Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

রোহিঙ্গাদের নিতে আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে হবে

কাজী রিয়াজুল হক

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১ মে, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

রোহিঙ্গা সংকট মিয়ানমারের তৈরি। বাংলাদেশের একাধিক আশ্রয়কেন্দ্রের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর নিরাপদে এবং পূর্ণ নাগরিক অধিকার নিয়ে মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ায় এই সংকটের সমাধান। বেসরকারি উন্নয়নমূলক সংস্থা ব্র্যাক আয়োজিত ‘রিফ্লেকশন অব রোহিঙ্গা ক্রাইসিস ঃ সিন্স অ্যান্ড বিয়ন্ড’ শীর্ষক এক কর্মশালায় বক্তারা এমন মন্তব্য করেন। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়।
কর্মশালায় বক্তারা আরও বলেন, রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে হবে; যেন রোহিঙ্গাদের নিরাপদে ফেরার জন্য মিয়ানমার উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করতে বাধ্য হয়।
ব্র্যাকের পরিচালক সাজেদুল হাসানের সঞ্চালনায় কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক, এনজিও ব্যুরোর মহাপরিচালক কে এম আব্দুস সালাম, শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম। কর্মশালায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি স্টিফেন করেস। এ ছাড়া হার্ভার্ড এফএক্সবি সেন্টার ফর হেলথ অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের সহকারী অধ্যাপক ড. সাচিথ বালসারি কর্মশালায় প্রযুক্তির মাধ্যমে যোগ দিয়ে ‘হোয়াট ইজ দ্য কেরিং ক্যাপাসিটি অব কক্সবাজার?’ শীর্ষক একটি গবেষণা কাজের ফলাফল উপস্থাপন করেন।
জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক বলেন, রোহিঙ্গা বিষয়ক কাজের মূল বিষয়ই হচ্ছে, তাদেরকে মিয়ানমারে ফিরে যেতে হবে। প্রত্যাবাসনই এই সংকটের একমাত্র সমাধান। তাই মিয়ানমারের প্রতি আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি করতে হবে, যাতে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে বাধ্য হয়। রাখাইনে মিয়ানমার যা করেছে তা জাতিগত নিধনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, এটি পুরোপুরি গণহত্যা। তাই মিয়ানমারের সংশ্লিষ্টদের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের বিচারের মুখোমুখি অবশ্যই হতে হবে।
জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি স্টিফেন করেস বলেন, ১৯৭০ সালে রোহিঙ্গারা নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে এসেছে। এরপর ১৯৯০, ২০১২, ২০১৬ সালে এসেছে। সবশেষ ২০১৭ সালে এসে আশ্রয় নিয়েছে। এই সংকট মিয়ানমারের সৃষ্টি করা, যার সমাধানও মিয়ানমারের হাতেই। ##

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রোহিঙ্গা


আরও
আরও পড়ুন