকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেয়। ৯ বল বাকি থাকতে গুটিয়ে যাওয়ার আগে তারা সংগ্রহ করে ২৩৬।
চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্যটা মামুল হয়ে যায় শেখ জামালের টপ অর্ডারের ব্যাটিং দৃড়তায়। ওপেনে নেমে ১০৪ বলে ৬৭ রানের দারুণ ইনিংস উপহার দেন ইলিয়াস সানি। চারে নেমে শেষ পর্যন্ত ১১০ বলে ১১২ রানে অপরাজিত থাকেন নাসির। সেখানে ১২টি ছিল চারের মার, ছক্কা ২টি।
ওদিকে সাভারে মোহামেডানের বোলারদের অকেজো করে ৪ উইকেটে ৩১৩ রানের বড় সংগ্রহ গড়ে রূপগঞ্জ। ১০৮ বলে সমান রানে অপরাজিত থাকেন দলপতি নাঈম। তার পরিণত ইনিংসে চার ছিল ৪টি, ৩টি ছক্কা। এছাড়া ৬১ বলে ৬৮ রানে অপরাজিত ছিলেন শাহরিয়ার নাফিস। ফিফটি ইনিংস আসে মুমিনুল হকের ব্যাট থেকেও।
মোহাডেমডানও ব্যাট হাতে জবাবটা ভালোই দিচ্ছিল। ১৮৮ রানে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে রাকিবুল হাসান আউট হওয়ার পর আর তারা ম্যাচে ফিরতে পারেনি। তার আগে ফিফটি ইনিংস খেলে আউট হন ইরফান শুক্কুরও। ব্যাট হাতে বাকি ব্যাটসম্যানদের শুরুটাও ছিল দারুণ, কিন্তু কেউই ক্রিজে বেশিক্ষণ দাঁড়াতে পারেনি। ইনজুরির কারণে ব্যাটিংয়ে নামেননি নাদীফ চৌধুরী।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
প্রাইম ব্যাংক-শেখ জামাল, ফতুল্লা
প্রাইম ব্যাংক : ৪৮.৩ ওভারে ২৩৬ (রুবেল ৬৬, ওঝা ৪৬, আরিফুল ৭৪; খালেদ ১/২৯, শাকিল ২/৩৭, সানি ৩/৩৫, তানবীর ৩/৪৩, এনামুল হক ১/২৯)। শেখ জামাল : ৪৮.৪ ওভারে ২৩৯/৪ (ইমতিয়াজ ২৬, সানি ৬৭, নাসির ১১২*; নাহিদুল ২/৩০, রাজ্জাক ২/৫২)। ফল : শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব ৬ উইকেটে জয়ী। ম্যাচসেরা : ইলিয়াস সানি।
..
রূপগঞ্জ-মোহামেডান, সাভার
রূপগঞ্জ : ৫০ ওভারে ৩১৩/৪ (মুমিনুল ৭৮, নাঈম ১০৮*, শাহরিয়ার ৬৮; সোহাগ ১/৬৭, অনিক ১/৬৪, আশরাফুল ২/৪৪)। মোহামেডান : ৪৬.২ ওভারে ২৬৭ (লিটন ২৪, শুক্কুর ৭৩, রকিবুল ৫৮, সোহাগ ২৯, আশরাফুল ১১; শুভাশিস ৩/৫৬, নাবিল ১/৪২, শহীদ ২/৪৩, ধাওয়ান ১/৬৫, মুক্তার ২/৫১, নাঈম ০/৭)। ফল : ৪৬ রানে লেজেন্ডস অব রূপগঞ্জ জয়ী। ম্যাচসেরা : নাঈম ইসলাম।
..
আবাহনী-দোলেশ্বর, মিরপুর
আবাহনী : ৪৯ ওভারে ২৫১ (জাফর ৭১, শান্ত ৭০, মিঠুন ৪১; আবু জায়েদ ৩/৪৭, ফরহাদ রেজা ১/৪৩, আরাফাত সানি ১/৩৭, সাইফ ২/৩৭)। প্রাইম দোলেশ্বর : ২৯.৪ ওভারে ৮৬ (সাইফ ১৩, মাহমুদুল ২৭*, এনামুল জুনিয়র ১৪; সাইফ ৫/৯, মাশরাফি ০/১৯, অপু ১/১৫, সৌম্য ১/১২, সানজামুল ২/২৩, মিরাজ ১/৭)। ফল : আবাহনী লিমিটেড ১৬৫ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা : মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন