Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ২২ জুলাই ২০১৯, ০৭ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৮ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।
শিরোনাম

পাবনার পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন থামেনি

পাবনা থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৮ মে, ২০১৯, ৩:২৯ পিএম

পাবনার সুজানগর উপজেলা এবং রাজবাড়ী জেলা জুড়ে পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন থামেনি । প্রভাবশালীরা বালু উত্তোলন কওে যাচ্ছেন। প্রশাসনের নিষেধ তারা মানছেন না। বালু উত্তোলনের ফলে পদ্মা নদী ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়ে বসত-ভিটা হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছে নদী পাড়ের হাজারো পরিবার ।
অপরদিকে,সরকার কোটি কোটি টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। সরকারিভাবে এসব বালু উত্তোলন নিষেধ থাকলেও একশ্রেণীর অসাধু ও প্রভাবশালী বালু ব্যবসায়ী সরকারকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলা এবং রাজবাড়ী জেলার ধাওয়াপাড়া ও কালুখালী সহ পদ্মা নদীর বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে অবাধে এ বালু উত্তোলন করছেন। জানাযায়,
পাবনার সুজানগর উপজেলার নাজিরগঞ্জ, সাতবাড়ীয়া, ভায়না ইউনিয়নের ও পৌরসভার সীমান্তবর্তী এবং রাজবাড়ী জেলার জৌকুড়া, ধাওয়াপাড়া, কালুখালী ও প্রস্তাবিত সেনানিবাস এলাকার পদ্মা নদী হতে নিয়মিতভাবে একশ্রেণীর অবৈধ বালু ব্যবসায়ীরা এ বালু উত্তোলন করছেন।
স্থানীয়রা জানান, অবৈধ বালু উত্তোলনের বিরুদ্ধে তাঁরা দৃঢ়ভাবে প্রতিবাদ জানিয়েছেন, কিন্তু বালু উত্তোলনকারীরা তাঁদের কথা শুনছেন না। এদিকে,
বালু ব্যবসাকে কেন্দ্র করে প্রভাবশালীদের নিয়ে গড়ে উঠেছে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। ওই সিন্ডিকেটের নাকি অনেক দূর পর্যন্ত হাত রয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার কোথাও বালুর ইজারা নেই। কিন্তু আইনের কোন তোয়াক্কা না করেই অবৈধভাবে বালু ব্যবসায়ীরা বালু উত্তোলন করছেন ও রাস্তার পাশে স্টক করে বালু বিক্রি করছেন।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সুজানগর উপজেলার নাজিরগঞ্জ ইউনিয়নের নাজিরগঞ্জ বাজারের আশপাশে এলাকাসহ বরখাপুর,বুলচন্দ্রপুর,সাতবাড়ীয়া ইউনিয়নের সাতবাড়ীয়া বাজার হতে শ্যমনগর ও ভাটপাড়া রাস্তার পাশে এবং রাজবাড়ী জেলার জৌকুড়া,ধাওয়াপাড়া,কালুখালী ও প্রস্তাবিত সেনানিবাস এলাকার বিভিন্ন স্থানে বালু ¯ু‘পাকারে রাখার কারণে যানবাহন চলাচলেও ব্যাঘাত সৃষ্টি হচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাবনা


আরও
আরও পড়ুন