Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬, ১৩ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

শিগগিরই এস-৫০০ ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করা হবে : এরদোগান

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২০ মে, ২০১৯, ১২:০৪ এএম

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান বলেছেন, ইতিমধ্যে রাশিয়ার কাছে থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয়ের চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। শিগগিরই রাশিয়া সঙ্গে যৌথভাবে এস-৫০০ প্রতিরক্ষাব্যবস্থা তৈরি করা হবে। শনিবার ইস্তানবুলে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এক টেলিভিশন প্রশ্ন-উত্তর পর্বে তিনি এ কথা বলেন। রাশিয়ার কাছে থেকে তুরস্কের এস-৪০০ কেনার চুক্তি নিয়ে ইতোমধ্যেই আঙ্কারার সঙ্গে ওয়াশিংটনের উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।

রাশিয়ার কাছ থেকে এই ক্ষেপণাস্ত্র কিনলে তুরস্কের বিরুদ্ধে অবরোধ দেয়া হবে বলে হুমকি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। এ বিষয়ে এরদোগান বলেন, তুরস্কের এস-৪০০ কেনা থেকে ফিরে আসার কোনো সম্ভাবনাই নেই। এ ব্যাপারে চুক্তি হয়ে গেছে। আর শিগগিরই যৌথভাবে এস-৫০০ ক্ষেপনাস্ত্র তৈরি করা হবে।
বিমানবিধ্বংসী এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্রকে নিজেদের যুদ্ধবিমানের জন্য হুমকি বলে মনে করছে যুক্তরাষ্ট্র। বিশেষ করে নিজেদের এফ-৩৫ বিমানের জন্য ক্ষেপণাস্ত্রটি প্রধান হুমকি বলে মনে করছে তারা।
এরদোগান বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মিডফিল্ডের কাছাকাছি বলটি পাস করছে। কিন্তু খুব তাড়াতাড়ি হোক বা পরে হোক, আমরা যখন এফ-৩৫ হাতে পাব, তখন আর তাদের (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) কোনো বিকল্প সুযোগ দেয়া হবে না।
রাশিয়ার এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্রটি একই সঙ্গে ৮০টি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম। তুরস্কের ক্ষেপণাস্ত্র কেনা নিয়ে উত্তেজনার কারণে এরই মধ্যে দেশটির সঙ্গে এফ-৩৫ যুদ্ধবিমান-সংক্রান্ত কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্র চায় রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্রের বদলে তুরস্ক তাদের প্যাট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয় করুক।

 

 



 

Show all comments
  • md billal hossain ২০ মে, ২০১৯, ৫:৪৩ পিএম says : 0
    সৌদি আরব ............
    Total Reply(0) Reply
  • raihan ২০ মে, ২০১৯, ৫:০৭ পিএম says : 0
    সৌদি আরবের আর অন্য আরব রাষ্ট্র গুলোর উচিত এস-৪০০ কেনা। সাব মেরিনও কেনা উচিত।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এরদোগান


আরও
আরও পড়ুন