Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

মোকাব্বির খানকে শোকজ নোটিশ দিচ্ছে গণফোরাম

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ গ্রহণ করায় গণফোরামের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোকাব্বির খানকে শোকজ নোটিশ পাঠাচ্ছে দলটি। গতকাল আরামবাগে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। দলটির প্রশিক্ষণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম পথিক এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট ডাকাতি ও নানা অনিয়মের প্রতিবাদে নির্বাচন বর্জন করে গণফোরাম। সেই সঙ্গে নির্বাচিত এমপিরা সংসদে শপথ না নেয়ারও সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু দলের এই সিদ্ধান্তকে অমান্য করে এমপি হিসেবে শপথ গ্রহণ করায় মোকাব্বির খানের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবে দল। এরই অংশ হিসেবে মোকাব্বির খানকে প্রথমে শোকজ করা হচ্ছে। দলের সিদ্ধান্ত অমান্য তথা শৃংখলা ভঙ্গের কারণে কেন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না মর্মে তাকে শোকজ নোটিশটি আগামীকাল বা পরদিন পাঠানো হবে।
এটি দলের শীর্ষ নেতারা বসে সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এর পর শোকজ নোটিশের উপযুক্ত কারণ দর্শাতে না পারলে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে গণফোরামের নীতি নির্ধারণী ফোরাম। তখন দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত আসতে পারে।
সিলেট-২ (বিশ্বনাথ ও ওসমানীনগর) আসন থেকে গত ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে গণফোরামের ঊদীয়মান সূর্য্য প্রতীকে নির্বাচন করেন মোকাব্বির খান। তিনি জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইয়াহইয়া চৌধুরীকে পরাজিত করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে সিলেট-২ আসনে নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনাকে মনোনয়ন দেয়া হয়। পরবর্তীতে মোকাব্বির খান ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী লুনাকে সমর্থন দিয়ে লন্ডনে তার কর্মস্থলে চলে যান। কিন্তু নির্বাচনী প্রচারণা চলার সময় লুনার প্রার্থিতা বাতিল হলে ঐক্যজোটের সমর্থন পান মোকাব্বির খান।
প্রসঙ্গত দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে সংসদ সদস্য হিসাবে শপথ গ্রহণ করলে দল থেকে তাদের বহিস্কার করলেও সংসদ সদস্যপদ শূন্য হবে কিনা সে বিষয় নিয়ে চলছে নানান আলোচনা।
সংসদ সদস্যের আসন শূন্য হওয়া সংক্রান্ত সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘কোন নির্বাচনে কোন রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরূপে মনোনীত হইয়া কোন ব্যক্তি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হইলে তিনি যদি (ক) উক্ত দল হইতে পদত্যাগ করেন অথবা (খ) সংসদে উক্ত দলের বিরুদ্ধে ভোট দান করেন তাহা হইলে তাঁহার আসন শূন্য হইবে, তবে তিনি সেই কারণে পরবর্তী কোন নির্বাচনে সংসদ সদস্য হইবার অযোগ্য হইবেন না।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ