Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬, ১৪ সফর ১৪৪১ হিজরী

বিতর্কে প্রধানমন্ত্রী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ এপ্রিল, ২০১৯, ১২:০৩ এএম

মধ্যপ্রাচ্যে আইএস-এর হয়ে কাজ করে মৃত্যুবরণ করেছে এমন নরওয়ে নাগরিকের অনাথ শিশু সন্তানদের ফিরিয়ে নেবে নরওয়ে। জাতীয় সম্প্রচার কেন্দ্র এনআরকে-কে দেয়া সাক্ষাতকারে নরওয়ের প্রধানমন্ত্রী এরনা সোলবার্গ এ কথা জানিয়ে বলেছেন, ‘আমরা দেশে আইএস যোদ্ধাদের ফিরিয়ে আনতে চাই না, তাদের স্ত্রীদেরও নিয়ে আসতে চাই না, কিন্তু আমরা তাদের অনাথ শিশু সন্তানদের ফিরিয়ে আনার পথ তৈরির চেষ্টা করব।’
এই ঘোষণা নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে দেশটির রাজনৈতিক মহলে। ঘোষণার বিরোধিতা করেছেন দেশটির প্রগ্রেস পার্টির এমপি ও সাবেক আইনমন্ত্রী পার উইলি অ্যামান্ডসেনসহ অনেকে। উইলি অ্যামান্ডসেন বলেন, ‘মানুষ ব্যথিত। এর অর্থ হলো, আমরা বাড়িতে এমন বাচ্চাদের ফিরিয়ে আনতে পারি যারা সন্ত্রাসী প্রশিক্ষণ পেয়েছে। এটি মারাত্মক সমস্যা সৃষ্টি করবে।’
তবে, দেশটির লিবারেল ও কনজারভেটিভ জোট প্রধানমন্ত্রীর এ পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়েছে। লিবারেল পার্টির পার্লামেন্টারি ভাইস প্রেসিডেন্ট আবিদ রাজা বলেছেন, প্রস্তাবিত ব্যবস্থাই যথেষ্ট নয়। তিনি বলেন, ‘মৃত আইএস সদস্যদের ৪০টি শিশু সন্তানকে খুঁজে বের করতে হবে। আমি অন্য শিশুদের জন্যও একটি তহবিলের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করবো। একেবারেই অনাথ এবং মা আছে এমন শিশুদের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। কিন্তু এখনো আমি বিশ্বাস করি, সব শিশুকে সমানভাবে দেখা উচিত।’
নরওয়ের পুলিশ সিকিউরিটি সার্ভিস (পিএসটি) এর ধারণা অনুযায়ী নরওয়ের অন্তত ৩০ জিহাদি শিশু এবং ৪০ আইএস সদস্যের শিশু সন্তান সিরিয়ায় আটক রয়েছে। তবে এরনা সোলবার্গ-এর মতো রক্ষণশীল প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণা চমকে দিয়েছে সেদেশের নাগরিকদের। কেননা, এর আগে মধ্যপ্রাচ্যের শরণার্থীদের প্রত্যাবাসনকে সেদেশের নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরূপ হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন এরনা। তার ওই বক্তব্যকে ওই সময় ‘অবিবেচনাপ্রসূত’ ও ‘হতাশাজনক’ হিসেবে অভিহিত করেছিল সেদেশের প্রোগ্রেস পার্টি ও রক্ষণশীল ডানপন্থি জোট। সূত্র: স্পুটনিক নিউজ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন