Inqilab Logo

সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ০৪ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

অর্ধকোটি টাকার সম্পত্তি দখল করে বাড়ি নির্মাণ

ভাইস চেয়ারম্যান ছেলের বাণিজ্য

প্রকাশের সময় : ২৮ মে, ২০১৬, ১২:০০ এএম

উথান মন্ডল, নাজিরপুর (পিরোজপুর) থেকে
পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ছেলের বিরুদ্ধে শেখ রাসেল স্মৃতি যুব সংঘের নামে প্রায় অর্ধকোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি দখলের অভিযোগ ওঠেছে। প্রথমে ওই সম্পত্তিতে শেখ রাসেল স্মৃতি যুব সংঘের সাইন বোর্ড দিয়ে বালু ভরাটের পর তা খুলে ফেলা হয়। বর্তমানে সেখানে বাড়িঘর নির্মাণ কাজ চলছে। রহস্যজনক কারণে কর্তৃপক্ষ নীরব ভূমিকা পালন করছেন। তবে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা (তহসিলদার) দায়িত্ব অবহেলার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের জন্য গত বুধবার বেলা ১১টায় সরেজমিনে উপজেলার মাটিভাঙা ইউনিয়নের তারাবুনিয়া বাজার সংলগ্ন সামন্তগাতি গ্রামের রাস্তার পাশে ঘটনাস্থলে পৌঁছলে অভিযুক্ত উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা বেগমের ছেলে শরিফুল ইসলাম লিপনের সাথে দেখা হয়। তখন দেখা যায়, সরকারি খাস সম্পত্তিতে বালু ভরাটকৃত জায়গায় লিপন উপস্থিত থেকে লেবার দ্বারা ঘর নির্মাণ করছেন। তখন ঘটনার বিষয়ে ভাইস চেয়ারম্যান ছেলে লিপন বলেন, এ সম্পত্তি সরকারি খাস। তবে আমি সরকারের কাছে বন্দোবস্ত নেয়ার আবেদন করেছি। কিন্তু সে সংক্রান্তে কোন কাগজ-পত্র তিনি সাংবাদিকদের দেখাতে পারেনি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, শরিফুল ইসলাম লিপনের মা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর লিপন বেপরোয়া হয়ে ওঠে। তারাবুনিয়া বাজার সংলগ্ন নদী তীরের প্রায় অর্ধকোটি টাকা মূল্যের সরকারি খাস জমিতে কয়েক মাস পূর্বে ভাইস চেয়ারম্যান  ছেলে শেখ রাসেল স্মৃতি যুব সংঘের সাইন বোর্ড দিয়ে বালু ভরাট করে দখল করে নেয়। তখন স্থানীয়রা প্রশাসনকে জানালেও তারা কোন পদক্ষেপ নেননি। পরে সেখান থেকে শেখ রাসেল স্মৃতি যুব সংঘের সাইন বোর্ড সরিয়ে নেয়। বর্তমানে ভাইস চেয়ারম্যান ছেলে সেখানে বাড়িঘর নির্মাণ করছে। তার প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুলতে চায় না। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন ভূমি সহকারি কর্মকর্তা (তহসীলদার) অশোক দাশ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি ইউএনও স্যারের সাথে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. তবিবুর রহমান বলেন, ঘটনাটি আমি শুনেছি। এখনই সেখানে লোক পাঠিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অর্ধকোটি টাকার সম্পত্তি দখল করে বাড়ি নির্মাণ
আরও পড়ুন