Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৬ কার্তিক ১৪২৬, ২২ সফর ১৪৪১ হিজরী

স্বপ্না-কৃষ্ণাদের ছাড়াই অনুশীলন

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ এপ্রিল, ২০১৯, ৯:০৮ পিএম

বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ মহিলা আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে সোমবার সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ২-০ গোলে হারিয়ে স্বস্তিতেই আছে স্বাগতিক বাংলাদেশ শিবির। ম্যাচের পর দিন মঙ্গলবার দুপুরে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ নারী দলের অনুশীলনের সিডিউল থাকলেও এতে ছিলেন না আমিরাত ম্যাচে খেলা বাংলাদেশ স্কোয়াডের ১৪ খেলোয়াড়ের কেউই। এদিন দুপুর সোয়া ১২টায় কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন ভবন সংলগ্ন টার্ফে অনুশীলনে নামেন ্আমিরাত ম্যাচে যারা খেলার সুযোগ পাননি তাদের নিয়ে। এক ঘন্টার এই অনুশীলনে আরো ছিলেন বাফুফে’র ক্যাম্পে থাকা বিভিন্ন বয়সভিত্তিক দলের মেয়েরা।

অনূর্ধ্ব-১৯ দলের মেয়েদের অনুশীলনের সিডিউল দিয়েও কেন তা বাতিল করলেন? অনুশীলন শেষে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে কোচ ছোটন বলেন,‘মেয়েরাতো আগের দিনই ৯০ মিনিট অনুশীলন করলো। আজ (মঙ্গলবার) তাদের রিকভারির প্রয়োজন ছিল সেটা করেছে। যারা ম্যাচ খেলেছিল তারা আইসবাথ, সাইক্লিংসহ ফিজিক্যাল এক্সারসাইজগুলো করেছে।’

প্রথম ম্যাচের ভুল-ত্রুটিগুলো শুধরে পরের ম্যাচে যাতে মেয়েরা আরো ভালো খেলা উপহার দেয় এটাই কোচের লক্ষ্য। তিনি জানান, দ্বিতীয় ম্যাচের আগে সামনের দু’দিন আক্রমণভাগ নিয়েই বেশি কাজ করবেন। ছোটন বলেন, ‘ফিনিশিং দূর্বলতার জন্য আরব আমিরাতের বিপক্ষে আমরা বড় ব্যবধানে জিততে পারিনি। মেয়েরা সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয়েছে। কিরগিজস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে এ জায়গাটা নিয়েই আমি কাজ করবো, যাতে সামনের ম্যাচে ভুল কম হয়।’

তবে টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে দলের পারফরম্যান্সে বেশ সন্তুষ্ট কোচ ছোটন। তার কথায়,‘সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে ম্যাচে সব কিছুই ছিল আমাদের আয়ত্বে। শুধু ফিনিশিংটাই ভালো হয়নি। ৯০ মিনিটই আমার মেয়েরা ডমিনেট করেছে। আমার নির্দেশনাই ছিল প্রথম মিনিট থেকে প্রতিপক্ষকে চেপে ধরার। কারণ, দর্শক মাঠে আসবে, তাদেরকে উপভোগ্য খেলা উপহার দিতে হবে। খেলোয়াড়রা আমার নির্দেশ পালন করেছে।’

ফরোয়ার্ড তহুরাকে কেন নামানো হয়নি? এর ব্যাখ্যায় ছোটন, ‘মার্জিয়া নেমে ভালো ফুটবল খেলেছে। মারিয়ার জায়গায় নেমে রতœাও ভালো খেলেছে। আর সাজেদা’র কথা কি বলবো? সেতো আমার গুরুত্বপূর্ণ একজন ফুটবলার। ওরাওতো খারাপ করেনি। তহুরাকে আগামীতে সুযোগ দেয়া হবে।’

এদিকে অনুশীলনে না থাকলেও বাফুফে ভবনস্থ ক্যাম্পে থাকা বাংলাদেশ অনুর্ধ্ব-১৯ নারী দলের অধিনায়ক মিসরাত জাহান মৌসুমী ও আমিরাত ম্যাচের প্রথম গোলদাতা সিরাত জাহান স্বপ্না মঙ্গলবার কোচের নির্দেশে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন।

অধিনায়ক মৌসুমী বলেন, ‘আমিরাতের বিপক্ষে দুই গোলে জেতার পর নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেছি। ভুলগুলো শুধরে সামনে এগিয়ে যেতে চাই আমরা। আমাদের পরের ম্যাচ কিরগিজস্তানের বিপক্ষে। ওরা খুব শক্তিশালী। আমরা প্রতি ম্যাচকেই গুরুত্ব সহকারে নিয়েছি। চেষ্টা থাকবে কিরগিজস্থানের বিপক্ষেও ফাইটিং খেলা উপহার দেয়ার।’

সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে দুই গোলের জয়ের প্রথমটি করেছিলেন ফরোয়ার্ড স্বপ্না। মিসও করেছেন গোটা তিনেক। তা না হলে নির্ঘাত হ্যাটট্রিক পেতে তিনি। আগামী ম্যাচগুলোয় এভাবে সুযোগ যাতে নষ্ট না হয় সেদিকে সতর্ক থাকবেন উল্লেখ করে স্বপ্না বলেন, ‘সামনের ম্যাচে যেন এভাবে গোল মিস না হয় তা নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে আমাকে। সুযোগ পেলে কাজে লাগাতে চাইব।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল

১৯ অক্টোবর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ