Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬, ২৩ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

ফখরুলের আসন শূন্য ঘোষণা

সমঝোতা হলে খোলাসা করুন : মান্না

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১ মে, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

নির্দিষ্ট সময়ে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ না নেওয়ায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের আসনটি শূন্য হয়ে গেল, ফলে বগুড়া-৬ আসনটিতে নতুন করে ভোটের উদ্যোগ নেবে নির্বাচন কমিশন। গতকাল মঙ্গলবার রাতে সংসদ অধিবেশনে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী এই ঘোষণা দেন। অন্যদিকে বিএনপির নির্বাচিত চারজনের শপথ গ্রহণের পেছনে কোনো সমঝোতা আছে কি না, তা খোলসা করার আহŸান জানিয়েছেন মাহমুদুর রহমান মান্না। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উপস্থিতিতে গতকাল মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানে তাদের জোটসঙ্গী এই নেতা বলেন, যদি সমঝোতা হয় তা হলে সেই সমঝোতাটা খোলাখুলি বলেন, কী সমঝোতা হয়েছে? তার প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেছেন, বিএনপি সমঝোতা করলে অনেক আগেই সমঝোতা করতে পারত। বেগম খালেদা জিয়া যদি সমঝোতা করতেন তাহলে উনি প্রধানমন্ত্রী থাকতেন, অন্য কেউ প্রধানমন্ত্রী হতে পারতেন না, এই কথাগুলো আপনাদের মনে রাখতে হবে।
এদিকে নির্দিষ্ট সময়ে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ না নেওয়ায় বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের আসনটি শূন্য হয়ে গেল, ফলে বগুড়া-৬ আসনটিতে নতুন করে ভোটের উদ্যোগ নেবে নির্বাচন কমিশন। গতকাল মঙ্গলবার রাতে সংসদ অধিবেশনে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী এই ঘোষণা দেন। একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত পাঁচজন সংসদ সদস্য নানা নাটকীয়তার পর শপথ নিলেও দলটির মহাসচিব ফখরুল নেননি। তিনি বলেছেন, দলীয় সিদ্ধান্তেই তিনি শপথ নেওয়া থেকে বিরত থাকছেন। এটা তাদের ‘কৌশলেরই অংশ’। সেক্ষেত্রে ফখরুলের বিষয়ে কী হবে- এ প্রশ্নের জবাবে স্পিকার শিরীন শারমিন বলেন, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শপথ না নিলে সংবিধান অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
সংবিধানের ৬৭ (১) এর ‘ক’ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, কোনো নির্বাচনের পর সংসদের প্রথম বৈঠকের তারিখ থেকে ৯০ দিনের মধ্যে শপথ নিতে না পারলে ওই সংসদ সদস্যের আসন শূন্য হবে। তবে এই ৯০ দিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে স্পিকার যথার্থ কারণে তা বাড়াতে পারবেন।
একাদশ সংসদের কার্যক্রম গত ২৯ জানুয়ারি শুরু হওয়ায় ৯০ দিনের সেই সময়সীমা গত সোমবার পেরিয়ে যায়। শেষ দিনে বিএনপির চারজন সংসদ সদস্য শপথ নেন, তার তিন দিন আগে নেন আরেকজন। বিএনপি মহাসচিব শপথ নিতে কোনো আবেদনও করেননি বলে জানান স্পিকার।
রাতে সংসদের অধিবেশনে শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, সংবিধান অনুযায়ী সংসদের প্রথম বৈঠক থেকে ৯০ দিনের মধ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর শপথ নিতে অসমর্থ হওয়ায় তার আসনটি শূন্য হয়েছে। জাতীয় সংসদের কোনো আসন শূন্য হলে কার্যপ্রণালী বিধি অনুযায়ী তা সংসদকে জানাতে হয়; সেটাই জানান স্পিকার।
কার্যপ্রণালী বিধির ১৭৮ (৩) বিধিতে বলা আছে, যদি কোনো সদস্য তার আসন থেকে পদত্যাগ করেন কিংবা সংসদের অনুমতি না নিয়ে একাধিক্রমে ৯০ দিন বৈঠকে অনপুস্থিত থাকেন, কিংবা সংবিধানের ৬৭ অনুচ্ছেদের (১) (ক) দফায় উল্লেখিত নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শপথগ্রহণ করতে ও শপথ-পত্রে স্বাক্ষর প্রদান করিতে ব্যর্থ হন কিংবা অন্য কোনোভাবে সদস্য না থাকেন, তাহলে সংসদ অধিবেশনে থাকলে স্পিকার তা সংসদের গোচরে আনবেন। তবে শর্ত থাকে যে, সংসদ অধিবেশনে না থাকলে পরবর্তী অধিবেশন আরম্ভ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই স্পিকার সংসদকে জানাবেন যে, অধিবেশন মধ্যবর্তী সময়ে ওই সদস্য পদত্যাগ করেছেন বা সদস্যপদ হারিয়েছেন।
ভোটের পর বিএনপি শপথ না নেওয়ার ঘোষণা দিলে ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেছিলেন, কেউ ৯০ দিনের মধ্যে শপথ না নিলে ওই আসন শূন্য ঘোষণার পর নতুন নির্বাচনের উদ্যোগ নেবেন তারা।
নানা নাটকীয়তার মধ্যে একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেওয়ার পর ফখরুল দুটি আসনে ভোটের লড়াইয়ে নেমেছিলেন। নিজের জেলা ঠাকুরগাঁও-১ আসনে তিনি হারলেও বিজয়ী হন দলীয় প্রধান খালেদা জিয়ার আসন বগুড়া-৬ এ। ৩০ ডিসেম্বরের ওই নির্বাচনে ভোট ডাকাতির অভিযোগ তুলে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট পুনর্নিরবাচনের দাবি তোলে। সেই সঙ্গে ঘোষণা দেয়, তাদের জোট থেকে বিজয়ীরা শপথ নেবেন না। কিন্তু কিছু দিন পর ঐক্যফ্রন্ট থেকে বিজয়ী গণফোরামের দুজন শপথ নিয়ে ফেলেন; এরপর গত ২৫ এপ্রিল বিএনপির একজন শপথ নেওয়ার পরও আগের সিদ্ধান্তে অটল থাকার কথাই জানিয়েছিল বিএনপি।
কিন্তু ২৯ এপ্রিল চারজন শপথ নেওয়ার পর ফখরুল সংবাদ সম্মেলন করে জানান, দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে ওই চারজন শপথ নিয়েছেন। তার শপথের বিষয়ে গত সোমবারের সংবাদ সম্মেলনে স্পষ্ট কিছু বলেননি ফখরুল; তবে একদিন বাদে জানান, তিনি সংসদে যাচ্ছেন না। ###

 



 

Show all comments
  • Imran Qatar ১ মে, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
    নি:সন্দেহে ফখরুল সাহেব একজন স্বার্থহীন রাজনীতিবীদ। যিনি তার আদর্শের উপর অবিচল থেকেছেন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mahbub Hasan ১ মে, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
    গয়েশ্বর বলেন, দলের সিদ্ধান্ত যদি শপথ নেওয়ারই হতো তাহলে তো মহাসচিব শপথ না নিয়ে দলের সিদ্ধান্ত ভঙ্গ করেছেন।
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১ মে, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
    তিনি নিজেকে বিসর্জন দিলেন। তাঁকে সবাই ক্ষমা করে দেবেন। হয়তো শীঘ্রই নতুন কিছু খবর পাবেন।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Khalilur Rahman ১ মে, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
    উপনির্বাচনে খালেদাকে এমপি বানানোর পরিকল্পনা বলে মনে হচ্ছে।
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১ মে, ২০১৯, ১:১৪ এএম says : 0
    প্রয়োজনে রাজনীতি ছেড়ে দিন, তাও এমন সংসদে শপথ নিয়েন না । বলে দিন এ কথা স্পষ্ট করে ।
    Total Reply(0) Reply
  • NAhmed ১ মে, ২০১৯, ১:১৫ এএম says : 0
    শিগগিরই স্বনির্বাচিত হবে আওয়ামী লীগের কেউ, মোক্ষম সময় কারো এই সুযোগ হাতছাড়া করা উচিত হবে না...
    Total Reply(0) Reply
  • নবীন ১ মে, ২০১৯, ১:১৫ এএম says : 0
    আ: লীগের সাথে রাজনীতি করার সাধ!
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Ruhul Amin ১ মে, ২০১৯, ১:১৫ এএম says : 0
    বিএনপি আসলে ভুলের চোরাবালিতে ডুবে যাচ্ছে। তাদের 5 জন নির্বাচিত এমপিকে সামলাতে না পেরে রাত্রে জানাল যে তাদের সম্মতি দেয়া হয়েছে। সম্মতি যদি দিয়ে থাকে, তাহলে মহাসচিব বাদ কেন? আসলে সম্মতি দেননি, তাদের কথা না শুনে পাঁচজন শপথ গ্রহণ করেছেন। এটা বুঝতে রকেট বিজ্ঞানী হওয়ার প্রয়োজন নেই। দলের শীর্ষ নেতারা চান নাই যে এইসব জুনিয়ার নেতারা এমপি হিসাবে পরিচিতি পাক। দলের সিনিয়র নেতারা বিএনপিকে বিপদগ্রস্ত করছে। অনেকে চায় না ফখরুল সাহেব মহাসচিব থাক। কিছুদিনের মধ্যেই আমরা আরো অনেক নাটক দেখতে পাবো।
    Total Reply(0) Reply
  • নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ১ মে, ২০১৯, ১:১৬ এএম says : 0
    রাত্রিকালীন নির্বাচনে আসন শূন্য আর পূর্ণ।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ১ মে, ২০১৯, ১:২৭ এএম says : 0
    সাব্বাস ফখরুল ইসলাম। আপনি জাতীয় বীর। এই যে নিরবাচন কমিশন আর নিরবাচন আর সংসদ এ সবই তো বানোয়াট আর মিত্যা আর চুরিতে ভরা। ভোট চুন্নিরা ধিক্কার। ইনশাআল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ১ মে, ২০১৯, ১:২৭ এএম says : 0
    সাব্বাস ফখরুল ইসলাম। আপনি জাতীয় বীর। এই যে নিরবাচন কমিশন আর নিরবাচন আর সংসদ এ সবই তো বানোয়াট আর মিত্যা আর চুরিতে ভরা। ভোট চুন্নিরা ধিক্কার। ইনশাআল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মির্জা ফখরুল


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ