Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০১ কার্তিক ১৪২৬, ১৬ সফর ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

নির্মমতা...

উলিপুর (কুড়িগ্রাম) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২৩ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

ছোট শিশু আশামনি (৪) দুই দিন থেকে অনাহারে। খেতে চাইতেই মারধর শুরু করেন বাবা-মা। সারা শরীরের আঘাতের চিহ্ন নিয়ে গুরুতর আহত আশামনি উলিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। নির্দয়ভাবে শিশুটিকে মারধরের কারণে গ্রামবাসী পাষণ্ড বাবা আশরাফুল ইসলামকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে। গতকাল সোমবার দুপুরে উপজেলার ধরনীবাড়ি ইউনিয়নের মাদারটারী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী পাষণ্ড বাবা-মায়ের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছেন।
জানা গেছে, উপজেলার ধরনীবাড়ি ইউনিয়নের মাদারটারি গ্রামের আবুল কাশেমের পুত্র আশরাফুল আলম ও তার স্ত্রী ফাতেমা বেগমের কন্যা সন্তান আশামনিকে কারণে অকারণে প্রতিনিয়ত শারিরীক নির্যাতন করে আসছিল। এরই এক পর্যায়ে ঠুনকো ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারধর করে গত দুই দিনধরে অনাহারে রাখে শিশুটিকে। সোমবার সকাল থেকে ক্ষুধার্ত শিশু আশামনি খেতে চাইলে আবারও তার উপর পাশবিক নির্যাতন চালানো হয়। পরে দুপুরে খাবারের জন্য ছটফট শুরু করলে বাবা আশরাফুল আলম ও মা ফাতেমা বেগম শিশুটির মুখ বেঁধে বেধড়ক মারপিট শুরু করে। এ ঘটনা আশপাশে বাড়ির লোকজন এসে তাদের নিবৃত করার চেষ্টা করলেও শিশুটিকে নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা করতে পারেনি। পরে শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়লে এলাকাবাসী শিশুটি উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে এবং পাষণ্ড বাবা-মাকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ শিশুটির বাবাকে আটক করে থানা নিয়ে আসে।
শিশুর চাচা জহুরুল ইসলাম বলেন, প্রতিনিয়ত তার ছোট ভাই আশরাফুল শিশুটিকে মারপিট করে। বহুবার আমি তাকে অনুরোধ করার পরও ক্ষান্ত হয়নি। তিনি আরও জানান, আশামনির বাবা-মা তার জন্মের পর তাকে তার ফুফুর কাছে রেখে ঢাকায় গার্মেন্টসে চাকরি করত। বাড়ি ফিরে এসে আশামনি কে তাদের কাছে ফিরে নিলেও সে তার ফুফুকেই মা বলে ডাকে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বাবা-মা মিলে শিশু আশামনিকে নির্যাতন করত।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত চিকিৎসক উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার ডা. জসিম উদ্দিন সরকার বলেন, কোন বাবা-মা নিজের সন্তানকে এভাবে নির্যাতন করতে পারে তা কোন দিন দেখিনি। শিশুটির চিকিৎসা চলছে। অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, অভিযুক্ত শিশুটির পিতা আশরাফুল আলমকে আটক করা হয়েছে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ