Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

আলোকিত মানুষ তৈরির শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান কাগতিয়া মাদ্রাসা

পুরস্কার বিতরণী ও অভিভাবক সমাবেশে প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আবুল মনছুর

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : | প্রকাশের সময় : ১৬ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

ঐতিহ্যবাহী কাগতিয়া কামিল এম.এ. মাদ্রাসার চট্টগ্রাম মহানগর ক্যাম্পাসের বার্ষিক পুরস্কার বিতরণী সভা ও অভিভাবক সমাবেশ গত গত শনিবার অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আবুল মনছুর বলেন, দ্বীনি শিক্ষার পাশাপাশি একবিংশ শতাব্দির মাহেন্দ্রক্ষণে যে চ্যালেঞ্জ সবাইকে হাতছানি দেয় সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আধুনিক শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। সে উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে যুগোপযোগী করে শিক্ষার্থীদের গড়ে তুলতে সব ধরনের ব্যবস্থা রয়েছে কাগতিয়া মাদরাসায়।
মাদরাসার প্রিন্সিপালের অক্লান্ত শ্রম আর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এ মাদরাসায় সর্বদা যুক্ত হচ্ছে নিত্য নতুন ব্যবস্থা। বিনামূল্যে শিক্ষা সামগ্রী, থাকা খাওয়ার ফ্রী ব্যবস্থা, নিজস্ব পরিবহন সুবিধা সবকিছু রয়েছে এ মাদরাসায়। কাগতিয়া মাদরাসার মহানগর ক্যাম্পাসে অল্প কিছুদিনের মধ্যে উঠেছে সুরম্য বহুতল একাডেমিক ভবন। এছাড়া নিরিবিলি পরিবেশে সুবিশাল ক্যাম্পাস শিক্ষার্থীদের চিন্তা চেতনা বিকাশের জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।
সভাপতির বক্তব্যে বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী আলহাজ্ব সহিদুল করিম চৌধুরী বলেন, কাগতিয়া মাদরাসার অতীত ইতিহাস গৌরবের, বর্তমানও উজ্জ্বল, ভবিষ্যতেও এ মাদরাসা রইবে আপন মহিমায় সমুজ্জ¦ল। এ মাদরাসার জন্য রয়েছে কাগতিয়ার মরহুম পীর সাহেবের চোখের পানি। তাই এ মাদরাসার সংশ্লিষ্ট সকলে ভাগ্যবান। দিনদিন কাগতিয়া মাদরাসার উন্নতি সবাইকে স্মরণ করিয়ে দেয় এ মাদরাসার নেপথ্যের ইতিহাস। কাগতিয়া মাদরাসার ইতিহাস নবীপ্রেমিক তৈরির ইতিহাস, মুহাক্কিক তৈরীর ইতিহাস।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন নাজিরহাট বিশ^বিদ্যালয় কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল অধ্যাপক মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, অধ্যাপক মুহাম্মদ অলি আহাদ চৌধুরী, মোহাম্মদ নেজামুল হক প্রমুখ। শিক্ষকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন আরবি প্রভাষক মাওলানা মুহাম্মদ আবু বকর ছিদ্দিক ও কে.এম নোমান এবং অভিাবকদের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখেন অধ্যাপক মুহাম্মদ তছলিম উদ্দিন ও মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন।
পরে অতিথিরা চট্টগ্রাম মহানগর ক্যাম্পাসে জেডিসি এবং এবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী হতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তিপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের এবং বিগত বার্ষিক পরীক্ষায় বিভিন্ন শ্রেণিতে উত্তীর্ণ মাদ্রাসার কৃতী শিক্ষার্থীদের হাতে পুরস্কার ও ক্রেষ্ট তুলে দেন। বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এ মাদ্রাসা থেকে ২০১৮ সালের এবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ১৩ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে ৩ জন ট্যালেন্টপুলসহ মোট ৮ জন শিক্ষার্থী বৃত্তি পায়। এরমধ্যে উপজেলা ভিক্তিক একজন প্রথম স্থান অর্জন করে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কাগতিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ