Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬, ১৭ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

স্বামীর দেয়া আগুনে ৪ দিন পর দীপিকার মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার, চাঁদপুর থেকে | প্রকাশের সময় : ৩ মে, ২০১৯, ৯:০২ পিএম | আপডেট : ৭:৫৪ এএম, ৪ মে, ২০১৯

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে স্বামীর দেয়া আগুনে অগ্নিদগ্ধ দীপিকা ৪ দিন ঢাকা মেডিকেলে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মৃত্যুবরণ করেছে। বিষয়টি তার বড় ভাই অরবিন্দ আশ্চার্য্য নিশ্চিত করেছে। এর আগে গত ৩০ এপ্রিল দীপিকা আশ্চার্য্যের গায়ে কেরোসিন ঢেলে তার স্বামী বিপুল আশ্চার্য আগুন ধরিয়ে দেয়। এ ঘটনায় গৃহবধুর ভাই তিনজনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ গৃহবধুর স্বামীসহ তিনজনকে আটক করেছে।
আগুনে পুড়ে যাওয়া গৃহবধু দীপিকা আচার্য্য মনিকা (২৬) বাবার বাড়ি নরসিংদী জেলার মাধবদী পৌর এলাকার ছোট মাধবদী গ্রামে ।
এ ঘটনায় দীপিকার ভাই অরবিন্দ আচার্য্য তিনজনকে আসামি করে গত ২ মে (বৃহস্পতিবার) দুপুরে হাজীগঞ্জ থানায় হত্যা চেষ্টার মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামিরা হলেন, হাজীগঞ্জ মকিমাবাদ গ্রামের মৃত রঞ্জিত আচার্য্যের ছোট ছেলে বিপুল আচার্য্য (৩৫), বড় ছেলে স্বজন আচার্য্য (৪৫) ও স্ত্রী সন্ধ্যা আচার্য্য (৬০)। পুলিশ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অভিযান চালিয়ে মামলার তিন আসামিকে আটক করে। শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে তাদের জেলহাজতে পাঠায়।
দীপিকার পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ৮ বছর আগে দীপিকার সাথে পারিবারিকভাবে বিপুলের বিয়ে হয়। তাদের দাম্পত্য জীবনে স্বস্তিকা আচার্য্য নামের ৩ বছর বয়সি একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।
হাজীগঞ্জ পৌরসভার বকুলতলা রোডের রঞ্জিত আশ্চার্যের ছেলে বিপুল আশ্চার্য্য ও তার বড় ভাই স্বজন আশ্চার্য্য ৩০ এপ্রিল গভীর রাতে দীপিকার শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন দিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। বিষয়টিকে দূর্ঘটনা বলে চালিয়ে দিতে রাতেই দীপিকাকে প্রথমে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরবর্তীতে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকেই পরদিন তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ণ ইউনিটি ভর্তি করা হয়।
এদিকে শুক্রবার দুপুরে আসামীদের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কফিল উদ্দিনের আদালত আসামীদের জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করার নির্দেশ দেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) খলিলুর রহমান জানান, দীপিকার শরীরের ৯২ ভাগ পুড়ে গেছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজে বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন দীপিকার বক্তব্য রেকর্ড করা হয়েছে। বক্তব্যে তাকে আগুন দিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে বলে জানান দীপিকা। সে আলোকে থানায় মামলা নেওয়া হয়েছে।
হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন রনি জানান, অগ্নিদগ্ধ দীপিকা নিহত হওয়ার খবরটি আমরা নিশ্চিত হয়েছি। আটক ৩জন আসামীকে কোর্টের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। তার ভাই অরবিন্দ আশ্চার্য্য যে মামলাটি করেছে, তাতে হত্যার চেষ্টা ও হত্যার কথা উল্লেখ রয়েছে। তাই পুনরায় মামলা করতে হবেনা।



 

Show all comments

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অগ্নিদগ্ধ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ