Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬, ১৬ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

জিতেই চলেছে বসুন্ধরা

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ মে, ২০১৯, ৯:৩৯ পিএম

ঘরোয়া ফুটবলের মর্যাদাপূর্ণ আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) জিতেই চলেছে নবাগত বসুন্ধরা কিংস। লিগে অভিষেক আসরেই শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে দূরন্ত গতিতে ছুটছে তারা। অন্যদিকে এক ম্যাচ পরে ফের জয়ের ধারায় ফিরেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনী লিমিটেড। বৃহস্পতিবার নোয়াখালীর শহীদ বুলু স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় লেগের ম্যাচে বসুন্ধরা ৩-১ গোলে হারায় আরেক নবাগত স্বাগতিক নোফেল স্পোর্টিং ক্লাবকে। এই জয়ে ১৫ ম্যাচে ৪৩ পয়েন্ট পেয়ে তালিকার শীর্ষেই থাকলো বসুন্ধরা। এক ম্যাচ কম খেলে ৯ পয়েন্ট নিয়ে ১১তম স্থানেই রইল নোফেল।

লিগে এখনো অপরাজিত বসুন্ধরা কিংস। শিরোপা জিততে যেন বদ্ধপরিকর তারা। লক্ষ্যপূরণে একের পর এক ম্যাচ জিতে ঢাকা আবাহনীর ধরা- ছোয়ার বাইরে চলে যাচ্ছে দলটি। কাল ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাতœক ফুটবল উপহার দেয় বসুন্ধরা। তবে গোল পেতে প্রথমার্ধের শেষ পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকতে হয় তাদের। ম্যাচের ৪১ মিনিটে কোস্টারিকার ফরোয়ার্ড ডেনিয়েল কলিন্ড্রেসের গোলে এগিয়ে যায় নবাগতরা (১-০)। মিনিট চারেক পর ব্যবধান দ্বিগুন করেন কিরগিজস্তানের মিডফিল্ডার বখতিয়ার দুশবেকভ (২-০)। তবে ৫৩ মিনিটে পেনাল্টি থেকে এক গোল শোধ দেন নোফেলের গিনির ফরোয়ার্ড ইসমাইল বাঙ্গুরা (১-২)। ম্যাচের ৭৪ মিনিটে ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার মার্কোস ভিনিয়াস গোল করলে ৩-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায় বসুন্ধরা কিংস। শেষ পর্যন্ত এই ব্যবধানের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে তারা।

অন্যদিকে আগের ম্যাচে বসুন্ধরার কাছে হারলেও ফের জয়ের ধারায় ফিরেছে ঢাকা আবাহনী। বৃহস্পতিবার গোপালগঞ্জ শেখ ফজলুল হক মনি স্টেডিয়ামে তারা ৪-১ গোলে হারায় স্বাগতিক মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রকে। এই জয়ে ১৫ ম্যাচে ৩৬ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার দ্বিতীয়স্থান ধরে রাখলো আবাহনী। সমান ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট পাওয়া মুক্তিযোদ্ধার অবস্থান অষ্টমে। এদিন ম্যাচের শুরু থেকেই গোলের জন্য মরিয়া ছিল মুক্তিযোদ্ধা। ১৪ মিনিটেই তারা সাফল্য তুলে নেয়। এসময় মুক্তির আইভরিকোস্টের ফরোয়ার্ড বাল্লো ফেমোসা গোল করে দলকে এগিয়ে নেন (১-০)। কিন্তু লিড ধরে রাখতে পারেনি তারা। উল্টো একের পর এক গোল হজম করতে হয়েছে মুক্তিযোদ্ধাকে। ম্যাচের ২৭ মিনিটে আবাহনীর হাইতিয়ান ফরোয়ার্ড বেলফোর্ট গোল করে ম্যাচে সমতা আনেন (১-১)। মিনিট তিনেক পর নাবীব নেওয়াজ জীবন গোল করলে এগিয়ে যায় ঢাকা আবাহনী (২-১)। ৬৪ মিনিটে মামুনুল ইসলাম আবাহনীর পক্ষে তৃতীয় গোল করেন (৩-১)। মিনিট দশেক পরে গোল করে মুক্তিযোদ্ধার কফিনে শেষ পেরেকটি ঠুকে দেন আবাহনীর নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড সানডে সিজোবা (৪-১)।

এই গোলের মধ্যদিয়েই সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় নিজেকে আরো এগিয়ে রাখলেন সানডে। ১১ গোল করে শীর্ষেই আছেন তিনি। অবশ্য সমান গোল করে সানডের সঙ্গেই সহাবস্থান করছেন শেখ রাসেলের নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড রাফায়েল ওনবেরে। ১০ গোল করে সানডের পেছনেই রয়েছেন আবাহনীর স্থানীয় ফরোয়ার্ড নাবীব নেওয়াজ জীবন। এ দুই ম্যাচ দিয়েই ফের দীর্ঘ বিরতিতে গেল বিপিএল। ১৫ জুন আবার শুরু হবে লিগের খেলা। মাঝের সময়টিতে থাইল্যান্ডে জাতীয় দলের অনুশীলন ও লাওসের বিপক্ষে ফিফা বিশ্বকাপের প্রাক-বাছাই পবের্র দু’টি ম্যাচ খেলবেন জামাল ভূঁইয়ারা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল


আরও
আরও পড়ুন