Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬, ২১ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

কানের লালগালিচায় জৌলুস ছড়িয়েছেন যেসব অভিনেত্রী

সবুজ পারভেজ | প্রকাশের সময় : ২০ মে, ২০১৯, ৭:৩৯ পিএম | আপডেট : ৭:৫০ পিএম, ২০ মে, ২০১৯

বহু বছর ধরে এই মে মাসেই ফ্রান্সের দক্ষিণ উপকূলীয় শহরে বসে কান চলচ্চিত্র উৎসবের জমজমাট আয়োজন। সেই আয়োজনের জৌলুস ছড়াচ্ছে এখন বিশ্ব সিনেমাপ্রেমীরা। বাংলাদেশ সময় গত মঙ্গলবার (১৪ মে) দিবাগত রাত ১২টা ১০ মিনিটে কানের ৭২তম আসরের পর্দা ওঠে। ইতোমধ্যেই সেখানে হাজির হয়েছে বিশ্বের খ্যাতনামা সব অভিনেত্রীরা। কানের লালগালিচায় একে একে নিজেদের লুকায়িত সৌন্দর্যের জৌলুস ছড়াচ্ছেন।
গতকাল রোববার (১৯ মে) বিশ্ব চলচ্চিত্রের মর্যাদাপূর্ণ এ আসরে অংশ নিতে মেয়েকে নিয়ে ফ্রান্স পৌঁছান সাবেক বিশ্ব সুন্দরী ঐশ্বরিয়া রায় বচ্চন। কানের রেড কার্পেটে নিয়ন আলোর স্নিগ্ধোজ্জ্বল মেটালিক সোনালি গাউন পরে লালগালিচায় পা মাড়ান অ্যাশ। তাকে দেখে মনে হচ্ছিল এ যুগের মৎস্যকন্যা। যেন একটা সোনার মাছ! ২০০২ সাল থেকে কানসৈকতে দ্যুতি ছড়াচ্ছেন তিনি। বিখ্যাত প্রসাধনী প্রতিষ্ঠান লরিয়াল প্যারিসের দূতিয়ালি করতে প্রতি আসরে যেতে হয় তাকে। এ নিয়ে ১৮বার কানসৈকতে তার পা পড়লো। এদিকে গত শনিবার (১৮ মে) উৎসবের পঞ্চম দিন রূপের জাদু নিয়ে প্রথমবার কানসৈকতে হাজির মার্কিন পুত্রবধূ প্রিয়াঙ্কা চোপড়াও। দক্ষিণ ফরাসি উপকূলেও তিনি দেখিয়ে দিলেন, লালগালিচার রানি কাকে বলে! কালো ও সোনালি রঙের মিশেলে কাঁধখোলা গাউনে অসম্ভব সুন্দর লাগছিল তাকে।
শুধু ঐশ্বরিয়া বা প্রিয়াঙ্কা চোপড়ায় নন, এরইমধ্যে কানের রেড কার্পেট মাড়িয়েছেন বলিউডের আরেক আবেদনময়ী কঙ্গনা রানাওয়াত। গত বৃহস্পতিবার (১৬ মে) বিকাল ৫টায় তিনি কানের রেড কার্পেটে হাজির হন। মোটামুটি ঝড় তুলে দেওয়া একখানা শাড়ি পরেছেন। পুরোপুরি আলো-ঝলমলে লেগেছে তাকে। যেন একনিমিষে মন কেড়ে নেওয়ার মতো আবেদনময়ী! এ নিয়ে এই অভিনেত্রী চার বার হাজির হলেন ফ্রান্সের দক্ষিণ উপকূলীয় শহরে। এদিকে ওই একইদিন সন্ধ্যা ৭টার কিছুক্ষণ আগে উপস্থিত হন দীপিকা পাড়ুকোনও। পোশাকে আর সাজগোজে তার কাছ থেকে চোখে ফেরানো দায়! এককথায় অসম্ভব সুন্দর। অন্যদের দৃষ্টি আটকে রাখতে তার লম্বা শারীরিক গড়নের জুড়ি নেই। এ নিয়ে দীপিকাও চারবার কানের রেড কার্পেটে ধরা দিলেন।
এদিকে ভারতীয় টেলিভিশন তারকা হিসেবে এবারই প্রথম কোনো অভিনেত্রীকে কান কর্তৃপক্ষ আমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েছেন। আর এই সৌভাগ্যবতী হলেন হিনা খান। এরইমধ্যে কানের লালগালিচায় হাঁটার দুর্লভ সুযোগ লুফে নিয়েছেন তিনি। ফ্রান্সের দক্ষিণে সমুদ্রকূল ঘেঁষে অবস্থিত ফ্রেঞ্চ রিভিরার চমৎকার আবহাওয়ায় লালগালিচায় হাঁটলেন এই সুন্দরী। একপাশে সূর্য আর সাগর, আরেক পাশে লালগালিচায় হিনা খান। কানের লালগালিচায় হিনা খান পরেছেন রুপালি রঙের লম্বা পিঠখোলা গাউন। গয়না বলতে কানে ছোট্ট সাদা পাথরের দুল আর বাঁ হাতের অনামিকায় ছোট্ট আংটি। এটুকুই। হালকা গোলাপি ঠোঁটে আর ক্ল্যাসিক মেকআপে যখন হাঁটছিলেন, পোজ দিচ্ছিলেন আর হাত নাড়ছিলেন, তখন তার শরীর ঠিকরে বের হচ্ছিল ছোট্ট ছোট্ট আলো। সব মিলিয়ে হিনার জীবনে সেই মুহূর্ত ছিল স্বপ্নের মতোই।
কানের ৭২তম এ আসরে শনিবার (১৮ মে) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় গ্রান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে ছিল আউট অব কম্পিটিশনে নির্বাচিত ‘দ্য বেস্ট ইয়ারস অব অ্যা লাইফ’ ছবির উদ্বোধনী প্রদর্শনী। রবিবার (১৯ মে) সকাল ১১টায় একই ভেন্যুতে আবারও এটি দেখানো হয়। এর প্রচারণা করতেই কানসৈকতে আলো ছড়াচ্ছেন ইতালিয়ান অভিনেত্রী মনিকা বেলুচ্চি। শনিবার রাতে কালো গাউন পরে লালগালিচায় হেঁটেছেন তিনি। কান চলচ্চিত্র উৎসবের সঙ্গে মনিকা বেলুচ্চির সখ্য বহু বছরের। ২০০০ সালে স্টিফেন হপকিন্সের ‘আন্ডার সাসপিশান’ ছবির সুবাদে প্রথমবার দক্ষিণ ফ্রান্সের সমুদ্রতীরবর্তী অঞ্চলে পা রাখেন তিনি। এটি প্রদর্শিত হয় প্রতিযোগিতা বিভাগের বাইরে। এর দুই বছর পর আবারও সাগরপাড়ের শহরে আসেন ইতালিয়ান এই রূপবতী। ২০০২ সালে তার অভিনীত গ্যাসপার নো’র ‘ইরেভারসিবল’ কানের প্রতিযোগিতা বিভাগে ব্যাপক আলোচিত হয়।
‘দ্য বেস্ট ইয়ারস অব অ্যা লাইফ’ ছবিতে মনিকা বেলুচ্চি ২০০৬ সালে হংকংয়ের নির্মাতা ওঙ কার-ওয়াইয়ের নেতৃত্বে মূল প্রতিযোগিতা বিভাগের বিচারকদের প্যানেলে ছিলেন মনিকা বেলুচ্চি। এর দুই বছর পর উৎসবে নির্বাচিত হয় তার অভিনীত মার্কো তুলিও গিওরদানার ‘ওয়াইল্ড ব্লাড’ ও মেরিনা ডি ভ্যানের ‘ডোন্ট লুক ব্যাক’। ২০১৪ সালে তার অভিনীত ‘ওয়ান্ডারস’ ছবির জন্য গ্রাঁ প্রিঁ পুরস্কার পান ইতালিয়ান নারী নির্মাতা অ্যালিস রোরওয়াচার। ২০১৭ সালে ৭০তম কান উৎসবের মিস্ট্রেস অব সিরিমনিস (উদ্বোধনী ও সমাপনী অনুষ্ঠানের সঞ্চালক) ছিলেন। এর আগেও ২০০৩ সালে একই দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
এছাড়াও কানের লালগালিচায় হেটেছেন ডায়ানা পেন্টি ও হুমা কুরেশিসহ অনেকে। আগামী ২৫ মে পর্যন্ত আরো অনেকেই হাটবেন ফ্রান্সের দক্ষিণ উপকূলীয় শহরের কান উৎসবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন