Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬, ২৩ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

ঢাকায় মানববন্ধনে ‘বালিশ বিক্ষোভ’

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ মে, ২০১৯, ১২:০৫ এএম

বাংলাদেশের পাবনায় নির্মাণাধীন রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসিক প্রকল্প গ্রীন সিটির ফ্ল্যাটের আসবাবপত্র কেনাকাটা এবং সেগুলোর বহন-ওপরে উঠানোর খরচ নিয়ে সাগরচুরির ঘটনা ঘটেছে। সেই মহা দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে দেশব্যাপী চলছে আলোচনার ঝড়। রূপপুর পারমাণবিক কর্তৃপক্ষ নিয়ম মেনে সবকিছু করা হয়েছে দাবি করলেও হাইকোর্ট ক্রয় সংক্রান্ত বিষয়ে তথ্য আদালতে জমা দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। তবে এ ধরনের সাগরচুরির প্রতিবাদে রাজধানী ঢাকায় গতকাল একটি অভিনব বিক্ষোভ হয়েছে। জাতীয় প্রেসক্লাবে সামনে গণঐক্য এবং নাগরিক পরিষদ নামে দু’টি সংগঠনের কিছু ব্যক্তি বালিশ হাতে নিয়ে এই বিক্ষোভ করেন। এই বিক্ষোভে কয়েকজন তরুণ অংশগ্রহণ করেন। অভিনব এই বিক্ষোভের নাম দেয়া হয়েছে ‘বালিশ বিক্ষোভ’।
স¤প্রতি দৈনিক ইনকিলাবসহ জাতীয় দৈনিক পত্রিকাগুলোয় খবর প্রকাশিত হয়েছে যে, পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকার জন্য নির্মিত বহুতল ভবনের ফ্ল্যাটগুলোর জন্য ১,৩২০টি বালিশ কেনা হয়েছে, যার প্রতিটির মূল্য দেখানো হয়েছে প্রায় ৬ হাজার টাকা। প্রতিটি বালিশ নিচ থেকে ওপরে বহন করার খরচ দেখানো হয়েছে ৭৬০ টাকা। বিক্ষোভে নাগরিক পরিষদের আহ্বায়ক মো: শামসুদ্দিন বলেন, যেখানে একটি বালিশের বর্তমান বাজার মূল্য ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা, সেখানে একটি বালিশের মূল্য দেখানো হয়েছে ৬ হাজার টাকা। দেশে যে সীমাহীন দুর্নীতি চলছে এটি তার একটি নমুনা মাত্র। এ বিষয়টিকে ইতিহাসের সেরা লুট বলে আখ্যায়িত করেছে বিক্ষোভে অংশগ্রহণকারী তরুণরা।
বিক্ষোভকারীদের বহন করা একটি পোস্টারে লেখা ছিল, কে দেখবে এই দুর্নীতি? কে থামাবে এই রাষ্ট্রীয় সম্পদ চুরির মহামারী? আরেকটি পোস্টারে লেখা ছিল, কৃষক পায়না ফসলের দাম, চারিদিকে লুটপাটের জয়গান।
ব্যাপক এই দুর্নীতির অভিযোগ খতিয়ে দেখার জন্য দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়।
তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সব ধরনের পাওনা বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রণালয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রূপপুর


আরও
আরও পড়ুন