Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৩ কার্তিক ১৪২৬, ১৯ সফর ১৪৪১ হিজরী

রোযা পালনে পরস্পরে সহযোগী হই

আবু মাইসারা মুনশী মুহাম্মাদ মহিউদ্দিন | প্রকাশের সময় : ১৯ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৬ এএম

এক

মাহে রমযান। তাকওয়া অর্জনের মাস। সহমর্মিতার মাস। প্রতি বছরই সংযম ও নেক আমলের বার্তা নিয়ে এ মাসের আগমন ঘটে। এ মাসের প্রতিটি দিনই সাহরী, ইফতার, তারাবীহ, নফল নামায, তিলাওয়াত, যিকির-আযকার ও দান-খয়রাতের মতো বহুবিধ ইবাদতের সমাহার। আর তাই এ মাসে মুসলমানদের দৈনন্দিন রুটিন, আমলের প্রস্তুতি, আমলের উপলক্ষ ও নেক কাজের আগ্রহ বরাবরই একটু ভিন্ন হয়ে থাকে। পাশাপাশি এ মাসের অনিবার্য বিষয় যেহেতু, শারীরিক অবসাদ ও ক্লান্তিবোধ, যা রোযার দীর্ঘ উপবাসের কারণে হয়ে থাকে-তাই এ সময় অন্যের একটু সহায়তা ও সহমর্মিতা খানিকটা হলে স্বস্তি এনে দিতে পারে রোযাদারের মনে।
সুতরাং বরকতপূর্ণ এই মাহে রমযানে রোযা ও অন্যান্য ইবাদতে বরকত লাভের একটি অনিবার্য অনুষঙ্গ হচ্ছে, পারস্পরিক সহযোগিতা ও সহমর্মিতা। তাছাড়া পারস্পরিক সহযোগিতা ও সহমর্মিতা একটি স্বতন্ত্র নেক আমলও। বলা বাহুল্য, মাহে রমযানে এর গুরুত্ব ও তাৎপর্য অন্যান্য ইবাদতের মতই বহু গুণে বৃদ্ধি পায়। নেক কাজ ও তাকওয়া অর্জনের ক্ষেত্রে অন্যের সহায়তা ও সহযোগিতা করা সম্পর্কে ইরশাদ হয়েছে, “তোমরা সৎকর্ম ও তাকওয়ার ক্ষেত্রে একে অন্যকে সহযোগিতা করবে। গুনাহ ও যুলুমের কাজে একে অন্যের সহযোগিতা করবে না। আল্লাহকে ভয় করে চলো। নিশ্চয়ই আল্লাহর শাস্তি অতি কঠিন।” -সূরা মায়েদা (৫) : ২
হাদীস শরীফে ইরশাদ হয়েছে-“যে ব্যক্তি কোনো মুসলমানের পার্থিব কষ্টসমূহের একটি দূর করে দেয়, আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের দিন তার একটি কষ্ট দূর করে দেবেন। যে ব্যক্তি কোনো অভাবীর অভাবের কষ্ট লাঘব করে, আল্লাহ তাআলা তার দুনিয়া ও আখেরাতের অভাবের কষ্ট লাঘব করবেন। যে ব্যক্তি কোনো মুসলমানের দোষ গোপন রাখবে, আল্লাহ তাআলা দুনিয়া ও আখেরাতে তার দোষ গোপন রাখবেন। আল্লাহ তাআলা বান্দার সহায়তায় থাকেন, যতক্ষণ বান্দা তার ভাইয়ের সহায়তায় থাকে।” -সহীহ মুসলিম, হাদীস ৩৮
আরেক হাদীসে এসেছে- “তোমাদের মধ্যে যে তার ভাইয়ের উপকার করার সামর্থ্য রাখে, সে যেন তা করে।” -সহীহ মুসলিম, হাদীস ৬১
‘শুআবুল ঈমান’ ও ‘সহীহ ইবনে খুযাইমা’র এক রেওয়ায়েতে রমযান মাস সম্পর্কে এসেছে- (রমযান মাস) সহানুভূতি ও সহমর্মিতার মাস। -শুআবুল ঈমান, হাদীস ৩৩৩৬; সহীহ ইবনে খুযাইমা, হাদীস ১৮৮৭
কুরআন ও সুন্নাহর বাণীগুলো এ বিষয়ে সুস্পষ্ট যে, নেক কাজে মুসলিম ভাইয়ের সহযোগিতা করা অনেক বড় নেক আমল। আল্লাহ তাআলা নিজেই এর আদেশ করেছেন এবং আল্লাহ তাআলা সহায়তাকারীর সাহায্যে থাকার সুসংবাদ দিয়েছেন। আর তা যদি হয় মাহে রমযানে! রোযাদারের সহযোগিতা করার কারণে! তাহলে তো ‘নূরুন আলা নূর’।
নেক কাজে মুসলিম ভাইয়ের সহযোগিতা, বিশেষভাবে রোযাদারের সহযোগিতা একটি বিশাল ও বিস্তৃত অধ্যায়। এখানে শুধু রোযাদারের সহযোগিতার কয়েকটি আঙ্গিক ও দিক সংক্ষিপ্তাকারে পেশ করছি। আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে এগুলোর উপর আমল করে রমযানের বরকতকে বহুগুণে বাড়িয়ে নেওয়ার তাওফিক দান করুন। আমীন।
ঘরের কাজে সহায়তা করি: প্রথমেই আসি ঘরের কাজে। রমযানের বাড়তি আয়োজনের সাথে সাথে ঘরের কাজও একটু বেড়ে যায়। সংসারের অন্যান্য কাজ ছাড়াও ইফতার, রাতের খাবার ও সাহরীর খাবার প্রস্তুতির বাড়তি একটা চাপ থাকে। তবে পারস্পরিক সহযোগিতা এই বাড়তি চাপ কাটিয়ে উঠতে বড় ভূমিকা পালন করতে পারে। যেমন, ঘরের কাজে সাধারণত যাদের প্রয়োজন পড়ে না তারা ঘরনির কাজে সহযোগিতা করতে পারেন। ঘরের পুরুষ লোকেরা স্ত্রী লোকদের সহায়তা করতে পারেন। পুত্রবধু শাশুড়ীর কাজে, শাশুড়ী পুত্রবধুর কাজে সহায়তা করতে পারেন। ননদ ভাবির কাজে, মেয়ে তার মায়ের কাজেও সহায়তা করতে পারেন ইত্যাদি।
আরেকটি বিষয়, বিশেষ প্রয়োজন না হলে মাহে রমযানে রান্নাবান্নার বিশাল বড় আয়োজন না করাই ভাল। যেমন, বন্ধুদের নিয়ে ইফতারির আয়োজন। অফিসের সকল কর্মচারিদের নিয়ে কোনো একজনের বাসায় বড় কোনো আয়োজন। আর যদি করতে হয়, তবে খেয়াল রাখতে হবে, ঘরনির উপর যেন বাড়তি চাপ না হয়ে যায়। আর যদি করতেই হয় তবে তাদের উপর যেন চাপ না হয় সে ব্যবস্থা করা। তা হতে পারে বাহির থেকে কিনে এনে আয়োজন করার মাধ্যমে কিংবা অন্য কোনোভাবে। মোটকথা খেয়াল রাখতে হবে, এ মাসে আমার দ্বারা যেন কোনো রোযাদারের কোনো কষ্ট না হয়, আমলে ব্যাঘাত না ঘটে। বরং আমি যেন তাদের কষ্ট লাঘব করতে পারি সে চেষ্টা করতে হবে।
সংযমী হই: ঘরের নারী সদস্যরাও রোযা রাখেন। এ মাসে অন্যান্য ইবাদতের পাশাপাশি নফল ইবাদতের আগ্রহ তাদেরও থাকে। রমযানের শারীরিক অবসাদ ও ক্লান্তিবোধ তাদেরও কোনো অংশে কম হয় না। এ ক্ষেত্রে তাদের কাজে যদি সহায়তা না-ও করতে পারি কমপক্ষে এটুকু তো করা উচিত যে, নিজেদের চাহিদা মতো কিছু না হলে অথবা কোনো কিছুর ঘাটতি হলে তা সহ্য করে নেওয়া। এটাও তাদের প্রতি সহমর্মিতার প্রকাশ। কিন্তু অনেককেই দেখা যায় সংযমের এ মাসেও তারা নিজেদের বিরক্তি ও ক্ষোভ লুকিয়ে রাখতে পারেন না। রান্নাবান্না একটু এদিক সেদিক হলে, খেদ প্রকাশ করে বিভিন্ন কথা বলে ফেলেন। এটা অবশ্যই সংযমের পরিপন্থী। এ ক্ষেত্রেও আমাদের সংযমী হওয়া উচিত।
নিজেও কিছু করি: অন্য সময় যাদের কাজের লোকের প্রয়োজন হয় না, রমযানে তাদেরও এর প্রয়োজন অনুভূত হয়। কিন্তু এ রমযানেই গৃহকর্মীদের প্রতি গৃহকর্তাদের কিছু দায়িত্ব চলে আসে- যদি গৃহকর্মীরা রোযাদার হয়। আর তা হচ্ছে, তাদের কাজে সহযোগিতা করা। বরং তাদের কাজ কিছুটা কমিয়ে দেওয়া যায়। যে কাজটা সে একা করবে তাতে নিজেও হাত লাগানো। না হলেও চলে, এমন কাজের জন্য তাদেরকে চাপ না দেওয়া। রোযার সময় তার নির্ধারিত দায়িত্ব থেকে কিছু কম সেবা গ্রহণ করেও তার সহায়তা করা যেতে পারে। এছাড়া অন্যান্য মাসের তুলনায় রমযানে তার পারিশ্রমিক কিছুটা বাড়িয়ে দেওয়া যায়। এটাও এক ধরনের সহায়তা। তবে এমন যেন না হয় যে, হাদিয়া কিংবা বোনাস দেওয়ার নাম করে আপনি এ কথা ভাববেন- বোনাস তো দেবোই, কিছু কাজ বেশি করলে ক্ষতি কী। তাহলে এটা আর রোযাদারের প্রতি আপনার সহমর্মিতা হল না। রোযাদারের প্রতি সম্মান ও রমযানে গৃহকর্মীদের প্রতি সদয় ও সদাচারের দাবি হল, তার কাজ কমিয়ে দিয়ে পারিশ্রমিক বেশি দেওয়া। তাহলেই আপনি সুসংবাদের সৌভাগ্যবান অধিকারী হতে পারবেন। এক রেওয়ায়েতে বর্ণিত হয়েছে- যে ব্যক্তি এ মাসে নিজের অধীনস্থদের কাজের চাপ কমিয়ে দেয়, আল্লাহ তাআলা তাকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেবেন। -শুআবুল ঈমান, হাদীস ৩৩৩৬; সহীহ ইবনে খুযাইমা, হাদীস ১৮৮৭
কাজের সময় কমিয়ে দিন: প্রতিষ্ঠানের রোযাদার কর্মচারীদের কাজের সময় বা ‘ওয়ার্ক টাইম’ কমিয়ে দিয়ে তাদের সহযোগিতা করা যেতে পারে। অন্য সময় একজন কর্মচারীর কাছ থেকে সাধারণত যেটুকু সময় কাজ নেওয়া হয়, রমযানে কিছুটা কমিয়ে তাদের ক্লান্তিবোধের প্রতি সদয় হওয়া এবং তাদের কষ্ট লাঘব করা অবশ্যই অত্যন্ত সাওয়াবের কাজ হবে। এটা এভাবেও হতে পারে যে, সময় কমিয়ে পূর্ণ উদ্যমে কাজ করানোর ব্যবস্থা করা। এতে কর্মচারীদেরও একটু সহযোগিতা হবে আবার কর্মকর্তারও কাজের ঘাটতি হবে না। কিন্তু কর্মচারীর জন্য রোযার কারণ দেখিয়ে কাজে অলসতা ও অবহেলা করা কোনোক্রমেই উচিত হবে না।



 

Show all comments
  • শফিউর রহমান ২৪ এপ্রিল, ২০১৯, ১১:৫৯ এএম says : 0
    মাননীয় সরকার প্রধান/ধর্ম/শিক্ষা/তথ্য মন্ত্রনালয়ের কাছে বিশেষ অনুরোধ আর মাত্র কিছুদিন পর পবিত্র রমজানুল মোবারক । সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে সরকারী এবং বেসরকারী স্কুল/কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয় গুলি রমজানের পবিত্রতার জন্য বন্ধ ঘোষনা করা হউক । আমার বয়স ৬০ বৎসর হয়ে গেলো বহু কিছু দেখেছি কিন্তু বর্তমান সামাজিক অবক্ষয় এত বেশী দেখা দিয়েছে তা কখনো ভাবিনি বা দেখিনি । রমজান মাস আসলে বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকার কারনে ছেলে মেয়েরা যে ভাবে শরীর প্রর্দশন করে চলা ফিরা করে তা ভাষায় প্রকাশ করা যায়না । বেপর্দা অবস্তায় সিগারেট সহ খাদ্য সামগ্রি রোজাদারদের সমু্ক্ষে অহরহ চালায় যা রোজাদারদের মনে খোভ সন্চার হয় । মনে হয় যেন আমরা একটা পচ্সিমা দেশে বাস করতেছি । তার জন্য অনুরোধ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো রমজানের প্রথম হতে বন্ধ ঘোশনার জন্য । আমরা জানি পবিত্র কোরান হাদিচে কোথাও কোন যায়গায় মোহান আল্লাহর নাম খোদা লিখা বলে না্ ি । মোহান আল্লাহর ৯৯ টি নাম আছে তার মধ্যে খোদা লিখা না। খৃষ্ঠানরা খোদা ডাকে মুসলমানরা না । বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রায় শুনা/দেখা যায় খোদা উচ্চারন করে পর্ব শেষ করেন । এটা বন্ধ করার জন্য অনুরোধ রাখলাম । অন্তত রমজান মাষে রমজানের পবিত্রতার জন্য সমস্ত টেলিভীষন চেনেল গুলোকে শালিনতা বজায় রেখে অনুষ্ঠান মালা প্রচার করার জন্য এবং শালিনতা মাপিক পোশাখ পরিচ্ছেদ ব্যবহার করার জন্য । মোহান আল্লহ আমদের দেশের মুসলমানদেরকে ঈমান ধান করুন । ইনকিলাব পত্রিকার কাছে অনুরোধ কথাগুলো ভাল ভাবে প্রচার করার জন্য ।
    Total Reply(0) Reply
  • শফিউর রহমান ২৪ এপ্রিল, ২০১৯, ১:৪৮ পিএম says : 0
    মাননীয় সরকার প্রধান/ধর্ম/শিক্ষা/তথ্য মন্ত্রনালয়ের কাছে বিশেষ অনুরোধ আর মাত্র কিছুদিন পর পবিত্র রমজানুল মোবারক । সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে সরকারী এবং বেসরকারী স্কুল/কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয় গুলি রমজানের পবিত্রতার জন্য বন্ধ ঘোষনা করা হউক । আমার বয়স ৬০ বৎসর হয়ে গেলো বহু কিছু দেখেছি কিন্তু বর্তমান সামাজিক অবক্ষয় এত বেশী দেখা দিয়েছে তা কখনো ভাবিনি বা দেখিনি । রমজান মাস আসলে বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকার কারনে ছেলে মেয়েরা যে ভাবে শরীর প্রর্দশন করে চলা ফিরা করে তা ভাষায় প্রকাশ করা যায়না । বেপর্দা অবস্তায় সিগারেট সহ খাদ্য সামগ্রি রোজাদারদের সমু্ক্ষে অহরহ চালায় যা রোজাদারদের মনে খোভ সন্চার হয় । মনে হয় যেন আমরা একটা পচ্সিমা দেশে বাস করতেছি । তার জন্য অনুরোধ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো রমজানের প্রথম হতে বন্ধ ঘোশনার জন্য । আমরা জানি পবিত্র কোরান হাদিচে কোথাও কোন যায়গায় মোহান আল্লাহর নাম খোদা লিখা বলে না্ ি । মোহান আল্লাহর ৯৯ টি নাম আছে তার মধ্যে খোদা লিখা না। খৃষ্ঠানরা খোদা ডাকে মুসলমানরা না । বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রায় শুনা/দেখা যায় খোদা উচ্চারন করে পর্ব শেষ করেন । এটা বন্ধ করার জন্য অনুরোধ রাখলাম । অন্তত রমজান মাষে রমজানের পবিত্রতার জন্য সমস্ত টেলিভীষন চেনেল গুলোকে শালিনতা বজায় রেখে অনুষ্ঠান মালা প্রচার করার জন্য এবং শালিনতা মাপিক পোশাখ পরিচ্ছেদ ব্যবহার করার জন্য । মোহান আল্লহ আমদের দেশের মুসলমানদেরকে ঈমান ধান করুন । ইনকিলাব পত্রিকার কাছে অনুরোধ কথাগুলো ভাল ভাবে প্রচার করার জন্য ।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন