Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৩ কার্তিক ১৪২৬, ১৯ সফর ১৪৪১ হিজরী

পবিত্র রমজানে ফিলিস্তিনিদের জন্য রোনালদোর ১৫ লাখ ডলার

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ মে, ২০১৯, ১১:৩৮ এএম

সংযম ও সহিষ্ণুতার বার্তা নিয়ে সারা বিশ্বে পালিত হচ্ছে পবিত্র রমজান মাস। কিন্তু অন্যান্য দেশের মতো শান্তিতে রোজা রাখতে পারছেন না ফিলিস্তিনের মানুষ। ইসরাইলের হামলায় প্রতিনিয়ত রক্ত ঝরছে সেখানে। বরাবরই ফিলিস্তিনিদের প্রতি নিজের সমর্থন ও সহানুভূতি প্রকাশ করে আসছেন পর্তুগিজ ফুটবলার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। এবার সরাসরি যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনের অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি।

ফুটবল ক্যারিয়ারে জিতেছেন অসংখ্য গোল্ডেন বুট। কিন্তু পাশাপাশি তিনি যে ‘আ ম্যান উইথ গোল্ডেন হার্ট’ তার প্রমাণও একাধিকবার দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনের প্রতি বরাবরই বাড়তি আবেগ পর্তুগিজ এই সুপারস্টারের। তাই বিশ্বজুড়ে পবিত্র রমজান মাস চলাকালীন ফিলিস্তিনের মানুষের জন্য ১৫ লাখ মার্কিন ডলার অর্থসাহায্য করলেন জুভেন্তাস স্ট্রাইকার। বাংলাদেশী টাকায় যা প্রায় ১৩ কোটি টাকা।

দীর্ঘ ১২ বছর ধরে স্থল, পানি ও আকাশপথে ইসরাইলের হাতে বন্দি ও অবরুদ্ধ রয়েছে ফিলিস্তিনিরা। গাজা ভূখণ্ডে নিজেদের কর্তৃত্ব ও দখলদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টায় ফিলিস্তিনকে মৃত্যুপুরীতে পরিণত করেছে ইসরাইল। গুলি-বারুদের গন্ধে যুদ্ধবিধ্বস্ত মধ্যপ্রাচ্যের এই দেশটিতে জনজীবন আক্ষরিক অর্থেই বিপর্যস্ত।

এই অবস্থার মধ্যে পবিত্র রমাদান মাসে রোজা পালন ফিলিস্তিনিদের জন্য খুবই কঠিন। এমন সময় পবিত্র রমজান মাসে ফের একবার ফিলিস্তিনের মানুষের প্রতি নিজের শ্রদ্ধা ও সহানুভূতি জ্ঞাপন করলেন সিআর সেভেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো।

তবে এবারই প্রথম নয়। এর আগেও যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনের জন্য কেঁদেছে রোনালদোর হৃদয়। ২০১২ ইসরাইলের ‘পিলার অফ ডিফেন্স’ অপারেশনের পর গাজার শিশুদের পড়াশুনার সাহায্যার্থে রোনালদো নিলামে তুলেছিলেন তার ইউরোপের বর্ষসেরা স্ট্রাইকার সম্মান অর্থাৎ গোল্ডেন বুট। এরপর ২০১৩ বিশ্বকাপ কোয়ালিফায়ারে পর্তুগাল-ইসরাইল ম্যাচ শেষে ফিলিস্তিনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে বিপক্ষ ইসরাইলের ফুটবলারের সঙ্গে জার্সি বিনিময় করতে অস্বীকার করেন রোনালদো।

এরপর ইসরাইলের সেনাবাহিনীর আক্রমণে স্বজন হারানো বছর পাঁচেকের শিশু আহমেদ দাউবাসার সঙ্গে ২০১৬ সালে রিয়াল মাদ্রিদ ট্রেনিং ক্যাম্পে সাক্ষাৎ করেন রোনালদো। তার সঙ্গে চুটিয়ে ফটোসেশনের পর শিশু আহমেদের হাতে ক্লাবের তরফ থেকে উপহার দেয়া জার্সি তুলে দেন এই পর্তুগিজ ফুটবলার। এছাড়াও নানা সময় নানাভাবে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটির পাশে দাঁড়িয়েছেন পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী এই তারকা ফুটবলার।

তালিকায় নতুন সংযোজন এই ঘটনা। ফিলিস্তিনিদের জন্য পবিত্র রমজান মাসে রোনালদোর এই অর্থসাহায্যের খবর ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বজুড়ে। স্বভাবতই পর্তুগিজ ফুটবলারকে প্রশংসায় ভাসিয়ে দিচ্ছেন তার ভক্ত ও অনুসারীরা।

উল্লেখ্য, ২০০৭ সাল থেকে গাজা উপত্যকা ইহুদিবাদী ইসরাইলের অবরোধের মধ্যে রয়েছে। এর ফলে সেখানকার জনগণের জীবনযাত্রার মান মারাত্মকভাবে নেমে গেছে। পাশাপাশি মারাত্মক রকমের বেকারত্ব ও সীমাহীন দারিদ্রতা দেখা দিয়েছে গাজা উপত্যকায়। চরম দারিদ্র্যের কারণে বহু মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। এছাড়া কিছুদিন পরপর ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় ফিলিস্তিনিদের মৃত্যু সেখানে অতি সাধারণ ঘটনা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল

১৯ অক্টোবর, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন