Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

বাংলাদেশে ‘জেনসুলিন’ ও ‘জেনসুপেন ২’ নিয়ে এলো বেক্সিমকো ফার্মা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৫ মে, ২০১৯, ৭:১৩ পিএম

চিকিৎসাগত মানের ক্ষেত্রে যুগান্তকারী সাফল্য অর্জন করা ইউরোপিয়ান ইনসুলিন ‘জেনসুলিন’ বাংলাদেশে নিয়ে এসেছে বেক্সিমকো ফার্মাসিটিক্যালস লিমিটেড। এর মাধ্যমে দেশের শীর্ষস্থানীয় ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানটি আবারও একটি মাইলফলক অর্জন করলো। এছাড়াও প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে অটোমেটেড এরগোনোমিক ইনসুলিন ইনজেকটিং ডিভাইস ‘জেনসুপেন ২’ নিয়ে এসেছে শীর্ষস্থানীয় ওষুধপ্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানটি। সম্প্রতি ঢাকায় দেশ বিদেশের বিশিষ্ট চিকিৎসাবিদদের উপস্থিতিতে বেক্সিমকো ওষুধ দুইটি আনুষ্ঠানিকভাবে বাজারে আনে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ডায়াবেটিস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব হেলথ সায়েন্সেসের বোর্ড অব ট্রাস্টি প্রফেসর একে আজাদ খান। এ সময় বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব হেল্থ সায়েন্স (বিআইএসএইচ) মেডিসিন বিভাগের প্রধান কনস্যালট্যান্ট প্রফেসর এমিরেটাস হাজেরা মাহতাব উপস্থিত ছিলেন।

বিশেষজ্ঞদের প্যানেলে অর্ন্তভুক্ত ছিলেন- প্রফেসর ফারুক পাঠান, প্রফেসর ডা. আবদুস সালেক মোল্লাহ্, প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন, প্রফেসর ডা. মোহাম্মদ আবদুল জালাল আনসারি, প্রফেসর ডা. নজরুল ইসলাম সিদ্দিকী, প্রফেসর লিয়াক আহমেদ খান, প্রফেসর ডা. এমএ হাসনাত এবং প্রফেসর ডা. এমএ সামাদ। প্যানেল আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন ডা. ইন্দ্রজিত প্রসাদ।

বিদেশের দু’জন বিশিষ্ট চিকিৎসকও এ আলেচনায় অংশ নেন। তারা হলেন- পোলান্ডের ওয়ারশ মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডায়াবেটলজি অ্যান্ড ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের প্রধান প্রফেসর লেসজেক জুপ্রিনিয়াক এবং টোকিও হেলথলিংক ইন্টারন্যাশন্যাল ও দ্য নিউ বিয়েটো কাউলিন হসপিটালের ডায়াবেটলজিস্ট ডা. মেলানি বেসিও দুরান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত স্বাস্থ্যখাত সংশ্লিষ্ট ছয়শতাধিক ব্যক্তি জেনসুলিন ও জেনসুপেন ২ এর উপর তাদের আস্থার কথা জানান। তারা বলেন, এদেশের মানুষের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতকরণে বেক্সিমকো ফার্মা শুরু থেকেই অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বেক্সিমকো


আরও
আরও পড়ুন